অর্থ মন্ত্রণালয়ের বেতন গ্রেড মানবেন না প্রাথমিকের শিক্ষকরা

আমাদের নতুন সময় : 14/11/2019

 

আসিফ কাজল : সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন বাড়িয়ে সরকারের অর্থ বিভাগ যে গ্রেড নির্ধারণ করেছে তা মানবে না বলে জানিয়েছেন প্রাথমিকের শিক্ষকেরা। এ বিষয়ে তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাক্ষাৎ ও তার কাছ থেকে সিদ্ধান্ত প্রার্থনা করেছেন। বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ শামছুদ্দিন বলেন, আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আমাদের দুঃখের কথা শোনাতে চাই। এরপর তিনি যে বেতন গ্রেড নির্ধারণ করে দেবেন আমরা সেটিই গ্রহণ করবো।
গতকাল বুধবার এই শিক্ষক নেতা বলেন, ১৭ ডিসেম্বরের মধ্যে আমরা প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ চাইছি। শিক্ষকদের দুঃখ কেবল তিনিই বুঝতে পারেন। আমাদের এই দাবি মানা হবে বলেই আমরা আশা করছি। তিনি জানান, এটি করা না হলে নতুন করে আন্দোলনে যাবেন শিক্ষকরা। সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক সমিতির মুখপাত্র এস এম ছায়িদ উল্লা বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৪ সালে প্রধান শিক্ষকদের দ্বিতীয় শ্রেণির পদমর্যাদা দেন। কিন্তু কর্তৃপক্ষ প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্ত কার্যকর করেননি। এজন্য আমাদেরকে আদালতের দ্বারস্থ হতে হয়। আদালত ১০ম বেতন গ্রেড করার পক্ষে রায় দেওয়ার পরও অর্থ বিভাগ প্রধান শিক্ষকদের বেতন গ্রেড ১১তম রেখেছে। আমরা এই সিদ্ধান্ত মানি না।
এদিকে, বেতন বৃদ্ধির বিষয়ে অর্থ বিভাগ সম্মতি দিয়ে বুধবার প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়কে চিঠি দিয়েছে। যেখানে প্রশিক্ষণ পাওয়া ও প্রশিক্ষণবিহীন দুই ধরনের প্রধান শিক্ষকদের বেতন গ্রেড ১১তম এবং আর প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ও প্রশিক্ষণবিহীন সহকারী শিক্ষকদের বেতন গ্রেড ১৩তম রাখা হয়েছে।
প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব মো. আকরাম-আল-হোসেন বলেন, সরকারের অর্থ বিভাগের সম্মতিপত্রটি আমরা পেয়েছি। এখন দাপ্তরিক কাজ শেষে প্রজ্ঞাপন প্রকাশ করা হবে। তাছাড়া বেতন বৃদ্ধির বিষয়ে শিক্ষকদের প্রতিক্রিয়াও আমরা যাচাই করে দেখছি। সম্পাদনা : ভিক্টর কে. রোজারিও




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]