• প্রচ্ছদ » শেষ পাতা » আন্দোলনকারী প্রাথমিক শিক্ষকদের চিহ্নিত করার নির্দেশ দিলো শিক্ষা অধিদপ্তর


আন্দোলনকারী প্রাথমিক শিক্ষকদের চিহ্নিত করার নির্দেশ দিলো শিক্ষা অধিদপ্তর

আমাদের নতুন সময় : 14/10/2019

 

ইউসুফ বাচ্চু : বেতন বৈষম্য নিরসনের দাবিতে সোমবার থেকে কর্মবিরতি শুরু করেছেন সারাদেশের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাড়ে তিন লাখের বেশি শিক্ষক। প্রধান শিক্ষকদের জাতীয় বেতন স্কেলের দশম গ্রেডে ও সহকারী শিক্ষকদের ১১তম গ্রেডে বেতন দেওয়ার দাবিতে প্রায় ৬৬ হাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সকাল ১০টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত দুই ঘণ্টার কর্মবিরতি পালন করেন।
আপরদিকে চাকরিবিধি স্মরণ করিয়ে দেওয়ার পাশাপাশি কর্মবিরতি পালনকারী শিক্ষকদের চিহ্নিত করার জন্য প্রাথমিক শিক্ষার বিভাগীয় উপপরিচালকদেরকে নির্দেশ দিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর। একই দিন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক সোহেল আহমেদ স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এই নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এর আগে গত রোববার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) সংবাদ সম্মেলনে এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন প্রাথমিক শিক্ষকরা। বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক ঐক্য পরিষদ ঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী, মঙ্গলবার ও ২ ঘন্টা কর্মবিরতির পালন করবেন তারা। এছাড়া ১৬ ও ১৭ অক্টোবর যথাক্রমে অর্ধদিবস ও পূর্ণ দিবস কর্মবিরতি পালন করবেন শিক্ষকরা। এরপরও দাবি আদায় না হলে আগামী ২৩ অক্টোবর মহাসমাবেশ করারও ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।
শিক্ষা অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালকের চিঠিতে বলা হয়েছে, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বেতন বৃদ্ধির বিষয়টি সরকারের উচ্চ পর্যায়ে সক্রিয় বিবেচনাধীন রয়েছে। এ পর্যায়ে কোনো ধরনের দাবি আদায়ের কর্মসূচি পালিত হলে তা সরকারের সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়ায় নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। অধিকন্তু সরকারি কর্মচারীদের এ ধরনের কর্মসূচি ঘোষণা বা অংশগ্রহণ সরকারি শৃঙ্খলা ও আপিল বিধিমালা-২০১৮ এর সম্পূর্ণ পরিপন্থী।
বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক সমিতির সভাপতি বদরুল আলম বলেন, এবার আমরা চূড়ান্ত প্রস্তুতি নিয়েই মাঠে নামছি। ১০ এবং ১১তম গ্রেডের দাবি না মানা পর্যন্ত আন্দোলন চলবে। সম্পাদনা: শাহিদ আবেদীন মিন্টু




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]