৭৮ শতাংশ সরকারি ঠিকাদারি কাজ পেতে ঘুষ দিতে হয়, জানালো সিপিডি

আমাদের নতুন সময় : 10/10/2019

 

মো. আখতারুজ্জামান : ওয়ার্ল্ড ইকোনোমিক ফোরামের দ্যা গ্লোবাল কমপিটিটিভনেস রিপোর্ট-২০১৯-এর প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশের ঢাকা, চট্টগ্রাম, নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুরের ৭৭টি ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের ওপর জরিপ করা হয়। সুশাসন সম্পর্কে জরিপের ফলাফলে বলা হয়েছে, ৭৬ শতাংশ উত্তরদাতা জানিয়েছেন, আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম পরিচালনায় ঘুষ দিয়েছেন। আবার ৭৪ শতাংশ লোক জানিয়েছেন তারা কর পরিশোধের সময় ঘুষ দিয়েছেন।
বুধবার রাজধানীর পল্টনে ইকনোমিক রিপোর্টার্স ফোরাম ইআরএফ মিলনায়তনে এ প্রতিবেদন প্রকাশ উপলক্ষে সংবাদ সম্মেলন করে সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি)।
সিপিডির নির্বাহী পরিচালক ড. ফাহমিদা খাতুন বলেন, বৈশ্বিক উন্নয়নের সাথে তাল মিলাতে হলে প্রযুক্তিগত উন্নয়ন এবং সে অনুযায়ী দক্ষতা উন্নয়নের কোনো বিকল্প নেই। এজন্য সরকারের পক্ষ থেকে দক্ষতা উন্নয়নের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা দরকার।
তিনি বলেন, যেকোনো ধরনের দুর্নীতি বিরোধী অভিযান দেশের জন্য ভালো। এটাকে আমরা সাধুবাদ জানাই। কারণ দুর্নীতি কারণে এক শ্রেণির মানুষ বেশি উপকৃত হয় এবং কিছু শ্রেণির মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এর মাধ্যমে বৈষম্য বাড়ে। শুধু তাই নয় জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে ব্যাঘাত সৃষ্টি করে দুর্নীতি। অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি এবং জাতীয় স্বার্থ সাপেক্ষে এরকম অভিযান উন্নত দেশগুলোর মতো চলমান প্রক্রিয়া হওয়া উচিত।
তিনি আরো বলেন, বৈশ্বিক উন্নয়নের সাথে তাল মিলাতে হলে প্রযুক্তিগত উন্নয়ন এবং সে অনুযায়ী দক্ষতা উন্নয়নের কোনো বিকল্প নেই। এজন্য সরকারের পক্ষ থেকে দক্ষতা উন্নয়নের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা দরকার। দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য যদি একটি বিশেষ গোষ্ঠীর হাতে থাকে, তাহলে একচেটিয়া হয়। এটা দেশের অর্থনীতির জন্য ভালো নয়। একক ব্যবসায়ীর হাতে যদি একটি ব্যবসা খাত থাকে, তাহলে ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের ওই ব্যবসা খাতে আসতে পারেন না। সেই সাথে ভোক্তাদেরকে বেশি দাম দিয়ে ওই পণ্য বা সেবা কিনতে হয়। সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]