• প্রচ্ছদ » প্রথম পাতা » নিয়ন্ত্রণ রেখায় যুদ্ধবিরতি লংঘনের অভিযোগ ভারত ও পাকিস্তানের, দুইপক্ষে প্রচ- গোলাগুলি, নিহত ১০


নিয়ন্ত্রণ রেখায় যুদ্ধবিরতি লংঘনের অভিযোগ ভারত ও পাকিস্তানের, দুইপক্ষে প্রচ- গোলাগুলি, নিহত ১০

আমাদের নতুন সময় : 21/10/2019

আসিফুজ্জামান পৃথিল : ভারতীয় কর্তৃপক্ষের দাবি, যুদ্ধবিরতি লংঘন করে কুপওয়ারার টাঙধার সেক্টরে প্রথমে হামলা চালায় পাকিস্তান। এ হামলায় ২ সেনাসদস্য ও ১ বেসামরিক নাগরিকের মৃত্যুর কথা জানিয়েছে ভারতীয় গণমাধ্যম। তারা জানিয়েছে, জবাবে পাকিস্তান শাসিত কাশ্মীরে কমপক্ষে ৪টি সামরিক স্থাপনায় গোলাবর্ষণ করে ভারত। পাকিস্তানি গণমাধ্যমের দাবি, এই ঘটনায় কমপক্ষে একজন সেনাসদস্য ও ৬ জন বেসামরিক নাগরিক মারা গেছেন। ডন, এনডিটিভি, ইয়ন নিউজ, পিটিআই।
এই ৪ সামরিক স্থাপনাকে জঙ্গী শিবির বলে দাবি করছে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ। তাদের দাবি, এগুলি থেকে ভারতে জঙ্গি অনুপ্রবেশ করানো হত। উদ্দেশ্য জম্মু ও কাশ্মীরের পরিস্থিতির অবনতি ঘটানো। গত অগাস্টে জম্মু ও কাশ্মীরের ‘স্পেশাল স্ট্যাটাস’ তুলে নেওয়ার পর থেকেই এই প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে পাকিস্তান বলে অভিযোগ করেছে ভারত। সেপ্টেম্বর পর্যন্ত পাকিস্তান ২,০৫০ বার যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করেছে। এর ফলে ২১ জনের মৃত্যু হয়েছে। গত মাসে এ তথ্য জানায় ভারতের কেন্দ্র সরকার।
এদিকে পাকিস্তানের দাবি তাদের পাল্টা জবাবে ৯ ভারতীয় সেনাসদস্য মারা গেছে। আর ভারতের দাবি কোনো পাকিস্তানি বেসামরিক নাগরিক নয়, তাদের অভিযানে নিহত হয়েছে ৪ থেকে ৫জন পাকিস্তানি সেনার।
পাকিস্তান আইএসপিআরের মহাপরিচালক, মেজর জেনারেল আসিফ গফুর টুইটারে লিখেছেন, ‘ভারতীয় সেনারা বিনা প্ররোচনায় অস্ত্রবিরতি লংঘন করে জুরা, শাহকোট এবং নওসেরা সেক্টরে সাধারণ নাগরিকদের লক্ষ্যবস্তু বানিয়েছে। পাকিস্তানি সেনারা এর দাঁতভাঙা জবাব দিয়েছে। নয় জন ভারতীয় সেনার ম্ত্যৃু হয়েছে। দুটি বাঙ্কার গুঁড়িয়ে দেয়া হয়েছে। গোলাগুলিতে এক সেনা সদস্য, ৬ গ্রামবাসীর মৃত্যু হয়েছে, দুই জওয়ান এবং আরও পাঁচ গ্রামবাসী আহত হয়েছেন।’
পরে আরও একটি টুইট বার্তায় জেনারেল গফুর লেখেন, ‘ভারতীয় সেনাবাহিনীকে মৃতদেহ সংঘর্ষ ও আহতদের সরিয়ে নিতে ব্যাপক বেগ পেতে হচ্ছে। ভারতীয় সেনাবাহিনী সাদা পতাকা উড়িয়ে দিয়েছে। যুদ্ধবিরতি ভাঙার আগেই তাদের এটি ভেবে নেয়া উচিৎ ছিলো। তারা সামরিক নিয়ম ভেঙে নিরাপরাধ বেসামরিক মানুষ খুন করেছে।
পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত আজাদ জম্মু ও কাশ্মীরের প্রধানমন্ত্রী রাজা মোহাম্মদ ফারুক হায়দার খানের দাবি, ভারতের সেনাবাহিনী পাগল হয়ে গেছে। এক টুইট বার্তায় তিনি লেখেন, ‘রাতভর ভারী গোলাবর্ষণে মুজাফফরাবাদ ও নিলাম জেলায় ৬ বেসামরিক ব্যক্তি নিহত ও ৮জন আহত হয়েছে। এটা আমাদের স্বাধীকারের উপর আঘাত। কাশ্মীরের বিষয়ে পুরো পৃথিবীর আর চুপ থাকা উচিৎ নয়। সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]