• প্রচ্ছদ » সর্বশেষ » অর্থনীতিতে নোবেল পুরস্কার বলে কিছু নেই,এটা আলফ্রেড নোবেল স্মরণে সুইডিশ কেন্দ্রীয় ব্যাংক পুরস্কার


অর্থনীতিতে নোবেল পুরস্কার বলে কিছু নেই,এটা আলফ্রেড নোবেল স্মরণে সুইডিশ কেন্দ্রীয় ব্যাংক পুরস্কার

আমাদের নতুন সময় : 19/10/2019

শাকিল রিয়াজ, ফেসবুক থেকে : “অর্থনীতিতে নোবেল” বলে আসলে কিছু নেই। আমরা যখন বলি অমুক অর্থনীতিতে নোবেল পেয়েছেন তখন ভুল বলি। পুরস্কারটির অফিসিয়াল নাম “দ্য সুইডিশ রিক্সব্যাংকস প্রাইজ ইন ইকোনোমিক সায়েন্স ইন মেমোরি অব আলফ্রেড নোবেল”। বাংলায় আলফ্রেড নোবেল স্মরণে অর্থনীতি বিজ্ঞানে সুইডিশ কেন্দ্রীয় ব্যাংক পুরস্কার। নিজের নামে পুরস্কার প্রদান সংক্রান্ত যে উইল ১৮৯৫ সালে লিখে গিয়েছিলেন আলফ্রেড নোবেল, সেখানে অর্থনীতির উল্লেখ ছিল না। সুইডেনের জাতীয় ব্যাংকের ৩০০ বছর পূর্তি উপলক্ষে ১৯৬৮ সালে এই পুরস্কারটির প্রবর্তন করেছিল ব্যাংকটি। প্রথমবার এই পুরস্কার দেয়া হয় ১৯৬৯ সালে। অন্যদিকে পদার্থ, রসায়ন, চিকিৎসা, সাহিত্য ও শান্তি – এই পাঁচ ক্যাটাগরিতে নোবেল দেয়া হচ্ছে ১৯০১ সাল থেকে। নোবেল শুধু এই পাঁচ ক্যাটাগরিতে পুরস্কার প্রদানের জন্য উইল করে গিয়েছিলেন।
পরবর্তীতে রিক্সব্যাংকের সঙ্গে নোবেল একাডেমী একটি চুক্তি করে। পুরস্কারটির সঙ্গে “আলফ্রেড নোবেল স্মরণে” কথাটি সংযুক্ত করা হয়। বলা হয়, অক্টোবরের “নোবেল সপ্তাহ”র শেষ পুরস্কার হিসেবে এই পুরস্কারটির প্রাপকের নাম ঘোষণা করা হবে। চুক্তিতে এটাও অন্তর্ভুক্ত ছিল যে, নোবেল কর্তৃপক্ষ নয় বরং পুরস্কারটির টাকা ব্যাংকটিকেই বহন করে যেতে হবে। আর অর্থমূল্য হতে হবে নোবেল পুরস্কারের সমান। এভাবেই সুইডিশ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পুরস্কারটি নোবেলের নামের সঙ্গে যুক্ত হয়। সুইডেনের সরকার, নোবেল কমিটি, মিডিয়া বা অন্য কেউ কখনো এই পুরস্কারটিকে নোবেল পুরস্কার বলে না।
নোবেল পুরস্কার না হলেও এটিকে অর্থবিজ্ঞানের সর্বোচ্চ সম্মানজনক পুরস্কার বলে গণ্য করা হয়। “নোবেল স্মরণে” সংযুক্ত হবার পর অর্থমূল্য বা গুরুত্বের দিক থেকে সমপর্যায়ের হলেও “নোবেল পুরস্কার” বলা বারণ। কেউ বললে সেটা ভুল বলা হবে। অথচ আমরা সবাই এই ভুল করে যাচ্ছি। খেয়াল করে দেখুন, পুরস্কারটির ঘোষণা, প্রেস রিলিজ, ওয়েব সাইট, পাশ্চাত্য মিডিয়া, সনদপত্র বা মেডেলের কোথাও “অর্থনীতিতে নোবেল” কথার উল্লেখ নেই।
এর আগে বাঙালি অর্থনীতিক অমর্ত্য সেন পেয়েছিলেন নোবেল স্মরণে রিক্সব্যাংক পুরস্কার। এবার পেলেন আরেক বাঙালি অভিজিৎ ব্যানার্জী। তিনি পুরস্কারটি তাঁর ফরাসী স্ত্রী এস্তার দুফলোর সঙ্গে ভাগাভাগি করে পেয়েছেন। দুফলোর নাম গত বছরও শর্ট লিস্টে ছিল।
অভিজিৎ-দুফলো দম্পতিকে শ্রদ্ধা ও শুভেচ্ছা।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]