বিছানায় স্ত্রী ও সন্তানের লাশ, ফ্যানের সঙ্গে ঝুলছিলেন বাবা

আমাদের নতুন সময় : 10/10/2019

সুজন কৈরী : রাজধানীর মিরপুরে একটি ফ্ল্যাট থেকে একই পরিবারের তিনজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে মিরপুর ১৩ নম্বর সেকশনের বি ব্লকের ৫ নম্বর সড়কের ১০ নম্বর বাড়ির তিন তলার ফ্ল্যাট থেকে তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহতরা হলেন- সরকার মোহাম্মদ বায়েজীদ (৪৫) , তার স্ত্রী অঞ্জনা (৪০) ও ছেলে ফারহান (১৭)। তাদের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায় পুলিশ। স্থানীয় লোকজন ও পুলিশ বলছে, আর্থিক অনটন, ব্যবসায় ধস, ঋণগ্রস্থ থাকা ও ব্যাংক লোনের চাপ সইতে না পারায় স্ত্রী অঞ্জনা ও ছেলে ফারহানকে খাবারের সঙ্গে বিষ মিশিয়ে হত্যার পর নিজে গলায় ফাঁস নিয়ে আতœহত্যা করেন বায়েজীদ। তিনি প্রথমে গার্মেন্টের ব্যবসা করেন। পরে পর্দার কারখানা খোলেন। তার ছেলে ফারহান মিরপুরের ঢাকা কমার্স কলেজের এইচএসসি প্রথম বর্ষের ছাত্র ছিলেন। আর স্ত্রী ছিলেন গৃহিনী। বাসা থেকে একাধিক চিরকুট উদ্ধার করেছে পুলিশ। এগুলোতে লেখা রয়েছে, ব্যাংক ঋণের চাপ, ব্যবসায় লোকসান ও পাওনাদারদের চাপে তিনি আত্মহত্যা করেছেন। এর আগে স্ত্রী-সন্তানকে বিষ প্রয়োগে হত্যা করেছেন। তিনি স্বেচ্ছায় ঘটনাটি ঘটিয়েছেন। এর জন্য অন্য কেউ দায়ী নয়। বুধবার রাতের কোনো এক সময় এ ঘটনা ঘটে থাকতে পারে। স্বজনরা ফোন দিয়ে তাদের না পেয়ে বাসায় গিয়ে ভেতর থেকে দরজা বন্ধ পেয়ে পুলিশকে খবর দেয়।
প্রতিবেশীরা জানান, বায়েজীদ ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়েছিলেন। কিন্তু ব্যবসায় লাভবান হতে পারেননি। ঋণও পরিশোধ করতে পারছিলেন না। ব্যাংক কর্তৃপক্ষ তার বিরুদ্ধে কাফরুল থানায় মামলা করে। এ নিয়ে হতাশায় ভুগছিলেন তিনি।
ডিএমপির মিরপুর জোনের সহকারী কমিশনার খায়রুল আমীন বলেন, খবর পেয়ে ওই বাসায় গিয়ে মা ও ছেলের লাশ বিছানা এবং বায়েজীদের লাশ ফ্যানের সঙ্গে ঝুলানো অবস্থায় পাওয়া যায়। সিআইডির ক্রাইম সিন ইউনিট ঘটনাস্থল থেকে আলামত সংগ্রহ করেছে। সম্পাদনা : রমাপ্রসাদ বাবু




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]