• প্রচ্ছদ » লিড ১ » দুর্যোগ মোকাবিলায় বাংলাদেশ এখন রোল মডেল, বললেন প্রধানমন্ত্রী


দুর্যোগ মোকাবিলায় বাংলাদেশ এখন রোল মডেল, বললেন প্রধানমন্ত্রী

আমাদের নতুন সময় : 13/10/2019

বাশার নূরু : আন্তর্জাতিক দুর্যোগ প্রশমন দিবস উপলক্ষে রোববার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এক অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ কথা বলেন। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী দুর্যোগ মোকাবিলায় দেশের ১৪টি জেলায় ১০০টি আশ্রয়কেন্দ্র এবং ৬৪টি জেলায় ১১ হাজার ৬০৪টি দুর্যোগ সহনীয় বাড়ির উদ্বোধন করেন। এসময় দেশের উপকূলীয় এলাকায় সবুজ বেষ্টনী গড়ে তুলতে বৃক্ষ রোপণের নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, নদী ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য বাজেটে একশ’ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। যেখানে নদী ভাঙন হবে, সেখানেই ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য বাড়ি তৈরি করে দেওয়া হবে। নদীগুলোতে পানির প্রবাহ স্বাভাবিক রাখতে আমরা সেগুলো ড্রেজিং করছি। তাছাড়া ভাঙন রোধে নদীশাসন ও বাঁধ দেওয়ার কাজ চলছে।
শেখ হাসিনা বলেন, দুর্গতদের পাশে দাঁড়াতে জাতির পিতা উদ্যোগ নিয়েছিলেন। তিনি সাইক্লোন শেল্টার নির্মাণ করেছিলেন। সে সময় ৪৫ হাজার ভলান্টিয়ারকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছিল। পরে তারা দুর্যোগ মোকাবিলায় বিভিন্ন এলাকায় কাজ করেন। আমরা যখনই সরকারে এসেছি, দুর্যোগ মোকাবিলায় ব্যবস্থা নিয়েছি।
বৃক্ষরোপণের ওপর গুরুত্বারোপ করে শেখ হাসিনা বলেন, আওয়ামী লীগ আশির দশকে কৃষক লীগের মাধ্যমে সারাদেশে পহেলা আষাঢ় থেকে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি পালনের উদ্যোগ নেয়। প্রত্যেকে যেন একটি করে গাছ লাগান, সে ব্যাপারে নির্দেশনা দেওয়া হয়। বনভূমি বৃদ্ধিতে উপকূলীয় এলাকায় সবুজ বেষ্টনী তৈরি করা আমাদের লক্ষ্য।
শেখ হাসিনা বলেন, ১৯৯১ সালে যে ঘূর্ণিঝড় হয়েছিল সেসময় যারা সরকারে ছিল তারা বলতে গেলে এর খবরই জানত না। যেহেতু আমাদের সংগঠন সারা বাংলাদেশে সক্রিয় সেদিন আমি খুব ভোররাতে টেলিফোন পাই যে, ঘূর্ণিঝড়ে মানুষের ক্ষতি হয়েছে। শুধু মানুষ না বিমানবাহিনীর প্লেন, হেলিকপ্টার, নৌবাহিনীর জাহাজ পর্যন্ত ধ্বংসপ্রাপ্ত হয়। পুরো উপকূলীয় অঞ্চল ব্যাপক ক্ষতি সম্মুখীন হয়।
তৎকালীন সরকারের সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ বিষয়ে তখনকার সরকার একেবারেই নীরব ছিল। আমি তখন বিরোধীদলে। তখন প্রধানমন্ত্রী ছিলেন খালেদা জিয়া। এ বিষয়টা যখন আমি পার্লামেন্টে তুললাম তিনি সংসদে বললেন, যত মানুষ মরার কথা তত মানুষ মরে নাই। আমি তখন জিজ্ঞেস করতে বাধ্য হয়েছিলাম, কত মানুষ মরলে আপনার তত মানুষ হবে আপনি জবাব দেন। অর্থাৎ একটি সরকার সতর্ক না থাকলে দেশের ক্ষতি হয়।
প্রতিবছর ১৩ অক্টোবর আন্তর্জাতিক দুর্যোগ প্রশমন দিবস হিসেবে পালন করা হয়। এ উপলক্ষে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠানটিতে আরও উপস্থিত ছিলেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবিএম তাজুল ইসলামসহ অন্যান্যরা। সম্পাদনা: শাহিদ আবেদীন




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]