• প্রচ্ছদ » » একাত্তর সালে ঢাকাতে যে কয়জন যোদ্ধাদের নাম শুনলে পাকিস্তানি আর্মি ও তাদের দোসররা প্যান্ট নষ্ট করে ফেলতো,তাদের অন্যতম সাদেক হোসেন খোকা


একাত্তর সালে ঢাকাতে যে কয়জন যোদ্ধাদের নাম শুনলে পাকিস্তানি আর্মি ও তাদের দোসররা প্যান্ট নষ্ট করে ফেলতো,তাদের অন্যতম সাদেক হোসেন খোকা

আমাদের নতুন সময় : 05/11/2019

রুম্পা সৈয়দা টাইগার জামান : একাত্তর সালে ঢাকাতে যে কয়জন যোদ্ধাদের নাম শুনলে পাকিস্তানি আর্মি আর তাদের দোসররা প্যান্ট নষ্ট করে ফেলত তারা হলেন পপসম্রাট আজম খান, রাইসুল আসাদ এবং সাদেক হোসেন খোকা। গুলিস্থানের গ্যানিস সুপার মার্কেট একা উড়িয়ে দিয়েছিলেন যে মানুষটি তার নামও সাদেক হোসেন খোকা! ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদুল্লাহ হলের কাছে বিমান বাহিনীর একটি রিক্রুটিং অফিস, ঝিগাতলার পিলখানা, পাকিস্তানিদের হয়ে মিথ্যা প্রচারণার আখড়া ডিএফপি অফিস (শান্তিনগরের বর্তমানে সেন্সর বোর্ড অফিস), রাজারবাগ পুলিশ লাইনের উল্টোদিকে মোমেনবাগের দুটি ভাড়া করা বাড়িতে তৎকালীন নির্বাচন কমিশন অফিসসহ ঢাকায় অনেক সফল গেরিলা অপারেশনের নেতৃত্ব দেয়া বীরের নাম সাদেক হোসেন খোকা। পপগুরু আজম খানের নেতৃত্বে সারুলিয়া অপারেশনেও নায়কোচিত ভ‚মিকা ছিলো খোকার।বঙ্গবন্ধুতে প্রভাবিত, পাকিস্তানবিরোধী সাদেক হোসেন খোকা মুক্তিযুদ্ধের একজন অগ্রণী বীর হয়েও কেন বিএনপিতে যোগ দিয়েছিলেন সে ইতিহাস আমার জানা নেই। জানতে চাইও না। বিএনপির সাদেক হোসেন খোকাকে আমি কোনোদিন জানার চেষ্টা করিনি, মাপিনি। তাকে মেপেছি অস্ত্র হাতে বীর যোদ্ধা হিসেবে, একজন সফল মেয়র হিসেবে। রাজধানী ঢাকাতে রাস্তায় রোড ডিভাইডারে মাঝে গাছ লাগিয়ে কার্বন-ডাই-অক্সাইডে ভরে যাওয়া শহরে সবুজায়নের প্রকল্প শুরু করা মানুষটি ছিলেন সাদেক হোসেন খোকা।মুক্তিযোদ্ধারা দেশের বীর সন্তান। সাদেক হোসেন খোকারা সেইসব সন্তানদের গর্ব। রাজনৈতিক বাহাসে হয়তো সমালোচনা আসবে, কিন্তু বীর খোকা শ্রদ্ধায় থাকবেন চিরকাল মাতৃভ‚মির স্বাধীনতার ঐতিহাসিক নেতৃত্বে। তিনি ইতিহাস। তার চলে যাওয়া মানে ইতিহাসের একটি অধ্যায় শেষ হয়ে যাওয়া। বিনম্র শ্রদ্ধা কমরেড। স্বৈরাচারীর মৃত্যুতেও শোক জানায় জাতি- একজন মুক্তিযোদ্ধার চীর বিদায়ে নয়! আফসোস. আফসোস। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]