শেখ হাসিনা আপাতত আত্মজীবনী লিখছেন না

আমাদের নতুন সময় : 10/10/2019

দেবদুলাল মুন্না : প্র্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতকাল বুধবার বিকালে গণভবনে সংবাদ করার সময় দৈনিক কালের কন্ঠের সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলন নিজের পরিচয় দিয়ে জানতে চান প্রধানমন্ত্রীর আত্মজীবনী লেখার পরিকল্পনা আছে কিনা। জবাবে তিনি জানান, এখন আত্মজীবনী লেখার কথা ভাবছেন না। অতীতে অনেক সময় তার বান্ধবী বেবী মওদুদের তাগিদে লিখেছেন। এখন বেবী মওদুদ জীবিত নেই। ফলে লেখার বিষয়ে তাগিদ দেওয়ারও কেউ নেই। আর লেখক হিসেবে তাকে স্মরণ করুক সেজন্য বই লেখার চেয়ে তিনি বেশি দায়িত্ববোধ মনে করেন মানুষের পাশে দাড়ানোয়।
শেখ হাসিনার সর্বশেষ বই প্রকাশিত হয়েছে ‘আমাদের ছোট রাসেল সোনা’।এ বইটি এবছরের জুনে প্রকাশ করে শিশু একাডেমি। এ বইয়ের প্রকাশনা উৎসবে অধ্যাপক আনিসুজ্জামান বলেছিলেন, ‘এটি একটি আত্মজীবনীমুলকও বই।বইয়ের শেখ হাসিনা লিখেছেন, ‘বাসায় আব্বার জন্য কান্নাকাটি করলে মা ওকে ( রাসেল) বোঝাতেন এবং মাকে আব্বা বলে ডাকতে শেখাতেন। মাকেই আব্বা বলে ডাকত।’
শেখ রাসেলের জন্মগ্রহণ থেকে শুরু করে তার জীবনকাহিনী এবং ঘাতকের হাতে নির্মমভাবে নিহত হওয়ার ঘটনাপ্রবাহ বইটিতে তুলে ধরা হয়েছে।
বইয়ের ২১ পৃষ্ঠায় কারাগারে বঙ্গবন্ধুর সাথে সাক্ষাৎ করতে যাওয়ার বিষয়ে শেখ হাসিনা লিখেছেন ‘আব্বার সঙ্গে প্রতি ১৫ দিন পর আমরা দেখা করতে যেতাম। রাসেলকে নিয়ে গেলে ও আর আসতে চাইত না। খুবই কান্নাকাটি করত। ওকে বোঝানো হয়েছিল যে, আব্বার বাসা জেলখানা আর আমরা আব্বার বাসায় বেড়াতে এসেছি। আমরা বাসায় ফেরত যাব। বেশ কষ্ট করেই ওকে বাসায় ফিরিয়ে আনা হতো। আর আব্বার মনের অবস্থা কী হতো, তা আমরা বুঝতে পারতাম। বাসায় আব্বার জন্য কান্নাকাটি করলে মা ওকে বোঝাতেন এবং মাকে আব্বা বলে ডাকতে শেখাতেন। মাকেই আব্বা বলে ডাকত।’ সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]