• প্রচ্ছদ » » আজ শিল্প বা জ্ঞান দুটোই ছুঁড়ে ফেলে দিয়ে আত্মহত্যা বা পালিয়ে যাওয়ার পর্যায়ে রাষ্ট্র আমাদের দাঁড় করিয়েছে


আজ শিল্প বা জ্ঞান দুটোই ছুঁড়ে ফেলে দিয়ে আত্মহত্যা বা পালিয়ে যাওয়ার পর্যায়ে রাষ্ট্র আমাদের দাঁড় করিয়েছে

আমাদের নতুন সময় : 21/10/2019

রাখাল রাহা

ধরুন আপনি লিখলেন, শিবির রগ কেটেছে, ছাত্রদলও খুনখারাবি করেছে। তাতে কি ছাত্রলীগের গুÐামী আর খুনখারাবির আগ্রহ হ্রাস পায়? কিংবা যারা এর শিকার হচ্ছে তাদের কষ্ট কমে যায়? ধরুন আপনি লিখলেন, অমুক হত্যাকাÐের সময় তো কাউকে এতো কিছু করতে দেখিনি। তাতে কি এখন যে এতো কিছু করা হচ্ছে সেকারণে আরও হত্যাকাÐের সম্ভাবনা বেড়ে যাচ্ছে? ধরুন আপনি লিখলেন, মানুষ যা করে তার শ্রেণির জন্য করে, একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র মরলে আমরা যতোখানি করি, একটা রিকশাওয়ালা মরলে তা করি না। তাতে কি রিকশাওয়ালার মৃত্যুর ঝুঁকি কমে যায়? ধরুন আপনি লিখলেন, মালিকেরা শ্রমিকদের ঠকাবে এটাই পুঁজিবাদের নিয়ম। তাতে কি ন্যায্য মজুরির দাবিতে রাস্তায় আন্দোলন করে যে শ্রমিক, তাদের কোনো লাভ হয়? ধরুন আপনি লিখলেন, রাষ্ট্র তৈরিই হয়েছে বলপ্রয়োগ করার জন্য। তাতে কি রাষ্ট্রের বলপ্রয়োগের ক্ষমতা কমে যায়? কিংবা যারা রাষ্ট্রের এই বলপ্রয়োগের ক্ষমতাকে সীমাবদ্ধ করার আন্দোলন করছে, তারা একটুও লাভবান হয়? ধরুন আপনি লিখলেন, মানুষের মধ্যে নৈতিক চেতনার অবক্ষয় ঘটে গেছে। তাতে কি দুর্বৃত্ত আর বর্বর শাসক নৈতিক হওয়ার জন্য উঠেপড়ে লাগে? তাদের বর্বরতা পয়দা করার মেশিনগুলো সব পাল্টিয়ে ফেলে? ধরুন আপনি লিখলেন, যখন কোনো বিকল্পই নেই, তখন যেটা আছে সেটাই একমাত্র বিকল্প। তাতে কি সেই অবিকল্পের দানবীয় বর্বরতা পরিচালনার আগ্রহ বা ক্ষমতা একটুও কমে? যদি না হয় তাহলে আপনি কবি, লেখক, চিন্তক, শিল্পী, শিক্ষক, সাংবাদিক যেই হোন, এগুলো করে আপনি প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে বর্বরতার পক্ষে, দানবের পক্ষে কাজ করছেন। আজ বাংলাদেশ এমন এক জায়গায় এসে দাঁড়িয়েছে, যেখানে শিল্পের জন্য শিল্প, নাকি জীবনের জন্য শিল্প, জ্ঞানের জন্য জ্ঞান, নাকি সমাজের জন্য জ্ঞানÑএই বিতর্কের দিন শেষ হয়ে গেছে। আজ শিল্প বা জ্ঞান দুটোই ছুঁড়ে ফেলে দিয়ে আত্মহত্যা বা পালিয়ে যাওয়ার পর্যায়ে রাষ্ট্র আমাদের দাঁড় করিয়েছে। সুতরাং হয় মরুন অথবা পালান, না হয় ঘুরে দাঁড়ান। মাঝে কোনো রাস্তা নেই। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]