রিশা হত্যার দায়ে ওবায়দুল হকের মৃত্যুদন্ড

আমাদের নতুন সময় : 10/10/2019

মামুন খান : কাকরাইলে উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুলের ছাত্রী সুরাইয়া আক্তার রিশা হত্যা মামলার একমাত্র আসামি ওবায়দুল হককে মৃত্যুদ-াদেশ এবং ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন আদালত।
গতকাল বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশ এ রায় ঘোষণা করেন । এ সময় কারাগার থেকে ওবায়দুল হককে আদালতে হাজির করা হয়। রায় ঘোষনার পর সাজা পরোয়ানা দিয়ে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।
এরআগে রায় ঘোষণা উপলক্ষ্যে রিশার মা তানিয়া হোসেন, বাবা রমজান হোসেন, ছোট ভাই ও বোন, স্কুলের প্রধান শিক্ষক ও তার সহপাঠীরা আদালতে উপস্থিত হন। বেলা ২টা ৫১ মিনিটে ওবায়দুলকে আদালতে হাজির করা হয়। বেলা ৩ টায় বিচারক রায় পড়া শুরু করেন। ৩ টা ২৬ মিনিটে আদালত ওবায়দুলের মৃত্যুদ-ের রায় ঘোষণা করেন। পরে তাকে কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়।
রায় ঘোষণার সময়ে বিচারক বলেন, সুরাইয়া আক্তার রিশা একটা স্বনামধন্য স্কুলের ছাত্রী। রিশার মত একজন ছাত্রীকে একজন টেইলার্সের কাটিং মাস্টার্স যে হত্যাকান্ড সংগঠন করেছে তা অসমপ্রেম। কারণ রিশা একজন ব্যবসায়ীর মেয়ে। ভালবাসার অধিকার সবার আছে। তবে সেই ভালবাসা যেন কখনোই সহিংসতায় রূপ না নেয়। রিশার মত আর কোন মেয়েকে যেন জীবন দিতে না হয়। সার্বিক অবস্থা বিবেচনা করে আসামিকে এই মুহূর্তে এধরণের অপরাধ সংঘটনের সাহস না করে এজন্য পেনাল কোডের ৩০২ ধারায় সর্বোচ্চ সাজা পাওয়ার যোগ্য। আসামিকে মৃত্যুদ- দেয়া হলো।
মেয়ের খুনী ওবায়দুলের ফাঁসির আদেশ শুনে আদালতেই কেঁদে ফেলেন রিশার মা তানিয়া হোসেন। তিনি বলেন, তিনটা বছর আদালতে দৌড়াদৌড়ি করছি। এ রায়ে আমি সন্তুষ্ট। হাইকোর্টে যেন এ আদেশ বহাল থাকে। ওর ফাঁসি যেন দ্রুত কার্যকর হয়। সন্তান হারানো যে কি কষ্টের যার যায় সেই বুঝে। এভাবে আর যেন কোন মায়ের কোল খালি না হয়।
রিশার বাবা রমজান হোসেন বলেন, রায়ে আমরা সবাই সন্তুষ্ট। এ রায় যেন দ্রুত কার্যকর হয় এই আমাদের চাওয়া। ঢাকা মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটর আব্দুল্লাহ আবু, অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর তাপস কুমার পাল রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]