খাদ্যে ভেজাল রোধে আইনের প্রয়োগ জরুরি, সাক্ষাৎকারে সারওয়ার জাহান

আমাদের নতুন সময় : 22/10/2019


জান্নাতুল পান্না : খাদ্যে ভেজালসহ ফলমূল নিরাপদ রাখতে আইনের প্রয়োগ বাড়ানো ও কিছু আইন সংশোধন জরুরি বলে মনে করেন খাদ্য কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান সৈয়দা সারওয়ার জাহান। তিনি বলেন, কিভাবে আইনের প্রয়োগ বাড়ানো যায়, তা নিয়ে আমরা সিটি করপোরেশনের সঙ্গে বৈঠক করেছি। কিছু কিছু আইনের সংশোধনও প্রয়োজন। তাহলে ছোট ব্যবসায়ীদের ওপর আইনের প্রয়োগ করা যাবে। একান্ত সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান সৈয়দা সারওয়ার জাহান।

তিনি আরো জানান, সিটি করপোরেশনের দায়িত্বে থাকা মার্কেট, হোটেল রেস্টুরেন্টসহ এসব জায়গাতে খাদ্যে ভেজাল ও পরিচ্ছন্ন খাবার দিচ্ছে কি না, তা তদারকি করার। কিন্তু তারা তা পালন করছে না। তাদের সঙ্গে এ জন্যে বৈঠক করছি। খাদ্য অধিদপ্তরকে তাদের সঙ্গে সমন্বয় করার চেষ্টা করছি। আমাদের প্রধানমন্ত্রী যেভাবে চান সমন্বয়হীনতার জন্যেই সে কাজ করতে পারি না।
সারওয়ার জাহান জানান, সিটি করপোরেশনকে তিনি বেশ কিছু বিষয়ে নজরদারি করতে বলেছেন। যেমন, ফলমূল নিরাপদ রাখা, হাতে মাস্ক পরা, মাথায় ক্যাপ পড়া, হাত বার বার লিকুইট সাবান দিয়ে ধোয়া, রং যাতে ব্যবহার করতে না পারে তার ব্যবস্থা করা। মাছি, টিকটিকি যাতে না বসে তা দেখা। খাবারে ভাইরাস বা ব্যাকটেরিয়া যাতে না পড়ে তাও নজরে রাখা। সিটি করপোরেশন যদি এসবের দেখভাল না করে, তবে তাদের বিরুদ্ধে নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান হিসেবে আমি তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবো।

খাদ্যকে নিরাপদ রাখতে যা যা করা দরকার এখান থেকে তাই করা হবে বলে জানিয়ে সারওয়ার জাহান বলেন, এ আইনটা ২০১৩ সালে করা হয়েছে। তাতে অপরাধীর সাজা সর্বোচ্চ ৫ বছর ও সর্বনি¤œ ১ বছর করা হয়েছে। এক্ষেত্রে মুদি দোকান থেকে শুরু করে বড় বড় খাদ্য দোনগুলোতে আইন প্রয়োগ করাটা কঠিন। তাই সুনির্দিষ্টভাবে আইনের কিছুটা সংশোধন হওয়া জরুরি। আইনে সাজার পরিমাণ কমিয়ে দিলে যারা ছোট ব্যবসা করেন তাদের জন্যেও সাজা দেওয়া সম্ভব হবে।
অন্য এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এটি একটি নতুন প্রতিষ্ঠান। এখানে লোকবলের অনেক ঘাটতি রয়েছে। তাই কাজ করতে বেশ দেরি হচ্ছে। তাছাড়া জেলা উপজেলা পর্যায়ে কোনো লোকবল নেই। এসব সঙ্কটের কারণে কাজের ক্ষেত্রে বেশ অসুবিধা হয়। সম্পাদনা : রমাপ্রসাদ বাবু




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]