একুশে পদকপ্রাপ্ত শিল্পী কালিদাস কর্মকারের প্রয়াণ

আমাদের নতুন সময় : 19/10/2019

দেবদুলাল মুন্না: আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ও একুশে পদক প্রাপ্ত শিল্পী কালিদাস কর্মকার গতকাল শুক্রবার চিত্রশিল্পী কালিদাস কর্মকার মারা গেছেন। তার মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রী শোক প্রকাশ করেছেন। শুক্রবার দুপুর দেড়টার দিকে কালিদাস কর্মকারকে অচেতন অবস্থায় পাওয়া যায় তার ইস্কাটনের নিজ বাসায়। সেখান থেকে পরিবারের লোকজন তাকে ল্যাব এইড হাসপাতালে নিয়ে এলে বেলা ২টায় তাকে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। গ্যালারি কসমসের নির্বাহী শিল্প ব্যবস্থাপক সৌরভ চৌধুরী ও শিল্পাঙ্গনের রুমি নোমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। শিল্পী কালিদাস কর্মকারের ছোট বোন সুবর্ণরথি কর্মকার বলেন, ‘শিল্পী বেশ কিছুদিন থেকে শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন। এ ছাড়া তার উচ্চ রক্তচাপসহ কিডনি সংক্রান্ত জটিলতাও ছিল।’ গ্যালারি কসমসের নির্বাহী শিল্প ব্যবস্থাপক সৌরভ চৌধুরী বলেন, ‘কালিদাস কর্মকারের মরদেহ বারডেম হাসপাতালের হিমাগারে রাখা হয়েছে। কারণ তার দুই মেয়ে আমেরিকা থাকে। তারা দেশে ফিরলে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’ মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর। তার মৃত্যুতে শিল্প-সংস্কৃতির জগতের সঙ্গে যারা সংশ্লিষ্ঠ তাদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।
নাট্যজন রামেন্দু মজুমদার বলেন ‘ কালিদাস সবসময় চমক দিতে পছন্দ করেন। নানা মাধ্যমে কাজ করেছেন । ক্যানভাসে এক ধরনের রহস্যময়তা সৃষ্টি করার ক্ষমতা তার ছিল। তিনি তার চিত্রকর্মে মানুষের যাত্রাকে গুরুত্ব দেন না। বরং প্রত্যাবর্তনকে গুরুত্ব দিয়েছেন। সেই হিসেবে কালিদাস আবার ফিরে আসবেন। ২০১৬ সালের ১১ জানুয়ারি তার ৭২ তম জন্মদিন উদযাপন করেছেন দেশি বাদ্যযন্ত্রের সুরের সঙ্গে আর বিশাল ক্যানভাসে ৭২ মিনিটে ছবি এঁকে খোলা মঞ্চে দর্শকদের সামনে। কতো স্মৃতি।’ ১৯৪৬ খ্রিস্টাব্দে ব্রিটিশ ভারতের অন্তর্গত ফরিদপুরে তাঁর জন্ম । স্কুল জীবন শেষে ঢাকা ইনস্টিটিউট অব আর্টস থেকে তিনি ১৯৬৩-৬৪ খ্রিস্টাব্দে চিত্রকলায় আনুষ্ঠানিক শিক্ষা লাভ করেন। পরবর্তীকালে কলকাতার গভর্নমেন্ট কলেজ অব ফাইন আর্টস অ্যান্ড ক্রাফট থেকে ১৯৬৯ খ্রিস্টাব্দে প্রথম বিভাগে প্রথম স্থান নিয়ে চারুকলায় স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন। তার সৃষ্টিকর্ম নিয়ে দেশে বিদেশে ৭০টি একক প্রদর্শনী আয়োজিত হয়েছে । সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]