• প্রচ্ছদ » প্রথম পাতা » ব্যাহত হচ্ছে নগরীর উন্নয়ন কাজ, যুবলীগ স্বেচ্ছাসেবক লীগের ঠিকাদাররা গা ঢাকা দিয়েছেন


ব্যাহত হচ্ছে নগরীর উন্নয়ন কাজ, যুবলীগ স্বেচ্ছাসেবক লীগের ঠিকাদাররা গা ঢাকা দিয়েছেন

আমাদের নতুন সময় : 12/10/2019

সুজিৎ নন্দী : দুর্নীতিবিরোধী অভিযান শুরুর পর থেকেই লাপাত্তা অনেক ঠিকাদার ও তার লোকজন। এতে বন্ধ হয়ে গেছে বেশ ক’টি প্রকল্পের কাজ। ডিএসসিসির ঠিকাদার সমিতির একাধিক সূত্র জানায়, গা ঢাকা দিয়েছেন ঠিকাদারি ব্যবসার সঙ্গে জড়িত এখানকার ডজনখানেক যুবলীগ নেতা। কেউ কেউ দেশ ছেড়েছেন। অনেকে এলাকায় থাকলেও প্রকাশ্যে চলাফেরা করছেন না। ঠিকাদারি ব্যবসার সঙ্গে জড়িত অন্যান্য এলাকার যুবলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাদের অবস্থাও একই রকম। বিশেষ করে প্রভাবশালী ঠিকাদার সাবেক ছাত্রলীগ সভাপতি লিয়াকত শিকদার, খায়রুল হাসান জুয়েলসহ এক ডজন ঠিকাদার গ্রেফতার এড়াতে আত্মগোপনে চলে গেছে। স্থবির হয়ে পড়েছে তাদের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের অধীন প্রকল্পের কাজ।
এ ব্যাপারে ঢাকা সিটি করপোরেশনের আলোচিত ঠিকাদার নূরুন নবী চৌধুরী শাওন এমপি বলেন, আমি ১০ বছর ধরে এমপি। সিটি করপোরেশনের কোন কাজের সঙ্গে আমার সম্পৃক্ততা নেই। নিজ এলাকা নিয়ে ব্যস্ত। এদিকে অভিযান শুরু পরে ডিএসসিসির ৫টি মেগা প্রকল্পের কাজে ভাটা পড়েছে। বেশির ভাগ কাজই রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে নেবার কারণে প্রভাবশালী ঠিকাদাররা দেশত্যাগ বা আত্মগোপন করেছেন। ১৯ নং ওয়ার্ডের পয়োনিষ্কাশন ও পানির লাইন প্রতিস্থাপন এবং রাস্তা সংস্কারের কাজ শুরু হয় চলতি বছরের মার্চে। ১৯ কোটি ৫০ লাখ টাকায় কাজটি পান ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ঠিকাদার সমিতির সভাপতি ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খায়রুল হাসান জুয়েল। সিদ্ধেশ্বরী রোড, সিদ্ধেশ্বরী লেন, বেইলি রোডসহ অন্যান্য স্থানে রাস্তার একপাশে পড়ে আছে সুয়ারেজের বড় বড় পাইপ। রাস্তার আরেক পাশ কাটা। মগবাজার, মালিবাগ, কাকরাইলসহ আশপাশের পুরো এলাকার সোয়ারেজ ব্যবস্থায় সমস্যা দেখা দিয়েছে। সরকারের শুদ্ধি অভিযান শুরুর পরই ঠিকাদার জুয়েল পালিয়েছেন।
১৯ নং কাউন্সিলর মুন্সি কামরুজ্জামান জানান, বহুবার বলেছি। কিন্তু কোন কাজ হয়নি। প্রকৌশলী, প্রধান প্রকৌশলী এমনকি মেয়রকেও এ বিষয়ে বলেছি। এখন শুনছি দেশের বাইরে রয়েছেন।
সিটি করপোরেশনের কাজের পাশাপাশি রেলওয়ের বড় বড় কাজের ঠিকাদার মেসার্স ভুঁইয়া এন্টারপ্রাইজ, এমএম বিল্ডার্স ও মেসার্স অর্পণ। প্রতিষ্ঠান তিনটির মালিকানায় রয়েছেন ক্যাসিনোর গডফাদার ঢাকা মহানগর (দক্ষিণ) যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক (বহিষ্কৃত) খালেদ মাহমুদ ভুঁইয়া। গ্রেফতারের পর থেকে এসব ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের কাজ স্থবির হয়ে আছে বলে জানিয়েছেন রেলওয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।
যুবলীগ সমর্থিত নেতা হিসেবে রেলওয়েতে দীর্ঘদিন ধরে প্রভাব খাটিয়ে ঠিকাদারি ব্যবসা করে আসছেন ইকবাল হোসেন। মেসার্স সুরমা এন্টারপ্রাইজ, মেসার্স ফেন্সি এন্টারপ্রাইজ, মেসার্স কনফিডেন্স এন্টারপ্রাইজ ও মেসার্স সিআর ল্যান্ড প্রতিষ্ঠানের নামে ব্যবসা পরিচালনা করেন তিনি। ১৯ বছর ধরে রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর টুপি, জুতা ও ড্রেস সরবরাহ করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ রয়েছে এই চার প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে। যুবলীগ নামধারী এ নেতাও ক্যাসিনো ঘটনার পর থেকে আত্মগোপনে রয়েছেন। সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]