কাশ্মীরী পত্রিকার সংবাদকে আড়াল করার জন্য সরকারি বিজ্ঞাপন বেশি

আমাদের নতুন সময় : 12/10/2019


দেবদুলাল মুন্না : মোদী সরকারের কৌশলই বলা যায়। কারণ কাশ্মিরের স্থানীয় পত্রিকাগুলোয় যদি বেশি সংবাদ ছাপা হয় এবং সেসব সংবাদ যদি সরকারকে বেকায়দায় ফেলে তাই মোদী সরকার বেশি বেশি বিজ্ঞাপন ছাপাচ্ছে স্থানীয় পত্রিকাগুলোয়। গত বৃহস্পতি ও শুক্রবার ছিল বিজ্ঞাপনে ঠাসা প্রথম পাতা। গতকাল শনিবার তুলনামুলক ওই দুইদিনের চেয়ে বিজ্ঞাপন কম থাকলেও বিজ্ঞাপনের কমতি ছিল না। বৃহস্পতিবার তো প্রথম পাতায় কোনো খবরই ছিল না। শনিবার ছাপা হয়েছে দুই তিনটি সংবাদ মাত্র। ছিল জম্মু ও কাশ্মীর সরকারের পাতাজোড়া একটি বিজ্ঞাপন। সেখানে বাসিন্দাদের ‘সন্ত্রাসবাদী ও বিচ্ছিন্নতাবাদীদের’ খপ্পরে না পড়ে স্বাভাবিক কাজকর্ম শুরুর আহ্বান জানানো হয়। এ তথ্য নিশ্চিত করেছে হিন্দুস্থান টাইমস ও জি নিউজ।
জম্মু ও কাশ্মীর থেকে ৩৭০ অনুচ্ছেদ প্রত্যাহারের ৬৭ দিন পরে সরকারের এমন বিজ্ঞাপন সেখানকার অবস্থা নিয়ে আবার প্রশ্ন তুলে দিল। কারণ সরকার গত কয়েক দিন ধরে দাবি করছিল, অঞ্চলটির অবস্থা এখন স্বাভাবিক। যদি তাই হয়, তবে কেন এই বিজ্ঞাপন? এতো বিজ্ঞাপন দিয়ে গিয়ে সংবাদ লুকানোর চেষ্টা ! কাশ্মিরের ‘মুজাহিদ জিহাদী’ সংগঠনের নেতা আবদুল্লাহ খুরানা জি নিউজকে বলেন, ‘আমরা কোনো খবরই জানতে পারছি না এখন। অসহায়ের মতো প্রহর গোনা ছাড়া আর যেন কোনো কাজ নেই আমাদের।’
বেশ কয়েকটি গণমাধ্যমে বলা হয়েছে, এখনও বাস চলাচল বন্ধ কাশ্মীরে। ইন্টারনেট নেই। ফোনও অচল। এটিএমে অর্থ নেই। অস্ত্র হাতে টহল দিচ্ছে নিরাপত্তা বাহিনী। এখনো স্কুল বন্ধ।
বিজ্ঞাপনে সরকার বলছে, ‘বিচ্ছিন্নতাবাদীরা নিজেদের সন্তানদের বিদেশে পাঠিয়ে লেখাপড়া করান, আর সাধারণ ছেলে-মেয়েদের হিংসা, পাথর ছোড়া আর হরতালের পথে যেতে উত্তেজিত করবেন না। ফের সেই পথই নিয়েছেন বিচ্ছিন্নতাবাদীরা। আপনারা কি এখনও তা সহ্য করবেন? তাদের খপ্পরে পড়ে ধ্বংসকে বেছে নেবেন, না কি সাধারণ জনজীবনে ফিরবেন?’
সরকারি ওই বিজ্ঞাপনে লেখা, ‘৭০ বছরের বেশি সময় ধরে জম্মু ও কাশ্মিরের মানুষকে ধোঁকা দেওয়া হয়েছে। পরিকল্পনামাফিক অপপ্রচারের সাহায্যে তাদের জীবনকে সন্ত্রাস, ধ্বংস ও দারিদ্র্যের নিরবচ্ছিন্ন চক্রাবর্তে আবদ্ধ করে ফেলা হয়েছে। আপনারা কি তা থেকে মুক্তি চান না?’ এরপরেই কাশ্মিরবাসীর প্রতি আবেদন, ‘স্বাভাবিক ব্যবসা-বাণিজ্য, জীবনযাত্রা শুরু করুন।’ সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]