• প্রচ্ছদ » » বুয়েটের দশদফা যৌক্তিক আন্দোলনে জামায়াত-বিএনপি যাতে বাম হাত ঢোকাতে না পারে


বুয়েটের দশদফা যৌক্তিক আন্দোলনে জামায়াত-বিএনপি যাতে বাম হাত ঢোকাতে না পারে

আমাদের নতুন সময় : 11/10/2019

আহমেদ জিতু : আবরার ফাহাদ হত্যাকাÐের পেছনে কোনো যুক্তি দেয়া যাবে না, কোনো যুক্তি খোঁজা যাবে নাÑ সোজা হিসাব। সারাবিশ্বে এমন একটা ভয়াবহ হত্যাকাÐের পর পর মানুষ আউলিয়ে যায়, উল্টা-পাল্টা কথা বলা শুরু করে। তারপর আস্তে আস্তে মাথা ঠাÐা হলে যৌক্তিক আচরণ করা শুরু করে। আমাদের কপাল খারাপ। আমাদের সাধারণ মানুষ খুবই যৌক্তিক, তারা মাথা ঠাÐাই রাখে। কিন্তু যেকোনো ঘটনা ঘটার দুদিন পর সেটাতে সাধারণ মানুষের উত্তাপ খেয়াল করে যখন জামায়াত-বিএনপি বাম হাত ঢোকায়, তখনই ঝামেলা শুরু হয়। এরপর হাত ঢোকায় বিদেশি শক্তি, জাতিসংঘ, বিদেশি দাতা সংস্থা, মানবাধিকার সংঘ, আইএস ইত্যাদি। একটা ন্যায্য আন্দোলনের মধ্যে তারা শুরু করে নানা জিনিস খোঁজা। নিরাপদ সড়ক খোঁজে, কোটামুক্ত বিসিএস খোঁজে, তারপর খোঁজে জাফর ইকবাল স্যার ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে লেখা দেননি কেন সেটার কারণ, নির্বাচনে কারচুপি খোঁজে, বিশ্বজিৎ খোঁজে, চাঁদে সাঈদী খোঁজে, দুই-একটা গোপন লাশ খোঁজে, তারপর ফিসফিস করে সরকার পতনের গন্ধ খোঁজে এবং ঠিক এই পর্যায়ে এসে বিএনপি-জামায়াত শক্ত মাইর খেয়ে সোজা হয়ে যায়, সঙ্গে সঙ্গে সাধারণ মানুষের যৌক্তিক আন্দোলনও মাঠে মারা যায়। বুয়েটের দশদফা যৌক্তিক আন্দোলনে যাতে জামায়াত আর বিএনপি বাম হাত না ঢোকাতে পারে এই বিষয়ে সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের প্রতি অনুরোধ থাকলো। আবরার হত্যার একদিনের মধ্যে মূল আসামিদের ‘প্রায় সবাই’ গ্রেপ্তার হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী খুব স্পষ্টভাবে বলছেন তিনি ছাত্রলীগ-টাত্রলীগ দেখবেন না। অপরাধীদের বিচার হবে। তার বক্তব্য সুস্পষ্ট। প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]