• প্রচ্ছদ » » চুক্তি না হলেও দু’পারের মানুষ ফেনী নদীর জল আগে থেকেই নিয়মিত ব্যবহার করছে


চুক্তি না হলেও দু’পারের মানুষ ফেনী নদীর জল আগে থেকেই নিয়মিত ব্যবহার করছে

আমাদের নতুন সময় : 12/10/2019

দীপায়ন খীসা : ফেনী নদী নিয়ে জল ঘোলা অব্যাহত রয়েছে। যারা এই জল ঘোলা করছেন তারা সব বায়বীয় কায়দায় এই কাজটা করছেন। কান চিলে নিয়েছে এই জ্ঞান-কাÐ ভর করে দূরে থেকে দূরে ছুটছেন। ফেনী নদীর উজান অংশ বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যবর্তীভাবে বহমান। একপারে ভারত, অন্য পারে বাংলাদেশ। ভাটি অংশে ভারত নেই। চুক্তি হয়েছে উজান অংশের প্রবাহ নিয়ে। চুক্তি না হলেও দু’পারের মানুষ ফেনী নদীর জল নিয়মিত ব্যবহার করছে। এটা নদীর দু’পারের মানুষের স্বাভাবিক জীবনের অংশ। বাংলাদেশ-ভারত স্থল বন্দরও চালু হবে এই ফেনী নদী পার হয়ে। রামগড়-সাবরুম পারাপারের জন্য ফেনী নদীতে সেতু নির্মাণের কাজ এগিয়ে চলছে। তারও আগে ১৯৯৭-এর পাহাড়ের চুক্তি স্বাক্ষরের প্রাক্কালে এই ফেনী নদীতে আরেকটি অস্থায়ী সেতু দিয়ে ভারত থেকে আসা জুম্ম শরণার্থীদের বরণ করে নেয়া হয়েছিলো। ফেসবুকের নিউজফিড গরম করা সহজ। জল ঘোলা করাও সহজ। কিন্তু ভৌগোলিক অবস্থার খোঁজ করাটাও আবশ্যক। তা না হলে সেই প্রবাদ বাক্যটি আবার সামনে চলে আসবে। একটি প্রাণী নাকি জল ঘোলা না করলে জলই পান করতে পারে না। আমরা যেহেতু মনুষ্য তাই সেই প্রাণীটির তকমা লাগানো কি গৌরবের হবে? ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]