• প্রচ্ছদ » » ভালোবাসা থেকেই বলছি, ক্রিকেটারদের অবশ্যই জাতীয় দলের ক্যাম্পে যোগ দেয়া উচিত


ভালোবাসা থেকেই বলছি, ক্রিকেটারদের অবশ্যই জাতীয় দলের ক্যাম্পে যোগ দেয়া উচিত

আমাদের নতুন সময় : 24/10/2019

জাসনাইন খুরশেদ হাসনাইন : আমরা বারবার দেখেছি, বিশ্বমঞ্চে আমাদের ক্রিকেটাররা কী প্রবল দেশপ্রেম নিয়ে লাল-সবুজের জাতীয় পতাকা ঊর্ধ্বে তুলে ধরে। কতোটা দরদ নিয়ে জাতীয় সংগীতে ঠোঁট মেলায়। কী প্রাণান্ত চেষ্টায় মাতে বাংলাদেশের বিজয় ছিনিয়ে আনতে। জয় নিশ্চিত করে কী পবিত্র আনন্দে মেতে ওঠে। কী উল্লাসে মাতিয়ে তোলে দেশের মানুষকে। আমরা বারবার দেখেছি, ক্রিকেট ম্যাচে বাংলাদেশ হারলে কী দারুণ কষ্টে কুঁকড়ে যায় আমাদের ক্রিকেটাররা। কতোটা বেদনায় তাদের চোখ থেকে অশ্রæ ঝরে। সেই নোনাজল ছড়িয়ে পড়ে গ্রামে গ্রামে, কোটি কোটি মানুষের হৃদয়ে। আমরাই তো বারবার বলেছি, মাশরাফি, সাকিব, তামিম, মুশফিকরা বাংলাদেশের প্রাণ। এখনো বলি, আগামীতেও বলবো। তারা আমাদের অহংকার। তাদের ঘিরে অনেক স্বপ্ন আমাদের। তারাই আমাদের শিখিয়েছে, ক্রিকেটকে ভালোবাসতে। তারাই আমাদের প্রেরণা যুগিয়েছে, নতুন প্রজন্মের উপর আরও বেশি আস্থা রাখতে। আমি ক্রিকেটার নই, ক্রিকেটবোদ্ধাও নই। তবু ক্রিকেট আর ক্রিকেটারদের প্রতি আমার ভালোবাসা প্রবল। সেই ভালোবাসা থেকেই বলছি, ক্রিকেটারদের অবশ্যই জাতীয় দলের ক্যাম্পে যোগ দেয়া উচিত। বহু প্রতীক্ষিত ভারত সফরে যাওয়া এবং সিরিজ জয়ের লক্ষ্যে সর্বোচ্চ প্রস্তুতি নেয়া উচিত। এর কোনো বিকল্প নেই। ক্রিকেটাররা সাংবাদিক সম্মেলনে দাবি উত্থাপন এবং একইসঙ্গে বিনা নোটিশে ধর্মঘটের ঘোষণা দিয়েছেন। নৈতিকভাবে এটা ঠিক নয়। আপনাদের ১১ দফার যৌক্তিকতা যাচাই-বাছাই এবং আলোচনার মাধ্যমে যৌক্তিক দাবিগুলো বাস্তবায়নে ক্রিকেট বোর্ডকে পর্যাপ্ত সময় দেয়া অপরিহার্য। আমাদের ক্রিকেটাররা নিশ্চয়ই সেই সময়টুকু দেবেন, বাংলাদেশ আর ক্রিকেটকে ভালোবাসি বলেই এটা আশা করি। ক্রিকেট বোর্ডের কাছে প্রত্যাশা, কোনো ধরনের রাগ-ক্ষোভ-প্রতিহিংসা নয়, অভিভাবকের অবস্থান থেকে ক্রিকেটারদের কথাগুলো শুনুন। আন্তরিকতার সঙ্গে সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করুন। এগিয়ে নিয়ে যান বাংলাদেশের ক্রিকেটকে। বিশ্বের দেশে দেশে যারা বাংলাদেশের পতাকা বহন করে, করছে এবং করবেÑ সেই ক্রিকেটাররা কিংবা তাদের মাঝে কেউ বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করতে চাচ্ছে, এটা আমরা বিশ্বাস করি না। বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা ধ্বংস করতে চাচ্ছে বাংলাদেশের ক্রিকেটকে, এটা আমরা বিশ্বাস করি না।ক্রিকেটারদের দাবি বিশ্লেষণে ‘ষড়যন্ত্র-তত্ত¡’ টেনে এনে দেশপ্রেম নিয়ে প্রশ্ন তোলাটা অনেক বেশি কষ্ট দিয়েছে আমাদের। যখন দায়িত্বশীলরা এ ধরনের মন্তব্য করেন, আমরা যারা ক্রিকেট ও ক্রিকেটারদের ভালোবাসি, আমরা সেই সাধারণ দর্শকরা তখন খুব অসহায় হয়ে পড়ি। সবারই মনে রাখা উচিত, বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা আমাদেরই ভাই, আমাদেরই সন্তান। তারা ক্রিকেট খেলে, ক্রিকেট বোঝে। তারা রাজনীতি বোঝে না। তারা আন্দোলন বোঝে না। হঠাৎ আন্দোলনে নামতে গিয়ে যদি তাদের কিছু ভুল হয়েও থাকে, সেটাকে হৃদয় দিয়ে দেখুন। যে কষ্ট নিয়ে ক্রিকেটাররা ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে, ভালোবাসা দিয়ে তাদের সেই কষ্টগুলো দূর করে দিন। জয় হোক বাংলাদেশের ক্রিকেটের। ভালোবাসি ক্রিকেট। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]