• প্রচ্ছদ » আমাদের বাংলাদেশ » পেঁয়াজ আমদানি করে সংকটের সমাধান করতে হবে, বললেন ড. সালেহউদ্দিন মির্জ্জা আজিজের মতে, নতুন আমদানি উৎস আগেই নির্ধারণের প্রয়োজন ছিলো


পেঁয়াজ আমদানি করে সংকটের সমাধান করতে হবে, বললেন ড. সালেহউদ্দিন মির্জ্জা আজিজের মতে, নতুন আমদানি উৎস আগেই নির্ধারণের প্রয়োজন ছিলো

আমাদের নতুন সময় : 01/11/2019

আমিরুল ইসলাম : লাগামহীন পেঁয়াজের বাজার। পেঁয়াজের ঝাঁজ যেন দিনে দিনে বেড়েই চলেছে। কৃষকের ১৩ টাকার পেঁয়াজ খুচরা বাজারে বিক্রি হচ্ছে ১৩২ টাকা এবং পাইকারি বাজারে ১৭৫ টাকা পর্যন্ত। হালি ধরে পেঁয়াজ বিক্রি করার খরবও এখন চমকানোর মতো নয়। লাগামহীন পেঁয়াজের বাজারের লাগাম টানতে কর্তৃপক্ষ ব্যর্থ কিনা এবং বাজার স্বাভাবিক হতে কতো সময় লাগবে, জানতে চাইলে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. সালেহউদ্দিন আহমেদ বলেছেন, পেঁয়াজের বাজারের নিয়ন্ত্রণ করতেই হবে, সেটা যেভাবেই হোক। বিদেশ থেকে আমদানি করে সমাধান করা যেতে পারে। স্থানীয় যে সাপ্লাইগুলো আছে সেগুলো নিশ্চিত করা, যাতে এগুলো বাজারে আসে। এখন থেকে কৃষকদের পেযাঁজের ন্যায্য দাম না দিলে আগামীতেও ঝামেলা হবে। কৃষক দেখছে যে বাজারে পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১৫০ টাকা, কিন্তু তারা দাম পায় মাত্র ১৫ টাকা। তাই তারা আর পেঁয়াজের চাষ করবেই না। পেঁয়াজের উৎপাদন কীভাবে বাড়ানো যায় সেদিকে সরকারের নজর দিতে হবে। সরকার জানে যে বছরের এই সময় পেঁয়াজের সংকট তৈরি হয়। তারা বাফার স্টক রাখতে পারে। টিসিবি গুদামজাত করে পেঁয়াজ রেখে দিতে পারে। পেঁয়াজের দাম যেন আর না বাড়ে এজন্য বাজার নিয়ন্ত্রণ এবং পর্যবেক্ষণ করতে হবে।

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা এবি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেছেন, পেঁয়াজের ব্যাপারে সরকারের অগ্রিম পরিকল্পনার অভাব থাকার কথা কৃষিমন্ত্রীও বলেছেন। সরকার বুঝতে পারেনি পেঁয়াজ আমদানির অন্যতম উৎস ভারতে পেঁয়াজের উৎপাদন কম হয়েছে। আমাদের দেশেও পেঁয়াজের উৎপাদন ভালো হয়নি। আগে থেকে ভারত ব্যতীত অন্য দেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানি করার দরকার ছিলো, সেটা তারা করেনি। অভাব দেখা দেয়ার পর তারা অন্য দেশ থেকে আমদানি করার চেষ্টা করছে। কিন্তু আমদানিকৃত পেঁয়াজ দেশে আসতে তো সময় লাগে। নতুন করে যে পেঁয়াজ আমদানি করা হচ্ছে এগুলো দেশে এসে পৌঁছলে পেঁয়াজের দাম কমবে। এটার জন্য আর মাসখানেক সময় লাগবে।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]