• প্রচ্ছদ » শেষ পাতা » ইকোসিস্টেম মেনে উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণ করলে সমুদ্র বাঁচবে, ঢাকা গ্লোবাল ডায়লগে বক্তাদের অভিমত


ইকোসিস্টেম মেনে উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণ করলে সমুদ্র বাঁচবে, ঢাকা গ্লোবাল ডায়লগে বক্তাদের অভিমত

আমাদের নতুন সময় : 13/11/2019

 

তরিকুল ইসলাম : গতকাল ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে ‘ঢাকা গ্লোবাল ডায়লগ-১৯’ এর দ্বিতীয় দিনের এক সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন। সভাটি সঞ্চালন করেন, সিসিলি বিশ্ববিদ্যালয়ের লেকচারার মালশিনি সেনারতেœ। সভায় ওয়েস্ট সিডনি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্টারন্যাশনাল সেন্টার ফর ওশান গভর্নেন্সের পরিচালক এসএম দাউদ বলেন, সময় এসেছে সমুদ্রকে অনেক কিছু ফিরিয়ে দেয়ার। স্থায়ী উন্নয়ন বান্তবায়নে ব্লু-ইকোনমিতে সফলতা অর্জন করতে হলে দেশগুলোর মধ্যে সমস্যা সমাধান করতে হবে।
ব্রিটিশ হাইকমিশনার রবার্ট চ্যাটার্টন ডিকসন বলেন, সমুদ্র নিয়ে সব সময় হুমকি রয়েছে। দূষণ একটি বড় হুমকি। ২০৩০ সালের মধ্যে ৩০ শতাংশ দূষণ কমিয়ে আনার কথা বলা হচ্ছে। ভৌগলিক দিক থেকে ব্রিটেন এ অঞ্চল থেকে দূরে হলেও কমনওয়েলথ ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলে ভূমিকা রাখতে হবে। কমনওয়েলথ যে সিস্টেমে চলে, তা এ ধরনের ধারণাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে সহায়তা করতে পারে।
বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজের মহাপরিচালক আব্দুর রহমান বলেন, আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো সমুদ্র সংকট নিয়ে অনেক সমস্যা সমাধান করতে পারে। ভারত নয়, বাংলাদেশ শুধু মিয়ানমারের সঙ্গে তার সমুদ্রসীমা সংকট সমাধান করেছে। সাউথ চায়নায় যে সমুদ্র সংকট রয়েছে, তা নির্ধারণে দায়িত্বশীল পরিচয় দিয়ে তা সমাধান করতে হবে।
জাপান ইন্সটিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল অ্যাফেয়ার্সের রিসার্চ ফেলো রিসুকি হানাদা বলেন, গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু হল মূলনীতি। সমুদ্র রক্ষায় মূলনীতি মেনে চলার কথা বলা হলেও তা সব সময় মেনে চলা হয় না। সমুদ্র সালিশ আদালতে অনেক রায় চীন মানেনি। বাংলাদেশ ও ভারত সমুদ্র সালিশ আদালতের রায় মেনে নিয়েছে। কিন্তু এটি সব সময় সব দেশের ক্ষেত্রে হয়নি। ক্ষমতা, রাজনীতি একে প্রভাবিত করে। সম্পাদনা : খালিদ আহমেদ




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]