• প্রচ্ছদ » » কঠিন কাজ হলো ছাত্ররাজনীতিকে ৯০ পূর্ববর্তী অবস্থানে নিয়ে যাওয়া


কঠিন কাজ হলো ছাত্ররাজনীতিকে ৯০ পূর্ববর্তী অবস্থানে নিয়ে যাওয়া

আমাদের নতুন সময় : 14/10/2019

মুনশি জাকির হোসেন

সবচেয়ে সহজ কাজ হলো ছাত্ররাজনীতি বন্ধ করা, বন্ধের পক্ষে কথা বলা। সবচেয়ে কঠিন কাজ হলো ছাত্ররাজনীতিকে ৯০ পূর্ববর্তী অবস্থানে নিয়ে যাওয়া, ছাত্ররাজনীতিকে সাধারণ শিক্ষার্থীবান্ধব করা, ছাত্ররাজনীতিতে বিশুদ্ধতার চর্চা ফিরিয়ে এনে সুনাগরিক তৈরির পক্ষে ছাত্ররাজনীতির মূল স্রোত তৈরি করার জন্য ক্যাম্পেইন করা। পুঁজিবাদের আগ্রাসনে বিশ্বব্যাংক, আইএমএফের প্রেসক্রিপশনে বাংলাদেশের শিক্ষাকে পণ্য করার যে নীল নকশা চলমান আছে সেটির বিরুদ্ধে ছাত্ররাজনীতি ভালো ভ‚মিকা রাখতে পারতো। জিডিপির যে ছয় থেকে সাত শতাংশ শিক্ষা খাতে বরাদ্দের দাবি আছে সেটি বাস্তবায়নে ছাত্ররাজনীতি ভ‚মিকা রাখতে পারতো। প্রাকৃতিক দুর্যোগপ্রবণ দেশে ছাত্ররাজনীতি দুর্যোগ মোকাবেলা করতে একটি ভালো ফোর্স, এটিকে আরও ভালোভাবে কাজে লাগানো যেতো।
ছাত্ররাজনীতি বন্ধ হলে চলমান সমস্যার সমাধান হবে না বরং সংঘবদ্ধ চক্র তৈরি হবে, পাড়া মহল্লাতে যে রকম গ্যাং কালচার আছে সেরকম গ্রæপ তৈরি, এসব হবে হলো বিশ্ববিদ্যালয়ভিত্তিক, বিশ্ববিদ্যালয়ে এলাকাভিত্তিক, এ রকম আরও অনেক সমস্যা আছে। সবচেয়ে বড় সমস্যা হবে, মৌলবাদী রাজনীতির উত্থান। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররাজনীতি না থাকার ফলে র‌্যাগিং কালচার কি গড়ে উঠেনি? বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে হিজবুত তাহরির মতো জঙ্গি তৈরি হলো কিভাবে? ছাত্ররাজনীতি বন্ধ হলে মসজিদভিত্তিক, ইসলামী মাহফিল, দোয়া, দাওয়াত, ধর্ম প্রচারের নামে শিবিরের রাজনীতির গতি অপ্রতিরোধ্য হবে। মিসর, তুরস্কে রাজনীতি বন্ধের পরও ইসলামী ব্রাদারহুড যে ফরমেটে রাজনীতি করতো সেই ফরমেটেই চলবে এবং এই অপরাজনীতি বাংলাদেশকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে যাবে। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]