গরুর দুধে সোনা থাকে, দাবি পশ্চিমবঙ্গের বিজেপি নেতার

আমাদের নতুন সময় : 06/11/2019


রমাপ্রসাদ বাবু : গরুর দুধে ‘সোনা’র সন্ধান দিলেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। বর্ধমান শহরের টাউনহলে এক সভায় গত সোমবার তিনি দাবি করেন, গরুর দুধে সোনার ভাগ থাকে। তাই দুধের রং হলুদ হয়। তার ব্যাখ্যা, দেশি গরুর কুঁজের মধ্যে স্বর্ণের অস্তিত্ব থাকে। সূর্যের আলো পড়লে, সেখান থেকে সোনা তৈরি হয়।
অবশ্য গরু নিয়ে দিলীপ ঘোষ আরও মতামত জানাতে ভুলেননি। তার কথায়, বিদেশ থেকে যে গরু আনা হয়, তা ‘হাম্বা’ আওয়াজ করে না। যে ‘হাম্বা’ ডাকে না, সে গরুই নয়। গোমাতা নয়, ওটা আন্টি। আন্টির পূজা করে দেশের কল্যাণ হবে না। খবর আনন্দবাজার পত্রিকার।
তার ‘তত্ত্ব’ শুনে বিজ্ঞানী-বিশেষজ্ঞদের একটা বড় অংশের চক্ষু চড়কগাছ। তাদের স্বীকারোক্তি, এমন বৈজ্ঞানিক গবেষণা পৃথিবীর কোথাও হয়েছে বলে তাদের জানা নেই। এর আগে উত্তরাখ-ের বিজেপি মন্ত্রী রেখা আর্য দাবি করেছিলেন, গরুই একমাত্র পশু, যে শ্বাস গ্রহণের সময় শুধু অক্সিজেন গ্রহণ করে না, প্রশ্বাসের সঙ্গে তা পরিবেশে ফিরিয়েও দেয়। বিজেপি সাংসদ সাধ্বী প্রজ্ঞাও দাবি করেছিলেন, তিনি স্তনের ক্যানসারে আক্রান্ত ছিলেন। গোমূত্র পান করে আর পঞ্চগব্য গ্রহণ করে নিজেকে সারিয়ে তুলেছেন।
কিন্তু গরুর দুধে সোনা? বছর তিনেক আগে গুজরাটের জুনাগড় কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন বিশেষজ্ঞ খামারের চারশ’ গরুকে নিয়ে সমীক্ষার পরে দাবি করেন, গোমূত্রে সোনা আছে। ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োটেকনোলজি এবং বায়োকেমিস্ট্রি বিভাগের প্রধান বিএ গোলাকিয়া এ দিন দাবি করেন, ছয়টি প্রজাতির গরুর একশ’রও বেশি মূত্রের নমুনা পরীক্ষা করে সোনার উপস্থিতি পেয়েছি। এই সোনা রয়েছে ক্লোরাইড যৌগ হিসেবে।
কিন্তু গরুর দুধে সোনা পেয়েছেন কি না- এ বিষয়ে গোলাকিয়ার জবাব, আমরা শুধু গোমূত্রের ব্যাপারটা বলতে পারব। পশ্চিমবঙ্গ প্রাণী ও মৎস্যবিকাশ বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিন তরুণকুমার মাইতি বলেন, গরুর দুধে অনেক কিছুই থাকে। তবে সোনা আছে বলে শুনিনি। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়নের অধ্যাপক স্বপন চক্রবর্তীর টিপ্পনি, গরুর দুধে যদি সোনা থাকত, তা নিয়ে তো কাড়াকাড়ি পড়ে যেতো। রাজ্যের প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী স্বপন দেবনাথের প্রতিক্রিয়া, গরুর দুধে সোনার তত্ত্ব শুনে মাথা খারাপ হওয়ার জোগাড়।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]