• প্রচ্ছদ » » পিটার হান্ডকে ও ওলগা তুকারচুক নয়, বিশ্ব সাহিত্য সম্পর্কেও অনেক কিছু জানা গেলো


পিটার হান্ডকে ও ওলগা তুকারচুক নয়, বিশ্ব সাহিত্য সম্পর্কেও অনেক কিছু জানা গেলো

আমাদের নতুন সময় : 20/10/2019

মির্জা ইয়াহিয়া

বিদায়ী সপ্তাহটা ছিলো নোবেল পুরস্কারের সপ্তাহ। এই পুরস্কারের খবর আগ্রহ নিয়েই প্রকাশ করে বাংলাদেশের মিডিয়া। এর মানে জনসাধারণেরও আগ্রহ আছে নোবেল নিয়ে। সাহিত্যমহলে অবশ্য সাহিত্যের নোবেল পুরস্কার অনেক বেশি আলোচিত হয়। পুরস্কার প্রদানের পরের শুক্রবার আমাদের দেশের জাতীয় দৈনিকের সাহিত্য পাতাতে নোবেলজয়ী সাহিত্যিকদের কর্ম ও জীবনী নিয়ে অনেক লেখা থাকে। এবারও নোবেলজয়ী পিটার হান্ডকে ও ওলগা তুকারচুক আজকের সাহিত্য পাতাগুলোয় অনেক বেশি ঠাঁই পেয়েছে। এর মধ্যে অন্যতম শীর্ষ দুটি দৈনিকে লিখেছেন মাসরুর আরেফিন। সম্প্রতি ফেসবুকেও দীর্ঘ একটি লেখা প্রকাশ করেছেন। তার লেখালেখির একজন নিবিড় পাঠক হিসেবে এগুলো নজরে এসেছে এবং পড়াও হয়েছে। তিনি দেশের অন্যতম একজন সেরা সাহিত্যিক, সেরা অনুবাদক। সমকালীন বিশ্ব সাহিত্য পাঠে তিনি যে কতোটা এগিয়ে। সম্প্রতি লেখা দুটো পড়লে সহজেই জানা যায়। তবে মাসরুর আরেফিন যে হুজুগে মেতে নোবেলজয়ীদের নিয়ে লেখেন না, তিনি শুরুতেই বলেছেন। যাদের সম্পর্কে আগে থেকেই জানেন, যাদের বই পড়েছেন তাদের নিয়েই শুধু লিখে থাকেন। তাই প্রতি বছর নোবেলজয়ীদের নিয়ে তার লেখা দেখা যায় না। অনেকের মতো মৌসুম বুঝে শুধু গুগল করে তথ্য জেনে লিখতে রাজি নন।পিটার হান্ডকে ও ওলগা তুকারচুকের লেখালেখি সম্পর্কে বলতে গিয়ে বিশ্ব সাহিত্যের অনেক ব্যক্তিত্ব, অনেক সাহিত্যকর্মের অবতারণা করেছেন মাসরুর আরেফিন। যা সত্যিই অসাধারণ। তিনি একেবারে যেন সাগরের গভীরতল থেকে ঝিনুক কুড়িয়ে মুক্তা উপহার দেন পাঠকদের। তার সময়োপযোগী লেখা দুটি পড়ে পিটার হান্ডকে ও ওলগা তুকারচুক শুধু নয়, বিশ্ব সাহিত্য সম্পর্কেও অনেক কিছু জানা গেলো। লেখক মাসরুর আরেফিনকে তাই আমার পক্ষ থেকে ধন্যবাদ। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]