• প্রচ্ছদ » শেষ পাতা » প্রথমবারের মতো ধনী সংখ্যার দিক থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে ছাড়িয়ে গেলো চীন ক্রেডিট সুইসের অ্যানুয়াল ওয়েলথ সার্ভে


প্রথমবারের মতো ধনী সংখ্যার দিক থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে ছাড়িয়ে গেলো চীন ক্রেডিট সুইসের অ্যানুয়াল ওয়েলথ সার্ভে

আমাদের নতুন সময় : 22/10/2019

 

নূর মাজিদ : যুক্তরাষ্ট্র এবং চীন উভয়দেশেই মিলিওনিয়ার বা ১০ লাখ ডলার বা ততোধিক মূল্যের স¤পদের অধিকারীদের সংখ্যা বেড়েছে। কিন্তু, এই ধরনের ধনীর সংখ্যার দিক থেকে এখন মার্কিনীদের পেছনে ফেলে এগিয়ে গেছেন চীনা নাগরিকরা। এই চমকপ্রদ তথ্য দিয়েছে গতকাল সুইজারল্যান্ডের কেন্দ্রীয় ব্যাংকিং ব্যবস্থা ক্রেডিট সুইস প্রকাশিত এক স¤পদ জরিপ। খবর : রয়টার্স।
শুধু মিলিওনিয়ার নয়, বরং সার্বিকভাবে স্বচ্ছল চীনা নাগরিকদের সংখ্যাও বেড়েছে যুক্তরাষ্ট্রের তুলনায়। ক্রেডিট সুইসের বার্ষিক স¤পদ জরিপটির ফলাফলে দেখা যাচ্ছে, বর্তমানে ১০ কোটি চীনা নাগরিক বিশ্বের শীর্ষ ১০ শতাংশ স¤পদশালীর পর্যায়ভুক্ত। মাকির্নিদের ক্ষেত্রে এর পরিমাণ ৯ কোটি ৯৯ লাখ।
বিষয়টির ব্যাখ্যা দেন ক্রেডিট সুইসের প্রধান অর্থনৈতিক গবেষণা কর্মকর্তা ন্যানেত হেকলার ফায়েদ হার্বে। তার মতে, গত ১২ মাস ধরে যুক্তরাষ্ট্র এবং চীনের মাঝে যে বাণিজ্য সংঘাত চলছে তার মাঝেও উভয় দেশ স¤পদ তৈরিতে বেশ ভালো ফল লাভ করে। এসময়, যুক্তরাষ্ট্র বিশ্ব অর্থনীতিতে যুক্ত করেছে ৩ লাখ ৮০ হাজার কোটি ডলারের স¤পদমূল্য, এদিক থেকে চীনের অবদান ১ লাখ ৯০ হাজার কোটি ডলার। এই সময়ে বৈশ্বিক মিলিওন ডলার স¤পদমূল্যের ব্যক্তিদের সংখ্যা পূর্বের তুলনায় ১১ লাখ বেড়ে ৪ কোটি ৬৮ লাখে উন্নীত হয়। এসব ধনীদের স¤পদের সামষ্টিক আর্থিকমূল্য ১৫৮ দশমিক ৩ লাখ কোটি ডলার বা সমগ্র বিশ্বের মোট স¤পদের ৪৪ শতাংশ।
নতুন মিলিওনিয়ারদের অর্ধেকের বেশি জন্ম নিয়েছে মার্কিন অর্থনীতিতে। নতুন মার্কিন মিলিওনিয়ারদের সংখ্যা ৬ লাখ ৭৫ হাজার জন। চীন এগিয়ে গেছে পূর্বের ধনীদের অবস্থান ধরে রাখাসহ নতুনদের অন্তর্ভুক্তির মাধ্যমে। সেই তুলনায় গড় স¤পদ কমেছে অস্ট্রেলিয়ার ধনীদের। এর পেছনে অবশ্য দায়ী মার্কিন মুদ্রার বিপরীতে অস্ট্রেলিয় ডলারের দরপতন। গত এক বছরে মাত্র ১ লাখ ২৪ হাজার অস্ট্রেলীয় মিলিওনিয়ার তালিকা থেকে বাদ পড়েছেন। একইসময় ব্রিটেন এবং তুরস্কে দুর্বল মুদ্রামানের কারণে যথাক্রমে ২৭ এবং ২৪ হাজার ধনী বাদ পড়েছেন।
প্রতিবেদনটি আরো জানাচ্ছে, বর্তমানে ৫৫ হাজার ৯২০ পূর্ণবয়স্ক মিলিওনিয়ার গড়ে ১০ কোটি ডলারের বেশি স¤পদের মালিক। এর মাঝে ৫০ কোটি ডলারের বেশি স¤পদ রয়েছে ৪ হাজার ৮৩০ জনের।
বৈশ্বিক স¤পদ প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাসও দিয়েছে ক্রেডিট সুইস। তাদের অনুমান, গত এক বছরে মোট স¤পদমূল্য ২ দশমিক ৬ শতাংশ বেড়েছে। তবে ২০২৪ সাল নাগাদ তা ২৭ শতাংশ বেড়ে ৪৫৯ লাখ কোটিতে উন্নীত হবে। একইসময়, বৈশ্বিক ধনীর সংখ্যা বেড়ে ৬ কোটি ৩০ লাখে উন্নীত হবে। সেই তুলনায় গোটা বিশ্বের প্রান্তিক ও নিম্ন-মধ্য আয়ের মানুষ মাত্র ১৮ শতাংশ বৈশ্বিক স¤পদের প্রতিনিধিত্ব করবেন। তবে ২০০০ সালের তুলনায় পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হয়েছে। সেবছর দরিদ্র ও মধ্য আয়ের জনগোষ্ঠী মাত্র ১১ শতাংশ স¤পদের মালিক ছিলেন।
এই প্রবণতার কারণেই ধনী ও দরিদ্রদের মাঝে স¤পদ ব্যবধান কমার দাবি করা সঙ্গত নয়, জানিয়েছে ক্রেডিট সুইস। বরং বর্তমান প্রবণতার প্রেক্ষিতে নিকট ভবিষ্যতে এই ব্যবধান ২০১৬ সালের মতো বাড়ার সম্ভাবনা আছে। সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]