মাদারীপুরে কাঁশবনে বিক্রি হচ্ছে পদ্মার ইলিশ

আমাদের নতুন সময় : 22/10/2019

 

ইমতিয়াজ আহমেদ : ইলিশ বিক্রির হাট বসেছে শিবচরের পদ্মার চরাঞ্চলে। বিশেষ করে মাদবরেরচর, বন্দোরখোলা ও চরজানাজাত ইউনিয়নের দূর্গম চরাঞ্চলে নদীর পাড়ে বসেই বিক্রি হচ্ছে এসব ইলিশ। প্রশাসনের পক্ষ থেকে অভিযান চালানো হলেও তা অপ্রতুল বলে জনসাধারনের ধারনা। সরকারি নিষেধাজ্ঞার মাঝে বিভিন্ন কৌশলে ইলিশ নিধন চলছে মাদারীপুরের শিবচর, শরীয়তপুরের জাজিরা, মুন্সীগঞ্জের লৌহজং, ঢাকার দোহার এবং ফরিদপুরের সদরপুর অংশের পদ্মা নদীতে।
আর এই মাছ নদীর চরে রেখেই মুঠোফোনের মাধ্যমে ও নদী পাড়ের প্রত্যন্ত বাজার বিক্রি হচ্ছে। এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে কিছু অসাধু ব্যক্তি ও মৎস্য ব্যবসায়ীরা নদীর পাড়ে গিয়ে বস্তায় বস্তায় কম দামে কিনে আনছেন মা ইলিশ।
জানা যায়, নিষেধাজ্ঞা বাস্তবায়নে গত কয়েকদিন গভীর রাতে জেলার শিবচরের কাঁঠালবাড়ি ঘাটে হাজির হন ভ্রাম্যমাণ আদালত। রাতের নীরবতা ভেঙে দুটি স্পিডবোট ও ট্রলারযোগে অভিযান পরিচালনাকারীরা হানা দিচ্ছেন পদ্মায়। ধরা পড়ছে মাছবোঝাই একের পর এক নৌকা। জেলেদের প্রতিটি জালেই ছিল মা ও জাটকা ইলিশের প্রাধান্য। এ সময় বেশকিছু নৌকা নদীতে জাল ফেলেই চরে পালিয়ে যায়।
এ পর্যন্ত প্রায় একশ জেলেকে দেয়া হয়েছে নানা মেয়াদে সাজা। আগুনে পুড়িয়ে ধ্বংস করা হয় জাল। তবুও থামছে না ইলিশ শিকার।
জিজ্ঞাসাবাদে ধরাপাড়া জেলেরা জানান, নিষেধাজ্ঞার এই সময়ে দিনে কড়াকড়ি থাকায় সন্ধ্যার পর থেকে ভোর রাত পর্যন্ত ইলিশ ধরছেন অনেকে। আর তা বিক্রি হচ্ছে নদীর চরে কাঁশবনে রেখেই। মুঠোফোনের মাধ্যমে ক্রেতাকে ডেকে এনে বা নদী পাড়ের বাজারে।

মাদারীপুর জেলা মৎস্য কর্মকর্তা রিপন কান্তি ঘোষ জানান, ইলিশ নিধনে সরকারি নিষেধজ্ঞা বাস্তবায়নে প্রায় প্রতিদিনই ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে জেলেদের সাজা প্রদান এবং মাছ ধরার জালও জব্দ করা হচ্ছে। এ পর্যন্ত ভ্রাম্যমাণ আদালত মাদারীপুর জেলায় মোট ১৬৭ জন জেলেকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদ- ও জরিমানা করেছেন। তবুও কোনোভাবেই জেলেদের মাছ ধরা থেকে বিরত রাখা যাচ্ছে না।
শিবচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আসাদুজ্জামান জানান, আমরা প্রতিনিয়ত অভিযান চালাচ্ছি। জেল-জরিমানা করা হচ্ছে জেলেদের। সম্পাদনা : মুরাদ হাসান, ওমর ফারুক




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]