আজ জাতিসংঘ দিবস, জাতিসংঘ ক্রমশ বিতর্কে জড়িয়ে পড়ছে

আমাদের নতুন সময় : 24/10/2019

দেবদুলাল মুন্না : জাতিসংঘ দিবস আজ। ১৯৪৫ সালের এই দিনে বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে আনুষ্ঠানিকভাবে আত্মপ্রকাশ করে জাতিসংঘ। এ দিবস উপলক্ষে তাদের ওয়েব সাইটে এক ভিডিও বার্তায় জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস বলেন, বৈষম্য ও বাধা সত্ত্বেও আমরা হাল ছেড়ে দেই না। কারণ আমরা বৈষম্য হ্রাস করতে জানি। আমাদের আশা, বিশ্বজুড়ে মানুষের সুযোগ এবং শান্তি বৃদ্ধি পাবে। জাতিসংঘ মহাসচিব জলবায়ু কর্মসূচী বাস্তবায়নের জন্য সংগঠনের দৃঢতা, মানবাধিকারের জন্য সংগ্রাম এবং শান্তি উপার্জনের জন্য পদক্ষেপের ক্ষেত্রে দৃঢ সংকল্পের কথা ব্যক্ত করেন। তিনি বলেন, জাতিসংঘ দিবসে আমাদের অঙ্গীকার হলো ভাঙা বিশ্বাস পুনণির্মাণ করা, আমাদের গ্রহ নিরাপদ করা।
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলাকালে বিশ্বের শীর্ষ ক্ষমতাধর দেশগুলোর প্রায় চার বছরের চেষ্টা ও ধারাবাহিক আলোচনার পর ১৯৪৫ সালের এই দিনে প্রাথমিকভাবে ৪৬টি সদস্য দেশ জাতিসংঘ সনদকে অনুসমর্থন দেয়। ১৯৪৭ সালের জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে ২৪ অক্টোবরকে জাতিসংঘ দিবস হিসেবে ঘোষণা দেওয়া হয়। ১৯৭১ সালে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদ জাতিসংঘের সদস্যভূক্ত দেশসমূহে দিবসটিকে ছুটির দিন হিসেবে পালনের জন্য সুপারিশ করে। জাতিসংঘের ভুমিকা আসলে কতোটুকু কার্যকর এ প্রশ্ন গতবছর তুলেছিলেন মার্কিন চিন্তাবিদ নোম চমস্কি। তিনি গতবছর এমআইটি’র সেমিনার হলে বক্তৃতায় বলেছিলেন, ‘জাতিসংঘ বিশ্বযুদ্ধের পর যে প্রেক্ষিতে গঠিত হয়েছিল সেটি ঠিক ছিল। কিন্তু যতোই সময় গড়িয়েছে দেখা যাচ্ছে জাতিসংঘ ক্ষমতাধর কয়েকটি দেশের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত এবং তাদেরই স্বার্থ রক্ষা করে। বিশ্বব্যাপী তাদের বিবেচনা একই রকম থাকে না সব রাষ্ট্রের প্রতি।’
তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান গতকাল আলজাজিরাকে বলেন, জাতিসংঘকে ১৯৪ দেশের প্রতিনিধিত্ব করতে হবে, পাঁচ মোড়ল রাষ্ট্রের নয়।
তিনি অভিযোগ করেন, এ মুহুর্তের অধিক গুরুত্বপূর্র্ণ ইস্যু নিয়ে না ভেবে জাতিসংঘ মাত্র পাঁচটি দেশের (যুক্তরাষ্ট্র, চীন, রাশিয়া, যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্স) স্বার্থ নিয়ে ভাবছে, যাদেরই শুধু ভেটো (আমি মানি না) দেয়ার অধিকার আছে। পাঁচ বিশ্বশক্তির স্বার্থবাদী সংগঠন হিসেবে জাতিসংঘ ‘ব্যর্থ’ হয়ে যাওয়ার ঝুঁকিতে আছে বলে সতর্ক করেন এরদোয়ান। তিনি বলেন, এটিকে বিশেষ করে নিরাপত্তা পরিষদকে নতুনভাবে পুনর্গঠন ছাড়া এর থেকে উত্তরণ হওয়ার কোনো উপায় নাই।
অধ্যাপক তারেক শামসুর রেহমান গতকাল বলেন, ‘জাতিসংঘ যখন তার ৭৪ বছর পূর্তি পালন করছে তখন প্রশ্ন উঠতে পারে জাতিসংঘ কি আরো ৫০ বছর টিকে থাকতে পারবে? কারণ জাতিসংঘ বারবার বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠায় বিতর্কিত হচ্ছে। জাতিসংঘের অনেক ভাল ভুমিকা যেমন রয়েছে আবার হাজার হাজার সিরীয় ও ইরাকি শরণার্থী যখন ইউরোপে প্রবেশ করে এক অমানবিক পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে, জাতিসংঘ এদের দেশত্যাগ ঠেকাতে পারেনি। আফগানিস্তানে মার্কিন হামলা ঠেকাতে পারেনি।’ সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]