বিশ্ব বাজারে না বাড়লেও, জেট ফুয়েলের দাম বাড়িয়েছে বিপিসি

আমাদের নতুন সময় : 25/10/2019

লাইজুল ইসলাম : অভ্যন্তরীণ রুটের এয়ারলাইন্সগুলোকে প্রতি লিটার জেট ফুয়েল কিনতে হবে ৭৩ টাকা। আর আন্তর্জাতিক রুটের জেট ফুয়েলের দাম পড়বে লিটারপ্রতি দশমিক ৭১ ডলার। এ নিয়ে চলতি বছর তৃতীয়বারের মতো বাড়লো জেট ফুয়েলের দাম। যা আগে ছিলো ৭২ টাকা। গত মার্চে এটি বিক্রি হয় ৬৭ টাকায়। আর আন্তর্জাতিক রুটের ক্ষেত্রে জেট ফুয়েলের দাম পড়ছে লিটারপ্রতি দশমিক ৭১ ডলার, যা আগে ছিল দশমিক ৬৮ ডলার। এছাড়া মার্চে দাম ছিল দশমিক ৬২ ডলার। বিপিসি সূত্র এ তথ্য জানা গেছে।
সংশ্লীষ্টরা বলছেন, দাম বৃদ্ধি বাংলাদেশের এভিয়েশন ব্যবসার জন্য বড় ধরনের হুমকি। লিটারে এক ডলার বেশি হলে প্রতিটি ফ্লাইটে বাড়তি খরচ হয় প্রায় ৩২ লাখ টাকা
বিপিসি সূত্র মতে, সম্প্রতি সবগুলো এয়ারলাইনসকে জেট ফুয়েলের দাম বৃদ্ধির বিষয়টি অবগতি করে চিঠি দিয়েছে বিপিসির অঙ্গ প্রতিষ্ঠান পদ্মা ওয়েল কোম্পানি লিমিটেড।
চিঠিতে বলা হয়, কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী জেট এ-১ তেলের বিক্রয়মূল্য বাড়ানো হয়েছে। যা ১০ অক্টোবর থেকে কার্যকর হয়েছে। এ প্রসঙ্গে বিপিসির এক কর্মকর্তা বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে সমন্বয় করে জেট ফুয়েলের দাম কম-বৃদ্ধি করা হয়। জেট ফুয়েলের দাম নির্ধারণ করে বিপিসি। সব সময়ই জেট ফুয়েলের আন্তর্জাতিক বাজার মনিটরিং করেই মূল্য সমন্বয় করে।

এদিকে জেট ফুয়েলের দাম বাড়ানোয় অস্বস্তি প্রকাশ করে দেশিয় বিভিন্ন এয়ারলাইনস বলছেন, জেট ফুয়েলের দাম বাড়ালে এয়ারলাইনসের পরিচালন ব্যয় বাড়বে। এতে বিদেশি এয়ারলাইনসের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করা সম্ভব হবে না। এমনিতেই মধ্যপ্রাচ্যের এয়ারলাইনস অনেক কম মূল্যে জ্বালানি পায়। এভাবে চললে দেশীয় এয়ারলাইনসের ব্যবসা টিকিয়ে রাখা কঠিন হবে।
অপারেশনে অতিরিক্ত ব্যয়ের কারণে দেশে বেসরকারি এয়ারলাইনসগুলো ক্ষতিরমুখে পড়ছে। এমন প্রেক্ষাপটে নতুন করে জেট ফুয়েলের দাম বাড়া মানে আরও ক্ষতি। বেশির ভাগ দেশীয় এয়ারলাইনসে বোয়িং ৭৩৭ এবং ৭৭৭ উড়োজাহাজ ব্যবহৃত হয়। এ বিমানগুলোর গড়ে তেল ধারণ ক্ষমতা প্রায় ৪০ হাজার গ্যালন।

বিদেশি এয়ারলাইনসের তুলনায় যদি জ্বালানির দাম লিটারে এক ডলার করেও বেশি হয়, তাহলে প্রতিটি ফ্লাইটে দেশীয় এয়ারলাইনসের বাড়তি খরচ গুণতে হয় প্রায় ৩২ লাখ টাকা।
কেবল মধ্যপ্রাচ্যেই নয় পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের তুলনায় বাংলাদেশের জেট ফুয়েলর দাম বেশি। এমনিতেই লাভ নেই তার উপর জেট ফুয়েলের দাম দফায় দফায় বাড়ানোর কারণে বেসরকারি এয়ারলাইনসের ব্যয় বাড়ছে। সবমিলে দিশেহারা অবস্থা।
এ বিষয়ে বিপিসির চেয়ারম্যান মো. সামছুর রহমান বলেন, জেট ফুয়েলের দাম বাংলাদেশেই বেশি এ কথা ঠিক নয়। কেননা আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখেই জেট ফুয়েলের মূল্য নির্ধারণ করা হয়। এ সংক্রান্ত কমিটি জেট ফুয়েলের দাম পুননির্ধারণ করে থাকে। সম্পাদনা : খালিদ আহমেদ




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]