ভয়াল সেই ১২ নভেম্বর আজ

আমাদের নতুন সময় : 12/11/2019

জহিরুল ইসলাম : ১৯৭০ সালের ১২ নভেম্বর বাংলাদেশের ইতিহাসে এক মহাপ্রলয়ের দিন। এদিন উপকূলের ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতবিক্ষত হয়েছিলো গোটা উপকূল। উপকূলের ওপর দিয়ে বয়ে যায় সবচেয়ে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় এটি। এ ঘূর্ণিঝড় লন্ডভন্ড করে দেয় প্রায় সমগ্র উপকূল। প্রাণ হারান বহু মানুষ। বেঁচে থাকার শেষ সম্বল হারিয়ে পথে বসেন কয়েক লাখ মানুষ। সেই ভয়াল কালো রাতে লক্ষ্মীপুরের উপকূলীয় এলাকা রামগতি, কমলনগর, চরআব্দুল্লাহ, চর জব্বারসহ দেশের গোটা উপকূলীয় এলাকায় জলোচ্ছাস তেড়ে আসে। তখন ছিল রমজান মাস। তখনকার দেশী বিদেশী প্রচার মাধ্যমে এই ধবংসযজ্ঞের বর্ণনা ছিল এমন যে “মানুষের মৃতদেহগুলি কচুরী পানার ঝুপের মত সমুদ্রের দিকে ধাবিত হচ্ছে”। প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড়টি রাতে নিস্তব্ধতাকে ভেদ করে মুহুর্তে লন্ডভন্ড করেদেয় উপকূল। এ পর্যন্ত রেকর্ডকৃত ঘূর্নিঝড় সমূহের মধ্যে এটি সবচেয়ে ভয়াবহ ঘূর্নিঝড় এবং এটি সর্বকালের সবচেয়ে ভঙ্করতম প্রাকৃতিক দুর্যোগ।
১২ নভেম্বর রাতের ঘূর্ণিঝড়ের বাতাসের গতি বেগ ছিল ঘন্টায় ২২২ কিলোমিটার (১৩৮ মাইল)। চারিদিকে লাশ-আর-লাশ, লাশের গন্ধে মানুষ কাছে যেতে পারেনি। ৩-১০ ফুটের জলোচ্ছাসের কারণে মাটি দেয়া যায়নি মৃত মানুষ গুলোকে। প্রলংকারী ঘূর্ণিঝড়ে ১০ লাখ লোকের প্রাণহানীর ঘটনার ঠিক দুই দিন পর ততকালীন পাকিস্তানী শাসক গোষ্ঠির কর্তা ব্যক্তিরা এইঞ্চলে খোঁজ-খবর নিতে শুরু করে। কিন্তু পরবর্তীতে সরকারি হিসেবে লোকজনের ক্ষতি-৪৭ লাখ, ঘর বাড়ি বিনষ্ট বা ধ্বংস ৪ লাখ, গবাদি পশু ও হাঁস-মুরগির মৃত্যু ৭ লাখ ৮ হাজার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ধবংস হয়েছে ৩ হাজার ৫০০টি বলা হয়। বাংলাদেশের ইতিহাসের ভয়াল এই ধবংসযজ্ঞের পূর্ণাঙ্গ দলিল বা এ বিষয়ক কোন পুস্তিকা আজও প্রকাশিত হয়নি।
১৯৭০ এর ১২ নভেম্বরের প্রলংকারী ঘূর্ণিঝড় আর জলোচ্ছাসের ফলে ১০ লাখ লোকের প্রাণহানীর ঘটনাকে চির স্মরণীয় করে রাখতে ১২ নভেম্বরকে জাতীয় দূর্যোগ দিবস ঘোষণার দাবি জানিয়ে আসছে সরকারের নিকট। সম্পাদনা : ওমর ফারুক




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]