• প্রচ্ছদ » প্রথম পাতা » মদ-ক্যাসিনো সামগ্রী উদ্ধার, দুই সপ্তাহেও ধরা পরেনি আজিজ মোহাম্মদের ভাইয়ের ভাতিজা


মদ-ক্যাসিনো সামগ্রী উদ্ধার, দুই সপ্তাহেও ধরা পরেনি আজিজ মোহাম্মদের ভাইয়ের ভাতিজা

আমাদের নতুন সময় : 08/11/2019

সুজন কৈরী : রাজধানীর গুলশানে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের (ডিএনসি) কর্মকর্তাদের বাড়িতে প্রবেশের পরপরই কৌশলে পালিয়ে যাওয়া আলোচিত ব্যবসায়ী ও চলচ্চিত্র প্রজোজক আজিজ মোহাম্মদ ভাইয়ের ভাতিজা ওমর মোহাম্মদ ভাই ঘটনার দুই সপ্তাহেও গ্রেপ্তার হননি। তবে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছে ডিএনসি।
ডিএনসির কর্মকর্তারা বলছেন, ওমর মোহাম্মদকে গ্রেপ্তার করতে কর্মকর্তারা মাঠে কাজ করছেন। তার বাসাসহ সম্ভাব্য স্থানগুলো নজরদারিতে রাখা হয়েছে। তিনি মাদকদ্রব্য আইনে করা একটি মামলার আসামি। ইতিমধ্যে বাসায় অবস্থানের তথ্য পেয়ে গত মঙ্গলবার তার বাসায়ও অভিযান চালানো হয়। কিন্তু তাকে পাওয়া যায়নি। পলাতক ওমর মোহাম্মদের অবস্থান নিশ্চিতে এবং তাকে গ্রেপ্তারে গোয়েন্দারাও কাজ করছে। ওমর মোহাম্মদ ভাই যেনো দেশ ত্যাগ করতে না পারেন, সেজন্য সংশ্লিষ্ট বিভাগকেও জানানো হয়েছে। এছাড়া অভিযানকালে গ্রেপ্তার দুইজনকে রিমান্ডে এনেও জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।
গত ২৭ অক্টোবর বিকেলে ডিএনসির ঢাকা মহানগর উপ-অঞ্চলের একাধিক টিম গুলশান-২ নম্বরের ৫৭ নম্বর রোডে আজিজ মোহাম্মদ ভাইয়ের পাশাপাশি অবস্থিত দুটি বাড়িতে অভিযান চালায়। সেখান থেকে গ্রেপ্তার করা হয় বাড়ির কেয়ারটেকার নবীন ম-ল ও পারভেজকে। অভিযান শুরুর সময় ওমর মোহাম্মদ ১১/এ নম্বর ভবনের একটি ফ্ল্যাটে ছিলেন। টের পেয়ে ফ্ল্যাটের ভেতরের বিকল্প পথ দিয়ে তিনি পালিয়ে যান। এছাড়া গুলশান-১ এর ২৮ নম্বর সড়কের ৫২ নম্বরস্থ পাঁচ তলা বিশিষ্ট ভবনের দ্বিতীয় তলার এ-১ নম্বর ফ্লাটে অভিযান চালিয়ে একটি কার্টন থেকে বিদেশি বিভিন্ন ব্রান্ডের ১০ বোতল মদ উদ্ধার করা হয়। পরদিন এ ঘটনায় গুলশান থানায় পৃথক দুটি মামলা করে ডিএনসি। এর একটিতে আসামি হচ্ছে ওমর মোহাম্মদ ভাই।
ডিএনসির কর্মকর্তারা বলছেন, মাদক থাকার সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতেই আজিজ মোহাম্মদ ভাইয়ের বাসায় অভিযান চালানো হয়। অভিযানকালে ওই বাসায় অন্তত ৭ থেকে ৮জন তত্ত্ববধায়ককে দেখা গেছে। কিন্তু সুনির্দিষ্ট তথ্যের ডিএনসি দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে। আগে থেকেই তাদের নজরদারিতে রাখা হচ্ছিলো। এই দুইজন মাদক বিক্রির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। তারা আরো জানান, আজিজ মোহাম্মদ ভাই দীর্ঘ দিন ধরে বিদেশে থাকেন। তবে অভিযান চলা ফ্ল্যাটগুলোর মধ্যে একটিতে তার ভাতিজা ওমর মোহাম্মদ ভাই থাকতেন। তিনিই মাদক ব্যবসা পরিচালনা করতেন।
ডিএনসির ঢাকা মহানগর উপ-অঞ্চলের সহকারী পরিচালক (উত্তর) মোহাম্মদ খুরশিদ আলম বলেন, নবীন ও পারভেজকে পৃথকভাবে তিন দিনের রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। প্রথম একদিনের রিমান্ডে তেমন কোনো তথ্য না দিলেও পরের বারের দুই দিনের রিমান্ডে কিছু তথ্য পাওয়া গেছে। যার যাচাই-বাছাই চলছে। এছাড়া এর সঙ্গে অন্য কারো জড়িত থাকার বিষয়টিও তদন্তাধীন। সম্পাদনা : খালিদ আহমেদ




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]