• প্রচ্ছদ » গুরুত্বপূর্ণ সংবাদ » দিনাজপুরে মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের সঙ্গে এসিল্যান্ড ও তার স্ত্রীর অন্যায় আচরণ মেনে নিতে পারছে না এলাকাবাসী ও মুক্তিযোদ্ধারা


দিনাজপুরে মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের সঙ্গে এসিল্যান্ড ও তার স্ত্রীর অন্যায় আচরণ মেনে নিতে পারছে না এলাকাবাসী ও মুক্তিযোদ্ধারা

আমাদের নতুন সময় : 26/10/2019

তাহেরুল আনাম : দিনাজপুর সদরের আউলিয়াপুর ইউনিয়নের যোগীপুর গ্রামের পারিবারিক করবস্তানে সমাহিত হয়েছেন মুক্তিযোদ্ধা ইসমাইল হোসেন । মৃত্যুকালে তিনি একটি চিঠি লিখে যান। চিঠিতে উল্লেখ ছিল- জীবিত অবস্থায় মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে কোন স¤œান পাইনি। দেয়া হয়নি কোনো মর্যাদা। মরে গিয়ে গার্ড অব অনার নিয়ে লাভ কী। তাই গার্ড অব অনার দিতে পরিবারকে নিষেধ করে যান তিনি। ২১ অক্টোবর শ্বাসপ্রশ্বাসের কষ্টনিয়ে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হয়। ২৩ অক্টোবর সকাল ১১-১০মিনিটে তার মৃত্যু হয়।
বীর মুক্তিযোদ্ধা ইসমাইল হোসেনের ছেলে নুর ইসলাম জানান, তিনি নো ওয়ার্ক নো পে’র ভিত্তিতে ড্রাইভার হিসেবে চাকরি করতেন। যার বৈধ প্রত্যয়ন পূর্বের এসিল্যান্ড মো. মেজবাউল হোসেন এবং বর্তমান এসিল্যান্ড মো. আরিফুল ইসলাম এর প্রত্যায়নে আমাকে ড্রাইভার হিসেবে নিয়োগের অনুমতি দেয়। একপর্যায়ে এসিল্যান্ড আরিফুল ইসলাম তার পরিবারের কাজ করতে বাধ্য করে। নুর ইসলাম বলেন, এসিল্যান্ডের মিসেস তার বাসার টয়লেট পরিষ্কার করতে বলে। আমি অসুস্থ থাকায় পড়ে করব বললে তিনি আমাকে অকথ্য ভায়ায় গলি গালাজ করে। এসিল্যান্ড আরিফুল ইসলাম বাসায় এলে তাকে বিষয়টি জানালে তিনিও আমাকে গালি গালাজ করে ও সরকারি বাসা ৩ ঘণ্টার মধ্যে ছেড়ে দেয়ার নির্দেশ দেয়। বাসা ছাড়তে দেরি হওয়ায় তিনি লোকজন নিয়ে গিয়ে তালা ভেঙ্গে আমার যাবতীয় মালামাল নষ্ট করে দেয়। এবিষয়ে আমার বাবা ডিসি স্যারের সাথে দেখা করতে চাইলে অফিস থেকে জানায় স্যার আপনার সঙ্গে দেখা করবেন না। সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার লোকমান হাকীম আক্ষেপ করে বলেন, তার ছেলে চাকরিচ্যত করা এবং তার পরিবারের সাথে এধরনের আচরণ কাম্য হতে পারে না। তিনি পুরো ঘটনার তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণের জোর দাবি জানান। ৬নং আউলিয়াপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের ব্যবস্থা দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন। তার বাড়ির পাশে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মোফাজ্জল হোসেন দুলাল বলেন, প্রশাসনের এহেন কার্যকলাপে জাতি বিষ্মিত হয়েছে। যারা বুকের রক্তদিয়ে দেশ স্বাধীন করেছে তাদের সঙ্গে নির্মম ও অমানবিক আচরণ কখনোই কাম্যনয়। তিনি এর তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান। জেলা প্রশাসক মাহামুদুল আলমের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানায়, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. শরিফকে প্রধান করে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। তিন কার্যদিবসে প্রতিবেদন প্রদানের নির্র্র্র্র্দেশ দেয়া হয়েছে। প্রতিবেদন পেলেই ব্যবস্থা নেয়া হবে। তিনি আরো বলেন, মুক্তিযোদ্ধারা দেশের সুর্য সন্তান তারা দেশ স্বাধীন না করলে আমি ডিসি হতে পারতাম না। দোষীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। সম্পাদনা : মুরাদ হাসান, ওমর ফারুক




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]