এফডিসি চত্বরে তারকাদের মিলন মেলা

আমাদের নতুন সময় : 26/10/2019

ইমরুল শাহেদ : র‌্যাব, পুলিশসহ আইন-শৃংখলা বাহিনীর কঠোর নিরাপত্তা ও সতর্কতার মধ্য দিয়ে গতকাল শুক্রবার এফডিসিতে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ২০১৯-২১ মেয়াদের দ্বিবার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এই কঠোর নিরাপত্তার মধ্যেও কিছু বহিরাগত এফডিসিতে প্রবেশ করেছে, যদিও নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত কর্মকর্তারা তা স্বীকার করেননি। তবে উৎসবমুখর পরিবেশেই ভোটগ্রহণ শুরু হয়। সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত ৮টি বুথে ভোটগ্রহণ চলে। নবীন প্রবীণ সকল তারকাই ভোট দিতে এসেছেন। সোহেল রানা, রোজিনা, জাভেদ, ফারুক, রিয়াজ, ফেরদৌস, পপি, এটিএম শামসুজ্জামান , অপু বিশ্বাস, শাকিব খান, অনন্ত, বর্ষা, আলী রাজ, রাশেদা, খালেদা আক্তার কল্পনাসহ প্রায় সব তারকাই এসেছেন। মৌসুমী, মিশা সওদাগর, জায়েদ খান, অঞ্জনা, ডন, রুবেলসহ প্রার্থীরাও হন্যে হয়ে ভোটারদের আনুকুল্য পাওয়ার জন্য এফডিসির এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্ত পর্যন্ত ঘুরে বেড়াতে দেখা গেছে। শুরুতে এফডিসিতে প্রবেশে গৃহীত নিরাপত্তা ব্যবস্থায় কেবল ভোটার, সাংবাদিক ও নির্বাচন সংশ্লিষ্টদের এফডিসির গেট দিয়ে ঢুকতে দেয়া হয়েছে। ভোটাররা এফডিসির গেটে পরিচয়পত্র দেখিয়ে ভোট দিতে প্রবেশ করছেন। নির্বাচন কমিশন ইস্যুকৃত বিশেষ পরিচয়পত্র নিয়ে সাংবাদিকরা ভেতরে প্রবেশ করেছেন। কিন্তু চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট সংগঠনগুলোর নেতারা এ ধরনের নিরাপত্তার তীব্র প্রতিবাদ করেন। কারণ নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিতরা এফডিসির মূল ফটকে সোহেল রাণা, দেলোয়ার জাহান ঝন্টুসহ অনেককেই আটকে দেয়। পরে সংগঠনগুলোর নেতারা এফডিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালকের সঙ্গে দেখা করে এর সুরাহা করেন। এই ব্যবস্থায় যে কেউ এফডিসি বা সংশ্লিষ্ট সংগঠনের পরিচয়পত্র দেখিয়ে এফডিসিতে প্রবেশের সুযোগ পান।
শিল্পী সমিতির এবারের নির্বাচন নানা কারণেই ব্যতিক্রম। নির্বাচন নিয়ে গত কয়েকদিন ধরেই শিল্পীদের মধ্যে কাঁদা ছোঁড়াছুড়ি হয়েছে বেশ। এছাড়া এবারের নির্বাচন প্রথমবারের মতো কোনো নারী প্রার্থী সভাপতি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। রোজিনা বলেন, আমিও এক সময় নির্বাচন করেছি। এবারের নির্বাচনে যে ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে এমনটা অতীতে কখনো হয়নি। তবে এ প্রসঙ্গে এফডিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক বলেছেন, সকালে তথ্য মন্ত্রণালয়ের একজন প্রতিনিধি এফডিসিতে এসেছিলেন নির্বাচন পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণর জন্য। সরকারের পক্ষ থেকে তাকে নিরাপত্তা নিশ্চিত করার কথা বলা হয়েছে।
প্রসঙ্গত ২০১৯-২১ মেয়াদের শিল্পী সমিতির নির্বাচনে সভাপতি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন চিত্রনায়িকা মৌসুমী ও খলনায়ক মিশা সওদাগর। সহসভাপতির দুটি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন মনোয়ার হোসেন ডিপজল, রুবেল ও নানা শাহ। সাধারণ সম্পাদক পদে জায়েদ খানের প্রতিদ্বন্দ্বী ইলিয়াস কোবরা। সহসাধারণ সম্পাদক পদে ছিলেন আরমান ও সাংকো পাঞ্জা। এবারের নির্বাচনে মোট ভোট পড়েছে ৩৮৬। মোট ভোটার সংখ্যা ৪৪৯ জন, যা গত নির্বাচনে ভোটার সংখ্যার চেয়ে ১৮১ জন কম। সম্পাদনা : কাজী নুসরাত




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]