• প্রচ্ছদ » শেষ পাতা » ড. ইমতিয়াজ বললেন, রাডার বসানোর চুক্তিতে চীনের সঙ্গে সম্পর্কের প্রভাব পড়বে না বাংলাদেশকে মধ্যপন্থা অবলম্বন করা উচিত ছিলো, বললেন একেএম শামসুদ্দিন


ড. ইমতিয়াজ বললেন, রাডার বসানোর চুক্তিতে চীনের সঙ্গে সম্পর্কের প্রভাব পড়বে না বাংলাদেশকে মধ্যপন্থা অবলম্বন করা উচিত ছিলো, বললেন একেএম শামসুদ্দিন

আমাদের নতুন সময় : 10/10/2019

জুয়েল খান : বাংলাদেশের উপকূলীয় অঞ্চলে নজরদারির জন্য ভারত রাডার বসাতে যাচ্ছে। সাম্প্রতিক সময়ে প্রধানমন্ত্রীর ভারতে সফরে এ বিষয়ে চুক্তি সই হয়েছে। এখনো চুক্তির বিষয়ে বিস্তারিত কিছু বলা হয়নি। এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ড. ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, রাডার বসিয়ে নজরদারি করার জন্য ভারত সরকার এর আগে মালদ্বীপ এবং শ্রীলঙ্কার সঙ্গে চুক্তি করেছে, কিন্তু চীন সেই বিষয়টা নিয়ে তেমন কোনো প্রতিক্রিয়া দেখায়নি। ফলে বাংলাদেশের সঙ্গে চুক্তির কারণে চীনের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্কে কোনো প্রভার পড়বে না। তবে রাডার বসিয়ে নিরাপত্তা নজরদারি করাটা এখন অনেক ব্যাকডেটেড। যেখানে চীন বিশ্বের সবচেয়ে অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করছে নজরদারি করার জন্য। সেখানে ভারতের রাডার দিয়ে নজরদারি করার বিষয়ে চীন চিন্তিত নয়। কিন্তু মুম্বাইয়ে হামলার ঘটনায় ভারত সরকার মনে করে সমুদ্রপথে জঙ্গি আসতে পারে, তাই সমুদ্র উপকূলে নিরাপত্তা নজরদারি বাড়াচ্ছে। নিরাপত্তা বিশ্লেষক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) একেএম শামসুদ্দিন বলেন, চীনের সঙ্গে বাংলাদেশের ব্যবসায়িক অংশীদারিত্বসহ দীর্ঘদিনের উন্নয়ন সহযোগী হিসেবে সম্পর্ক আছে। বাংলাদেশে চলমান বড় বড় প্রকল্পে চীনের অর্থায়ন রয়েছে। অন্যদিকে বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে ভারতের বড় অবদান। সুতরাং চীন কিংবা ভারত, কোনো দেশের সঙ্গেই খারাপ সম্পর্ক করার সুযোগ বাংলাদেশের নেই। কিন্তু ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের উপকূলীয় অঞ্চলে রাডার বসানোর চুক্তি করাটা চীন সহজভাবে নেবে না। এখনো যেহেতু চীন এই বিষয়ে আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া জানায়নি তাই নিশ্চিত করে কিছু বলা মুশকিল যে, এই চুক্তির প্রভাব বাংলাদেশ-চীন সম্পর্কের উপরে কতোটা পড়বে। তবে ভারতের রাডার বসানোর মূল কারণগুলো এখনো পরিষ্কার নয়




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]