• প্রচ্ছদ » » বন্ধ না করে ছাত্ররাজনীতি বরং কীভাবে চালু করা যায় সেই চেষ্টা বেশি গুরুত্বপূূর্ণ


বন্ধ না করে ছাত্ররাজনীতি বরং কীভাবে চালু করা যায় সেই চেষ্টা বেশি গুরুত্বপূূর্ণ

আমাদের নতুন সময় : 14/10/2019

আরিফ জেবতিক

ছাত্ররাজনীতি বন্ধ করার কথা আসছে, আমার কথা হচ্ছে ছাত্র রাজনীতিটা তো চালুই নেই। বন্ধ না করে ছাত্ররাজনীতি বরং কীভাবে চালু করা যায় সেই চেষ্টা বেশি গুরুত্বপূূর্ণ। নব্বই দশকের পর থেকে যা আছে তা হচ্ছে সবসময় সরকারি দলের একক নৈরাজ্য। সেটা বিএনপির সময় হয়েছে, আওয়ামী লীগের সময়ও হচ্ছে। বিরাজনীতিকরণ বিপজ্জনক বিষয়। এটি কোনো সমস্যার সমাধান নিয়ে আসবে না। বরং পেট্রো ডলারে পেট্রোনাইজ করা মৌলবাদী গোষ্ঠী পরতে পরতে ঢুকে এমনভাবে শেকড় বাকড় ছড়াবে যে সেটির দীর্ঘমেয়াদি ক্ষতি থেকে কেউ রক্ষা পাবে না। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় চালুর হওয়ার সময় সেখানে ছাত্র রাজনীতি বন্ধ রাখা হয়েছিলো। এর ফলাফল হচ্ছে দেশে যা জঙ্গি তৈরি হয়েছে, তার একটা বিশাল অংশ এসেছে একদম এসব হাইফাই প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের অভয়ারণ্য থেকে। ছাত্ররাজনীতি চালুর প্রথম পদক্ষেপ হচ্ছে ছাত্র সংসদ নির্বাচন চালু রাখা। যখন সাধারণ ছাত্রদের ভোটের দরকার হবে তখন কিন্তু সেই ছাত্রদের নির্যাতন করতে কেউ যাবে না। যখন ছাত্র সংসদ নির্বাচন চালু ছিলো তখন আমরা র‌্যাগিং কথাটি কখনো শুনিনি । বরং নতুন ছাত্রদের কে নিজেদের দলে টানতে পারে সেজন্য আদর-সোহাগের কমতি ছিলো না। তাদের পুরনো বই দেয়া, নোট দেয়া, হলে হলে নবীনবরণ করা এসবের খুব চল ছিলো। কিন্তু ছাত্র সংসদ নির্বাচন না থাকলে নতুন ছাত্রদের নির্যাতন করার অসুস্থতা ধীরে ধীরে গ্রাস করেছে। অনেকে বলবেন যে ছাত্র সংসদ চালু হলে লাভ কী, সরকারদলীয় ছাত্র সংগঠনের একচেটিয়া মাস্তানিতে তো বাকিরা কিছুই করতে পারবে না। কিন্তু আমার মনে হয় প্রসেসটা চালু থাকলে এই পরিস্থিতি দ্রæতই বদলাবে। নুরু ভিপি হয়ে নুরুর কোনো লাভ হয়েছে কিনা জানি না, কিন্তু এতে করে ছাত্রলীগ সভাপতিকে কিন্তু দলীয় অভ্যন্তরীণ ফোরামে কঠোর জবাবদিহি করতে হয়েছে।
ডাকসু নির্বাচনে দৃষ্টি কেড়েছিলেন আরেকজন প্রার্থী অরণি সেমন্তী খান। ভোট বোধহয় তিনি বেশি পাননি, কিন্তু তার আচরণ অনেকেরই ভালো লেগেছিলো। প্রসেস যদি চালু থাকে তাহলে দলীয় ছাত্ররাজনীতির বাইরে এভাবে অরণি সেমন্তী খান কিংবা নুরুদের মতো স্বতন্ত্র ছাত্রনেতা আমরা আগামীতে আরও পাবো। তাদের মধ্যে ভালো নেতাই বেশি আসবে বলে আমার বিশ্বাস। আমাদের উচিত ছাত্র সংসদ নির্বাচনগুলো চালু করে আগামী দিনের এই নেতাদের সুযোগ করে দেয়া। ছাত্র রাজনীতি বন্ধ করে দিলে এই পথটা রুদ্ধ হয়ে যাবে,এই যা দুঃখ। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]