• প্রচ্ছদ » সর্বশেষ » আজ ওয়ার্কাস পার্টির দশম সম্মেলন, দলে ভাঙনের সুর, মেননের বিরুদ্ধে অভিযোগ বিস্তর


আজ ওয়ার্কাস পার্টির দশম সম্মেলন, দলে ভাঙনের সুর, মেননের বিরুদ্ধে অভিযোগ বিস্তর

আমাদের নতুন সময় : 01/11/2019

দেবদুলাল মুন্না : রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশন মিলনায়তনে আজ থেকে চার দিনব্যাপী শুরু হচ্ছে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির দশম কংগ্রেস ( কেন্দ্রীয় সম্মেলন)। এ সম্মেলন হতে যাচ্ছে দলের ভিতরে চরম অসন্তোষ ও উত্তেজনা নিয়ে। কারণ ওয়ার্কার্স পার্টি ফের ভাঙনের মুখে রয়েছে। রাশেদ খান মেনন নেতৃত্বাধীন ওয়ার্কার্স পার্টির দশম কংগ্রেস বর্জনের পর গত মঙ্গলবার আলাদা সম্মেলন করার ঘোষণা দিয়েছেন ছয় কেন্দ্রীয় নেতা। পলিটব্যুরোর সদস্য নুরুল হাসান ও ইকবাল কবির জাহিদ নেতৃত্বাধীন ছয় নেতা এ ঘোষণা দেন। অন্যরা হলেন, জাকির হোসেন হবি, মোফাজ্জেল হোসেন মঞ্জু, অনিল বিশ্বাস ও তুষার কান্তি দাস।
কংগ্রেস বর্জনের ঘোষণার তিন দিনের মাথায় নতুন সম্মেলনের ডাক দিয়েছেন তারা। ইকবাল কবির জাহিদ গতকাল বলেন,‘ওয়ার্কার্স পার্টিতে দক্ষিণপন্থী সুবিধাবাদ, বুর্জোয়া লেজুড়বৃত্তি ও বিলোপবাদী ধারার বিরুদ্ধে সংগ্রামের অংশ হিসেবে কংগ্রেস বর্জন করছি আমরা। এমনকি সম্মেরনের দিন আমাদের পক্ষের সমর্থকরা বিক্ষোভও করতে পারে।’
ওয়ার্কার্স পার্টির বিদ্রোহীরা দল থেকে নিজেদের পদত্যাগের কথা জানিয়ে বলেছেন, আগামী ২৯ নভেম্বর শুক্রবার অনুষ্ঠিতব্য সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন বাম জোট গঠনের আয়োজন করা হয়েছে। এ বাম জোটের পাশে আছেন বিমল বিশ্বাস। মেননের দলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক বিমল বিশ্বাস পুরানা পল্টনে সিপিবি ভবনে বাম গণতান্ত্রিক দলগুলোর নেতাদের সঙ্গে ইতোমধ্যে মতবিনিময় করেন। কী পরিস্থিতিতে তিনি ওয়ার্কার্স পার্টি ছেড়েছেন, তা তুলে ধরেছেন বিমল বিশ্বাস। তবে ওয়ার্কার্স পার্টির আজ অনুষ্ঠিতব্য নেতৃত্বে কারা থাকছেন এ প্রশ্নের উত্তরে দলের অনেক নেত্রাকর্মীই জানান, রাশেদ খান মেনন ও ফজলে হোসেন বাদশাই থাকবেন। ওয়ার্কার্স পার্টির সিনিয়র এক নেতা জানান, এবারে দলের কংগ্রেসে লোকই খুঁজে পাওয়া যাবে কিনা সন্দেহ। তবে টেকনিক্যাল কারণে এই মুহুর্তে সেসব নেতাকর্মীর নাম জানাতে তিনি রাজি হননি। ১৯৯২ সালে তিনটি বাম দল মিলে ওয়ার্কার্স পার্টি গঠিত হয়। একসময় দলে আওয়ামী লীগের সঙ্গে ঐক্য করে ক্ষমতায় যাওয়া নিয়ে বিরোধ ছিল। এবার এই বিরোধ চরম আকার ধারণ করেছে। দলটির গুরুত্বপূর্ণ দুই নেতা বিমল বিশ্বাস ও ইকবাল কবির জাহিদ নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করেও সংসদ সদস্য হতে পারেননি। ফলে আওয়ামী লীগের সঙ্গে জোট থেকে বেরিয়ে আসতে তারা তৎপর হয়েছেন। দলের অভ্যন্তরে সরকারবিরোধী মনোভাব চাঙ্গা হওয়ায় আসছে কাউন্সিলে দলে ভাঙন ঠেকাতে সরকারের বিরোধিতায় কয়েকদিন আগেও সরব ছিলেন মেনন। সম্প্রতি দলের এক অনুষ্ঠানে তিনি একাদশ জাতীয় নির্বাচনে ভোটগ্রহণ নিয়ে তীব্র্র সমালোচনা করেছেন। কিন্তু পরে যখন বুঝেছেন যে দলের বিদ্রোহীরা আর দলে থাকবে না তখন তার সরকারের সমালোচনার জন্য মাফ চেয়েছেন।
বিদ্রোহী দুই নেতা জানান, শীর্ষ নেতৃত্বের বিরুদ্ধে অনিয়ম-দুর্নীতি স্বজনপ্রীতির নানান অভিযোগ। তারা হলেন রাজশাহী-২ আসন থেকে দলটির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা, সাতক্ষীরা-১ থেকে পলিট ব্যুরোর সদস্য মুস্তফা লুৎফুল্লাহ এবং ঢাকা-৮ আসন থেকে দলের সভাপতি রাশেদ খান মেনন। বেশি অভিযোগ রাশেদ খান মেননের বিরুদ্ধে। ক্যাসিনোর বিরুদ্ধে যখন দেশব্যাপী শুদ্ধি অভিযান শুরু হলো তখন সুবিধাভোগী হিসেবে নাম উঠে আসে রাশেদ খান মেননের। ক্যাসিনো চালানোর অভিযোগে শুরুর দিকেই রাজধানীর ফকিরাপুলের যে ‘ইয়ংমেন্স ক্লাবে’ অভিযান চালানো হয়েছিল, সেই ক্লাবের গভর্নিং বডির চেয়ারম্যান রাশেদ খান মেনন। এমনকি ইয়ংমেনস ক্লাব থেকে উদ্ধার করা চাঁদাবাজির খাতায় মেননের নাম রয়েছে ৫নং সিরিয়ালে। রয়েছে স্বজনপ্রীতির অভিযোগ। জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনে ওয়ার্কার্স পার্টির প্রার্থী হিসেবে নিজের স্ত্রী লুৎফুন্নেসা খান বিউটিকে বেছে নেন তিনি। সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]