ক্রিকেটকে ধ্বংস করতেই এ চক্রান্ত

আমাদের নতুন সময় : 22/10/2019

এল আর বাদল : বিশেষ মহলের চক্রান্তে ক্রিকেটকে ধ্বংস করতেই ক্রিকেটাররা ধর্মঘট ডেকেছেন বলে মনে করেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। তিনি বলেন, যারা ক্রিকেটারদের ইন্ধন দিচ্ছে তাদেরকে সনাক্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ চক্রান্তে ক্রিকেটারদের দু’একজন জড়িত রয়েছে। সাকিব, তামিমরা দাবি-দাওয়া নিয়ে সরাসরি কিছু না জানালেও আলোচনার দরজা খোলা রয়েছে এবং ভারত সফরও সময়মতো হবে বলেই আশাবাদ ব্যক্ত করেন বিসিবি সভাপতি।

গত সোমবার ক্রিকেটাররা ১১ দফা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে সবধরনের ক্রিকেট বয়কট করলে গতকালই বোর্ড পরিচালকদের নিয়ে আলোচনায় বসেন পাপন। পরে বিকেলে দেড় ঘন্টার সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ক্রিকেটাররা যদি আগামীকাল বৃহস্পতিবার থেকে নির্ধারিত জাতীয় লিগের তৃতীয় রাউন্ডে না খেলে এবং ভারত সফরের ক্যাম্পে যোগ না দেয়, তাহলেও বিসিবির কিছু করণীয় নেই। এ ক্ষেত্রে ভারত সফর নিয়ে বড় ধরনের অনিশ্চয়তা থেকে যাবে। মনে করতে হবে ক্রিকেটকে ধ্বংস করতেই এ ধর্মঘট। তবে ক্রিকেটারদের ১১ দফা দাবির সবগুলো মেনে নেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে বলেও জানান পাপন।

বিসিবি সভাপতি দীর্ঘ বক্তব্যের শুরুতেই বলেন, ক্রিকেটারদের ধর্মঘট আমার বিশ্বাসই হচ্ছে না, আমাদের খেলোয়াড়দের কাছ থেকে এমন কিছু হতে পারে। দাবি ওরা জানাতেই পারে- খুবই স্বাভাবিক। কিন্তু সেটির জন্য তারা ধর্মঘটে গেছে, এটা দুঃখজনক। ওদের সঙ্গে আমার ব্যক্তিগত সম্পর্ক আছে। আমার চেয়ে বেশি মনে হয় না কেউ যোগাযোগ রাখে। ব্যক্তিগত সম্পর্ক থেকে শুরু করে সবকিছুতে কথা হয়। আমি তো বহুদূর, প্রধানমন্ত্রীর কাছেও ওদের অ্যাকসেস আছে। বলার কিছু থাকলে ওরা বলতে পারতো।
দাবি পূরণ করতে ওরা তো চাইলেই পাবে, আসেনি কেন? আমাদের কাছে চাচ্ছে না কেন? ফোনও ধরছে না। সবকিছুর পেছনে কারণ আছে। আমাদের কাছে না এসে গণমাধ্যমে বলেছে, সেটির পেছনে বিশেষ কারণ আছে। আমাদের সুযোগ না দিয়ে মিডিয়ায় গিয়েছে। এটি বিশেষ মহলের চক্রান্তের একটি পরিকল্পনার অংশ।
নাম প্রকাশ না করে নাজমুল হাসান পাপন বলেন, একজন লোকই আছেন, যিনি বারবার এসব করছেন। বাংলাদেশের ক্রিকেটকে অস্থিতিশীল করার চক্রান্ত চলছে। এ ষড়যন্ত্রের কথা সরকার থেকে শুরু করে সবাই জানে। সব ক্রিকেটার এটির সঙ্গে জেনেশুনে জড়িয়েছেন বলে মনে হয় না। এক-দু’জন জানতে পারে। এ মুহূর্তে বের করা দরকার, কারা এই কাজ করছে। কিছুদিনের সময় চাচ্ছি আপনাদের কাছে। সব বের করে ফেলবো।
তিনি বলেন, বিসিবির পরিচালক লোকমান হোসেন ভূঁইয়া ক্যাসিনোকা-ে গ্রেফতারের পরই শুরু হয় ষড়যন্ত্র। একটি গ্রুপ আমাকে এবং বিসিবিকে জড়িয়ে ফেসবুকে নানা প্রপাগা-া ছড়াচ্ছে। এরপরই শুরু হলো ক্রিকেটারদের ধর্মঘট। সবকিছুই যেনো একই সুতোয় গাঁথা। পাপন বলেন, অনেক দেনদরবার করে ভারতের বিরুদ্ধে পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলার সুযোগ তৈরি করেছি। এই সময়ে খেলোয়াড়দের ধর্মঘটে ক্রিকেট বিশ্বে কিছুটা হলেও সম্মানহানি হয়েছে। আইসিসি থেকেও আমাকে ফোন করা হয়েছে। খেলোয়াড়রা যদি ভারত সফরে না যায়, আমাদের কিছু করার নেই। সম্পাদনা : রমাপ্রসাদ বাবু




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]