• প্রচ্ছদ » » দাম্ভিকতা পরিহার করে খেলোয়াড়দের সঙ্গে সমঝোতা করাই সময়ের দাবি


দাম্ভিকতা পরিহার করে খেলোয়াড়দের সঙ্গে সমঝোতা করাই সময়ের দাবি

আমাদের নতুন সময় : 24/10/2019

আবদুল হাই কামরুল

খবরের অন্তরালে খবর। বিসিবি সভাপতি পাপন। কোনো খেলোয়াড় হয়নি তার আপন। সীমাহীন অভিযোগ বিসিবি সভাপতির বিরুদ্ধে, ষড়যন্ত্রের মধ্যদিয়ে বিসিবি সভাপতি হয়েছেন, এর পেছনে অনেক বাস্তব তথ্য রয়েছে। খেলোয়াড়দের এক ভুল। বিসিবি সভাপতির চরম ভুল। বিনয়ের সঙ্গে দুটো কথা না বললেই নয়। খেলোয়াড় ভাইয়েরা তাদের দাবিগুলো উত্থাপন করে বিসিবিকে মেনে নেয়ার জন্য দু’একদিনের সময় না দিয়ে সরাসরি ধর্মঘটে না গেলে আমাদের ভাবমূর্তি অক্ষুণœ থাকতো। তবে সব মহল মনে করেন ক্রিকেটারদের দাবিগুলো শতভাগ যুক্তিযুক্ত। সম্প্রতি সাংবাদিক সম্মেলন ডেকে বিসিবি সভাপতির বক্তব্য শুনে আমি বিস্মিত হয়েছি, খেলোয়াড়দের তুচ্ছতাচ্ছিল্য, তার শারীরিক ভাষা অপ্রাসঙ্গিক কথাবার্তা একেবারেই আক্রমণাত্মক ছিলো, এখানে অভিভাবকের ভ‚মিকা না রেখে শাসকগোষ্ঠীর মতো দাম্ভিকতা নিয়ে কথা বলে অদক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন। হয়তো পাপন সাহেব ভুলে গেছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও জিম্বাবুয়ের জাতীয় দল শাসকগোষ্ঠীর আক্রমণের শিকার হওয়ার পর এর পরিণতি কতোটা ভয়াবহ হয়েছে তা কোনোমতেই উক্ত দেশের জাতির কাম্য ছিলো না। সম্প্রতি এক টুইট বার্তায় প্রাক্তন বিসিবি সভাপতি সাবের হোসেন চৌধুরী বলেছিলেন, ক্রিকেট বোর্ড যেন খেলোয়াড়দের দাবিগুলোকে ষড়যন্ত্র হিসেবে না দেখে অতি দ্রæত দাবিগুলো মেনে নেয়া হয়। সাবের হোসেন চৌধুরীর আশঙ্কা আজ বাস্তবে ষড়যন্ত্র হিসেবে ঘোষণা দিয়ে পাপন সাহেবের অযোগ্যতার শতভাগ প্রমাণ নিজেই দিলেন। অনতিবিলম্বে পাপন সাহেবের দাম্ভিকতা পরিহার করে খেলোয়াড়দের সঙ্গে সমঝোতা করাই হবে সময়ের দাবি। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]