শেখ হাসিনার প্রথম লেখা

আমাদের নতুন সময় : 14/10/2019

নির্মলেন্দু গুণ

১৯৮৮ সালের বন্যার সময় শেখ হাসিনা টুঙ্গীপাড়ায় গিয়ে আটকা পড়েছিলেন। সেখানে তিনি বন্যার্ত মানুষের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করতেন। শেখ হাসিনা ঢাকায় না থাকার কারণে এরশাদবিরোধী আন্দোলনে ভাটা পড়ে। বেগম খালেদা জিয়া তখন বলেছিলেন, শেখ হাসিনা এরশাদকে ক্ষমতা থেকে হটাতে আগ্রহী নন বলেই টুঙ্গীপাড়ায় গিয়ে বসে আছেন।
শেখ হাসিনা ঢাকায় ফিরে এলে ইউনুসকে নিয়ে আমি তার সঙ্গে দেখা করি এবং তাকে বলি, টুঙ্গীপাড়ায় থাকাকালে তিনি যে ঘরে বসে থাকেননি, তিনি যে সেখানকার বন্যার্ত মানুষের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করেছেনÑ এই বিষয়টি দেশবাসীকে জানালে ভালো হবে।
আমি তখন শফিকুল ইসলাম ইউনুস সম্পাদিত সাপ্তাহিক ‘ঢাকা’ পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক ছিলাম। ওই পত্রিকার পক্ষ থেকে আমি জননেত্রী শেখ হাসিনাকে অনুরোধ করি, তিনি যেন টুঙ্গীপাড়ায় বন্যার্ত মানুষের মধ্যে ত্রাণ বিতরণের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করে একটা লেখা আমাদের পত্রিকার জন্য লেখেন। তিনি হাসলেন। বললেন, আমি কি লেখক নাকি? আমি বললাম, আপনি সুন্দর বক্তৃতা দিতে পারেন, এতো সুন্দর করে গুছিয়ে কথা বলতে পারেনÑ আপনি লিখতে পারবেন না, আমি বিশ্বাস করি না। আমার অনুরোধে শেখ হাসিনা একটি দীর্ঘ লেখা লিখে আমাদের পত্রিকায় পাঠান। লেখাটি তিনি নিউজপ্রিন্টে বলপেন দিয়ে লিখেছিলেন। ঢাকা পত্রিকার পরের সংখ্যাতেই শেখ হাসিনার ওই লেখাটি প্রকাশিত হয়। সম্ভবত ওই লেখাটিই ছিলো তার কোনো পত্রিকার জন্য লেখা প্রথম রচনা। ওই লেখাটির সঙ্গে আমাকেও তিনি একটি ব্যক্তিগত পত্র লিখেছিলেন। তার অত্যন্ত সুলিখিত ওই পত্রটি আমি আমার ‘নির্বাচিত ভাবনা’ গ্রন্থে প্রকাশ করেছি। পত্রটির রচনাকালÑঢাকা, ৯/১০/১৯৮৮। কামাল চৌধুরীর লেখা থেকে দেখছি শেখ হাসিনার প্রথম গ্রন্থ ‘ওরা টোকাই কেন’Ñ আগামী প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত হয় ১৯৮৯ সালে। ওই গ্রন্থে সাপ্তাহিক ঢাকা পত্রিকায় প্রকাশিত তার প্রথম লেখাটিও স্থান পেয়েছে। তবে তো দেশরতœ শেখ হাসিনার লেখক হিসেবে আত্মপ্রকাশের পেছনে সাপ্তাহিক ঢাকা পত্রিকার ঐতিহাসিক ভ‚মিকা স্বীকার্য বলেই মনে করতে পারি।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]