• প্রচ্ছদ » » ‘আনফ্রিডমস’ প্রত্যয়টির জন্য অমর্ত্য সেনকে স্যাল্যুট


‘আনফ্রিডমস’ প্রত্যয়টির জন্য অমর্ত্য সেনকে স্যাল্যুট

আমাদের নতুন সময় : 05/11/2019

হেলাল মহিউদ্দিন : আমার বিচারে ‘টহভৎববফড়সং’ সেনের সবচাইতে বড় উদ্ভাবন। নেতিবাচক উপসর্গ টহ; তার ওপর বহুবচন (শব্দশেষে ং) ব্যবহার শুধু সৃজনশীলই নয়, তার উন্নয়ন-দর্শন বুঝতে এবং বুঝাতে সবচেয়ে কার্যকর। তার উদ্ভাবিত এই স্বভাবের দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ প্রত্যয়টি ‘ড্সিএন্টাইটেলমেন্ট’ (উরংবহঃরঃষবসবহঃ)। নেগিটিভ প্রিফিক্স ব্যবহার করে (টহ এবং উরং) বানানো শব্দ দিয়ে পজেটিভনেস ব্যাখ্যার পদ্ধতিটি গুরুত্বপূর্ণ এই কারণে যে ‘উন্নয়ন’ আসলে কী বোঝা এবং বোঝানো খুবই সহজ করে দিয়েছেন তিনি।তিনি জানালেনÑ‘উন্নয়ন’ হতে হলে ‘রিম্যুভ্যাল অব আনফ্রিডমস অ্যন্ড ড্সিএন্টাইটেলমেন্ট’(স্বাধীনতাহীনতা এবং ন্যয্যস্বত্বহীনতা বিনাশ) লাগবেই। ‘টহভৎববফড়সং’ এবং ‘উরংবহঃরঃষবসবহঃ’ এর বিনাশ (ৎবসড়াধষ) না ঘটানো হলে জিডিপি-জিএনপি, সেতু-কাল্ভার্ট, রাস্তা, হাইরাইজে দেশ ভরে গেলে কিংবা জনগণের পকেটভর্তি টাকা উপচে পড়লেও আসলে ‘উন্নয়ন’ হয়নি। নানা রকম ‘আনফ্রিডমস’গুলোর কয়েকটি উদাহরণÑ মানুষের প্রাণ খুলে কথা বলতে না পারা, স্বাধীনভাবে চলতে-ফিরতে না পারা, উন্মুক্ত রাজনীতি করতে না পারা, পত্রিকাগুলোতে সেন্সরশিপ, বুদ্ধিজীবীদের সত্য কথা না বলতে পারা ইত্যাদি। ‘ড্সিএন্টাইটেলমেন্ট’এর অনেক উদাহরণের কয়েকটি যেমন বাংলাদেশের বন-বাদাড়, উন্মুক্ত জলা, পুলিশ-আইন-বিচারব্যবস্থা সকল কিছুর ওপর সকল জনগণের সমান দাবি ও অধিকার (ন্যয্যস্বত্ব) না থাকা। যেমন ‘সুন্দরবন’, ‘জলমহাল’ ইত্যাদি সম্পদে এবং পুলিশ-আইন-বিচারব্যবস্থা-প্রশাসনিক সেবা ইত্যাদিতে বাংলাদেশের জনগণের ‘এন্টাইটেলমেন্ট’ আর নাই। আমজনগণকে ‘ডিসএন্টাইটেলড’ করে দেওয়া হয়েছে। ‘এন্টাইটেলমেন্ট’-এর ব্যপ্তি ঘরঘর পর্যন্ত। খাবার-দাবার, সুযোগ-সুবিধায় নারী-পুরুষের বৈষম্য না করা পর্যন্ত। ‘আনফ্রিডমস’ এবং ‘ড্সিএন্টাইটেলমেন্ট’ যখন বাড়বাড়ন্ত, তখন বাংলাদেশের জিডিপি-গ্রোথকে ‘উন্নয়ন’ বলার কোনো কারণ নেই। জন্মদিনে অমর্ত্য সেনকে শ্রদ্ধা জানাই এই বিষয়টি অন্তত বুঝতে পারার পথ তৈরি করে দেবার জন্য। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]