• প্রচ্ছদ » শেষ পাতা » আশুলিয়ায় ঝুট ব্যবসার নিয়ন্ত্রণ ও জমি জবর দখলে শাহাদাত বাহিনী


আশুলিয়ায় ঝুট ব্যবসার নিয়ন্ত্রণ ও জমি জবর দখলে শাহাদাত বাহিনী

আমাদের নতুন সময় : 13/10/2019

ইসমাঈল ইমু : সাভারের আশুলিয়া এলাকায় পুলিশের তালিকাভুক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী মিরপুরের শাহাদাতের মত আরেক বাহিনী গড়ে ওঠেছে। যুবলীগ থেকে বহিষ্কৃত উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে এই বাহিনী এলাকার ঝুট ব্যবসার নিয়ন্ত্রণ, জমি দখলসহ নানা অপরাধমূলক কর্মকা-ে স্থানীয়রা অতিষ্ট হয়ে পড়েছে। কেউ কেউ পুলিশে অভিযোগ করেও তোপের মুখে আছেন।
আশুলিয়া থানা যুবলীগের বেশ ক’জন নেতা জানান, শাহাদাত রাজনৈতিক পরিচয়ে ঝুট ব্যবসা ও মানুষের জমি জবর দখলের মাধ্যেমে কোটি কোটি টাকার সম্পদ গড়েছেন। পাশাপাশি গড়ে তুলেছেন একটি বাহিনীও। বিভিন্ন স্থানীয় নির্বাচনে সরকারি দলের পক্ষে ভুমিকা থাকলেও গোপনে বিএনপি-জাামাতের পক্ষে কাজ করার অভিযোগ রয়েছে এই বাহিনীর বিরুদ্ধে। বিএনপি-জামায়াতের সাথে আতাঁতের কারণে যুবলীগের পদটিও হারাতে হয়েছে এই নেতাকে।
বাইপাইল মৌজায় জনৈক সাইদুল বাকী নামের এক জমির মালিকের প্রায় দুই বিঘা জমি জবর দখল করেন শাহাদাত। যার বর্তমান বাজার মূল্য প্রায় ২০ কোটি টাকা। সাইদুল বাকি বলেন, আমি আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে দীর্ঘদিন ধরেই সম্পৃক্ত। শাহাদাত বাহিনী তার জমি দখল করে নিয়েছে। এবিষয়ে তার বিরুদ্ধে থানা পুলিশ সহ আদালতেও মামলা দায়ের করেছি। এছাড়া সাভারের রুহুল আমীন নামের এক জমির মালিকের ৩০ শতাংশ জমি জবর দখল করেন এই নেতা।
মানিকগঞ্জের নয়াডিঙ্গি কাটিম এলাকায় প্রায় ৩০ বিঘা জমির উপর শাহাদাত খাঁন গড়ে তুলেছেন বিলাসবহুল বাগান বাড়ি। যার বর্তমান মূল্য প্রায় ৫০ কোটি টাকা। এছাড়াও আশুলিয়া, উত্তরা, টাঙ্গাইলসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে নামে বেনামে জমি, বাড়ি, প্লট, ফ্লাট, গাড়ী ব্যাংক ব্যালেন্স রয়েছে।
সাবেক এই যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ২০১০ সালের আশুলিয়া থানায় সন্ত্রাস ও চাঁদাবাজির মামলায় শাহাদাত খান এজাহারভুক্ত আসামি ছিলেন। ২০১৭ সালের ৩১ জুলাই ঢাকা রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ এলাকা (ডিইপিজেড) এর ইউএস টেক্সটাইল লিমিটেডের বিপুল পরিমান কাপড় অবৈধভাবে পাচারকালে আটক করে বেপজা কর্তৃপক্ষ।
ইউএস টেক্সটাইল কারখানার মহাব্যবস্থাপক জেনেডিগ জানান, আলিফ এন্টারপ্রাইজ নামের প্রতিষ্ঠানের সাথে ঝুট ব্যবসার চুক্তি হলেও, ঝুটের আড়ালে তারা কোটি টাকার মূল্যবান কাপড় পাচার করে আসছিলো, যার একটি অংশ বেপজা গেটে কাস্টমসের হাতে আটক হয়।
নানা অপকর্ম ও দলীয় শৃংখলা ভঙ্গের কারণে ২০১৭ সালে যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তাকে সরিয়ে আহ্বায়ক কমিটি গঠন করেন। বর্তমানে শাহাদাত হোসেন খান সাভার উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষণা অনুযায়ী সারাদেশের দুর্নীতি বিরাধেী অভিযানে যাতে এসব দুনীতিবাজরাও আইনের আওতায় আসে এমন প্রত্যাশা করছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। সম্পাদনা : আবদুল অদুদ
এ বিষয়ে শাহাদাত খান বলেন, তিনি দীর্ঘদিন ধরে রাজনীতি করে আসছেন। ছাত্র রাজনীতি থেকে পর্যায়ক্রমে তিনি যুবলীগের রাজনীতিতে সক্রিয় রয়েছেন। যুবলীগ থেকে বহিষ্কারের বিষয়ে বলেন, স্থানীয় একটি গ্রুপ তাকে সরিয়ে দিয়ে আহবায়ক কমিটি গঠন করেছে। জমি দখল প্রসঙ্গে তিনি বলেন, একটি মহল তাকে হেয় করতে নানা ষড়যন্ত্র করছে। এসব অভিযোগ মিথ্যা দাবি করেন তিনি।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]