• প্রচ্ছদ » শেষ পাতা » প্রকৃতিই বদলে দিয়েছে বিষময় বুড়িগঙ্গার চেহারা এ ভরা বর্ষায়, বললেন আবু নাছের খান


প্রকৃতিই বদলে দিয়েছে বিষময় বুড়িগঙ্গার চেহারা এ ভরা বর্ষায়, বললেন আবু নাছের খান

আমাদের নতুন সময় : 11/10/2019

শাহীন খন্দকার : ঘন কালো পানি, অসহ্য দুর্গন্ধময় পরিবেশ। বহু দূর থেকেই ‘বুড়িগঙ্গার গন্ধ’ নাক বন্ধ করে দিত মানুষের। এবার শুকনো মৌসুমে এ পরিস্থিতি ছিল আরো ভয়াবহ। বুড়িগঙ্গা-দখল আর দূষণে মরণদশা হয় এক সময়ের প্রমত্তা এ নদীর। কালপানি, অসহ্য দুর্গন্ধময় পরিবেশে নদীর কাছে ঘেষা যেতো না। এখন আর আগের সেই পরিস্থিতি নেই। বদলে গেছে বুড়িগঙ্গা। কাছে গেলে আগের মতো দুর্গন্ধ পাওয়া যায় না। বিপন্ন বুড়িগঙ্গাকে বাঁচাতে তৎপরতার কমতি ছিল না। দেশের সর্বোচ্চ আদালত, সরকার, পরিবেশবাদী সংগঠন, মিডিয়া সব মহলই ছিল সোচ্চার। নদীটি দূষণ-বর্জ্যমুক্ত করতে সরকার কোটি কোটি টাকার প্রকল্পও হাতে নেয়। কিন্তু কোনো কিছুই বুড়িগঙ্গার সেই রং-গন্ধ বদলাতে পারছিল না। তবে এখন বদলে গেছে আগের বুড়িগঙ্গা। কোনো মানুষ, সংস্থা বা প্রযুক্তির বদৌলতে নয়, বদলেছে আপনা-আপনিই। প্রকৃতিই বদলে দিয়েছে বিষময় বুড়িগঙ্গার চেহারা। ভরা বর্ষায় বুড়িগঙ্গায় পানির প্রবাহ ও উচ্চতা দুই-ই বেড়েছে। ফলে ঢাকার প্রাণ বুড়িগঙ্গা ফিরে পেয়েছে আপন রূপ। পরিবেশ অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক সুকুমার বিশ্বাস বলেন, ‘অন্যান্য নদীর মতোই বুড়িগঙ্গা এখন ভরা যৌবনা। তাই নদীর দূষণমাত্রা কম। বর্ষায় বুড়িগঙ্গার এমন রূপকে ইতিবাচক বলে মন্তব্য করে পরিবেশবাদী সংগঠন পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলনের চেয়ারম্যান আবু নাছের খান বলেন, ‘বর্ষার পানির মাধ্যমে প্রকৃতিই বুড়িগঙ্গাকে পরিষ্কার করে দিয়েছে। এখন আমাদের করণীয় হচ্ছে, পরিচ্ছন্ন বুড়িগঙ্গাকে তার আগের চেহারায় ফিরতে না দেয়া। সম্পাদনা : ওমর ফারুক




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]