• প্রচ্ছদ » শেষ পাতা » ১২৫ বছর আগে নির্মিত সিলেট-আখাউড়া রেলপথের সংস্কারে উদ্যোগ নেই


১২৫ বছর আগে নির্মিত সিলেট-আখাউড়া রেলপথের সংস্কারে উদ্যোগ নেই

আমাদের নতুন সময় : 15/11/2019

স্বপন দেব : ব্রিটিশ আমলে এ অঞ্চলে রেলপথ নির্মাণের কাজ শুরু হয়। সেই সময়ে নির্মিত লাইনে ভর করেই চলছে পূর্বাঞ্চলের রেলপথ। লক্কড়-ঝক্কড় কোচ আর প্রায় একশ পঁচিশ বছর আগে নির্মিত রেল লাইনের এই রুটে প্রায়ই দুর্ঘটনার শিকার হয় ট্রেন।
চলতি বছরের ২৩ জুন রাতে মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার বরমচাল এলাকায় ট্রেন দুর্ঘটনায় চার যাত্রী নিহত ও শতাধিক আহতের ঘটনার মাত্র কয়েক মাসের মধ্যে ১১ নভেম্বর দিবাগত রাতে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার মন্দবাগ রেলস্টেশনে উদয়ন এক্সপ্রেস ও তূর্ণা নিশীথার দুর্ঘটনায় ১৭ জনের মৃত্যু এই রুট নিয়ে যাত্রীদের অভিযোগকে আবারও সামনে এনেছে। শুধু লাইন নয়, এ রুটের সেতুগুলোও মরণফাঁদে পরিণত হয়েছে। রেল বিভাগের মতে, সিলেট-আখাউড়া রেলপথের ১৭৯ কিলোমিটারের মধ্যে ১৩টি সেতু মরণফাঁদ। যদিও সচেতন মহলের মতে এই সেকশনের সবগুলা সেতুই ঝুঁকিপূর্ণ। গত ৯ মার্চ কুলাউড়ার মাইজগাঁও স্টেশন সংলগ্ন এলাকায় সার বহনকারী বিসি স্পেশাল ট্রেনের বগি লাইনচ্যুত হয়। এছাড়া গত ৫ এপ্রিল দুপুরে সিলেট-মাইজগাঁও রেলস্টেশনের মধ্যবর্তী মোগলাবাজার এলাকায় কুশিয়ায়া এক্সপ্রেসের ইঞ্জিনে অগ্নিকা- ঘটে। গত ১৬ মে ফেঞ্চুগঞ্জ কুশিয়ারা সেতু পার হয়ে মলি�কপুর এলাকায় একটি ট্রেন লাইনচ্যুত হয়। আর গত ২৩ জুন রাতে উপবন এক্সপ্রেস ট্রেন মৌলভীবাজারের কুলাউড়া স্টেশনে যাওয়ার আগে বরমচাল অতিক্রম করে মনছড়া রেলসেতু পার হওয়ার সময় ৬টি বগি লাইনচ্যুত হয়। এতে চারজন নিহত ও দুই শতাধিক মানুষ আহত হন।
রেলওয়ের প্রকৌশল শাখা সূত্রে জানা গেছে, সিলেট-আখাউড়া সেকশনের ঝুঁকিপূর্ণ সেতুগুলোর মধ্যে রয়েছে শমসেরনগর-টিলাগাঁও সেকশনের ২০০ নম্বর সেতু, মোগলাবাজার-মাইজগাঁও সেকশনের ৪৩, ৪৫ ও ৪৭ নম্বর সেতু, কুলাউড়া-বরমচাল সেকশনের ৫ ও ৭ নম্বর সেতু, সাতগাঁও-শ্রীমঙ্গল সেকশনের ১৪১ নম্বর সেতু, শ্রীমঙ্গল-ভানুগাছ সেকশনের ১৫৭ নম্বর সেতু, মাইজগাঁও-ভাটেরাবাজার সেকশনের ২৯নং সেতু এবং মনতোলা-ইটাখোলা সেকশনের ৫৬ নম্বর সেতু। সেতু সংস্কারের কোনো প্রকল্প না থাকায় এগুলোর সংস্কার সম্ভব হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন রেলওয়ের কর্মকর্তারা।
রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের বিভাগীয় তত্ত্বাবধায়ক (কারখানা) কাজী মোহাম্মদ ওমর ফারুক বলেন, বগিগুলো পুরোনো বলা যাবে না। বিভিন্ন সময় বগিগুলো যুক্ত করা হয়েছে। তার ওপর যাত্রীদের চাপ থাকলেও এই এলাকায় নেই রেলের পর্যাপ্ত কোচ। উল্টো দিনে দিনে কমিয়ে দেয়া হচ্ছে কোচ।
সিলেট বিভাগীয় নাগরিক আন্দোলনের নেতা আব্দুল করিম কিম জানান, দেশের অন্যসব জায়গায় রেললাইন উন্নত করা হলেও সিলেট রুট অদৃশ্য কারণে সেই ছোঁয়া পায়নি। সম্পাদনা : মুরাদ হাসান, ওমর ফারুক




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]