• প্রচ্ছদ » লিড ১ » পেঁয়াজের লাগামহীন বৃদ্ধি, কেজি ২৫০ নিয়ন্ত্রণে বিমানে পেঁয়াজ আনার সিদ্ধান্ত


পেঁয়াজের লাগামহীন বৃদ্ধি, কেজি ২৫০ নিয়ন্ত্রণে বিমানে পেঁয়াজ আনার সিদ্ধান্ত

আমাদের নতুন সময় : 16/11/2019


লাইজুল ইসলাম, বাশার নুরু : রাজধানীর কাঁচাবাজারে লাগামহীনভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে পেঁয়াজের দাম। গতকালই সরকার দেশে পেঁয়াজের সরবরাহ ও মূল্য স্বাভাবিক রাখতে কাল রোববার থেকে জরুরিভিত্তিতে কার্গো বিমানে করে পেঁয়াজ আমদানির সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সরকারিভাবে টিসিবি তুরস্ক এবং বেসরকারি খাতের এস আলম গ্রুপ মিশর থেকে পেঁয়াজ আনবে।
বাণিজ্য সচিব ড. জাফর উদ্দিন গতকাল শুক্রবার বিকেলে এই সিদ্ধান্তের কথা জানান। তিনি বলেন, যতদিন পর্যন্ত বাজার স্বাভাবিক না হবে, ততদিন এয়ার কার্গোতে পেঁয়াজ আমদানি করা হবে। সরকারিভাবে পেঁয়াজ আমদানির জন্য একজন উপসচিবকে তুরস্কে পাঠানো হচ্ছে। একজন উপসচিব মিশরে রয়েছেন।
বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, দেশে পেঁয়াজের সরবরাহ ও মূল্য স্বাভাবিক রাখতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে টিসিবির মাধ্যমে সরাসরি তুরস্ক থেকে, এস আলম গ্রুপ মিশর থেকে এবং বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান আফগানিস্থান ও সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে জরুরিভিত্তিতে কার্গো উড়োজাহাজ যোগে পেঁয়াজ আমদানি করবে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় আনুষ্ঠানিকতা ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। অতি অল্প সময়ের মধ্যে পর্যাপ্ত পেঁয়াজ বাজারে সরবরাহ করা সম্ভব হবে। এছাড়া সমুদ্র পথে আমদানিকৃত পেঁয়াজ বাংলাদেশের পথে রয়েছে, পেঁয়াজের সবচেয়ে বড় এই চালান খুব শিগগিরই বাংলাদেশে পেীঁছাবে। আমদানিকারকদের উৎসাহিত করতে পেঁয়াজ আমদানি ক্ষেত্রে এলসি মার্জিন এবং সুদের হার হ্রাস করা হয়েছে। স্থল ও নৌ বন্দরগুলোতে আমদানিকৃত পেঁয়াজ দ্রুত ও অগ্রাধিকার ভিত্তিতে খালাসের জন্য জাতীয় রাজস্ব বোর্ড ও বন্দর কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। সে মোতাবেক অগ্রাধিকার ভিত্তিতে আমদানিকৃত পেঁয়াজ খালাস করা হচ্ছে বলে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।
উল্লেখ্য, ভারত পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করার পর থেকে দেশের পেঁয়াজের বাজার চড়া। গেলো কয়েক সপ্তাহে ৮০ থেকে ১৩০ টাকায় দেশি ও বিদেশী পেঁয়াজ পাওয়া গেলেও এখন বিক্রি হচ্ছে ২৫০ টাকায়। কারওয়ান বাজারের পাইকারি বাজারের পেঁয়াজ বিক্রেতা কামাল মিয়া জানান, ২৪০ টাকায় প্রতিকেজি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে। সেই হিসেবে প্রতি পাল্লা (৫ কেজি) পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১২০০ টাকা দরে। সে হিসেবে প্রতি কেজি পেঁয়াজের দাম দাঁড়ায় ২৪০ টাকা। এই পেঁয়াজ খুচরা বাজারে গিয়ে বিক্রি হচ্ছে ২৫০টাকা থেকে ২৬০ টাকায়। দাম আরও বাড়ার আশঙ্কা করছেন ব্যবসায়ীরা।
এদিকে গেলো এক সপ্তাহের মধ্যে চালের দাম কেজি প্রতি ৫ টাকা বেড়ে যাওয়াকে অস্বাভাবিক বলে মনে করেন ক্রেতারা। বলেন, যে যেভাবে ইচ্ছা কারসাজি করছে। তবে এই কথা মানতে নারাজ চাল ব্যবসায়ীরা। তারা বলছেন, উত্তরাঞ্চলের ধান-চালের সবচেয়ে বড় মোকাম নওগাঁয়। সেখানেই এক সপ্তাহের ব্যবধানে চিকন চালের দাম প্রতি কেজিতে ৪ থেকে ৫ টাকা বেড়েছে। আর বস্তাপ্রতি (৫০ কেজি) বেড়েছে প্রায় ২০০ টাকা। বাজারে জিরাশাইল ও বিরি-২৮ জাতের ধানের সরবরাহ কমায় চালের দাম বেড়েছে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।
সকালে রাজধানীর দুটি বাজারে শীতের সবজি দেখা গেলেও দাম ছিলো চড়া। প্রতিকেজি সিম বিক্রি হচ্ছে ৭০ টাকা, টমেটো ১০০-১১০ টাকা, বেগুন ৭০ টাকা, গাজর ১০০ টাকায়। এছাড়া ঝিঙ্গা ৬০-৭০ টাকা ও পাতাকপি প্রতি পিস ৪০ টাকা, মুলা ৪০-৪৫ টাকা, ঢেঁড়স ৬০-৭০ টাকা ও কাঁচা মরিচ ২০০ গ্রাম ১৫ থেকে ২০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। তবে এসবের মধ্যে শশার দাম অন্যদিনের তুলনায় ছিল অনেক বেশি। প্রতিকেজি শশা বিক্রি হচ্ছে ১০০-১৩০ টাকায়। সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]