বিদেশ থেকে পেঁয়াজ আসার খবরে কমছে দাম

আমাদের নতুন সময় : 18/11/2019

লাইজুল ইসলাম : রাজধানীসহ দেশের পাইকারি ও খুচরা বাজারে পেঁয়াজের দাম কমতে শুরু করেছে। বিক্রেতারা কেজি প্রতি ২০০ টাকার কমে পেঁয়াজ বিক্রি করতে শুরু করেছেন। তবে ক্রেতা না থাকায় অলস সময় পার করতেও দেখা গেছে ব্যবসায়ীদের। বিপরীতে অতিরিক্ত দামে কেনা পেঁয়াজ মজুদ করে অতি মুনাফালোভী ব্যবসায়ীরা পড়েছেন বিপাকে।
গত ২৯ সেপ্টেম্বর ভারত পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করলে অস্থির হয়ে ওঠে দেশের পেঁয়াজের বাজার। কেজি প্রতি প্রায় অর্ধশত টাকার পেঁয়াজ লাফ দিয়ে শতক ছাড়ায়। এরপরই দেশের পাইকারি ও খুচরা বাজারে হু হু করে দাম বাড়তে থাকে পঁচনশীল দ্রব্য পেঁয়াজের। এছাড়া ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের কারণেও বাড়ে পেঁয়াজেন দাম। একপর্যায়ে দাম গিয়ে দাঁড়ায় প্রায় ৩০০ টাকায়।
গতকাল সকালে রাজধানীর মগবাজার ও তেজগাঁও কলোনীবাজার এলাকা ঘুরে ২১০ থেকে ২২০ টাকায় প্রতি কেজি পেঁয়াজ বিক্রি করতে দেখা গেছে। মগবাজারের মুদি দোকানি সোহেল মিয়া বলেন, কেনা দামের চেয়ে কিছু বেশিতে পেঁয়াজ বিক্রি করছি। এখন আর কেজি দরে কেউ পেঁয়াজ কেনে না। অল্প করে কিনে। মাহফুজ হোসেন নামের একজন ক্রেতা বলেন, সরকারের কথা ঠিক থাকলে আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই পেঁয়াজের দাম কমে যাবে।
কলোনী বাজারের ব্যবসায়ীরা বলেন, চড়া দামের কারণে পেঁয়াজের ব্যবহার কমেছে। আর সরবরাহ আসার খবর ও বিভিন্ন বাজারে ম্যাজিস্ট্রেটের অভিযানের পর দাম আরও কিছুটা কমেছে।
রাজধানীর অন্যতম পাইকারি বাজার কারওয়ান বাজারে প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ ১৮০ থেকে ২০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। মিসর ও মিয়ানমারের পেঁয়াজের দাম আগের চেয়ে আরো কমে কেজি প্রতি ১৭০ থেকে ১৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। কিন্তু এখনো কতিপয় অসাধু ব্যবসায়ী বোর্ডে বেশি দাম লিখে রেখেছেন। ব্যবসায়ীরা বলছেন, পেঁয়াজ পঁচে যাওয়ার চিন্তায় আছি। কয়েকদিনের মধ্যেই দাম আরও কমবে। কারওয়ান বাজারে প্রায় একযুগের পেঁয়াজ ব্যবসায়ী সহিদুল ইসলাম বলেন, শ্যামবাজরে দাম বাড়ার পর গ্রামের হাঁট থেকে পেঁয়াজ কেনেন কেজি প্রতি ২০০ টাকায়। কিন্তু ক্রেতা সঙ্কটে ১৯০ টাকায়ও পেঁয়াজ বিক্রি করতে পারছেন না। সাদ্দাম নামের অপর ব্যবসায়ী জানান, তিনি চায়না পেঁয়াজ বিক্রি করছেন। গতকাল সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ক্রেতা না থাকায় এক কেজি পেঁয়াজও বিক্রি করতে পারেননি।
এদিকে, পাইকারি বিক্রির জন্য খ্যাত পুরান ঢাকার শ্যামবাজারে পেঁয়াজের দাম আরও কমেছে। গতকাল কেজি প্রতি দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হয় ১৭৫ টাকায়। আর মিয়ানমারের ভালো মানের পেঁয়াজ বিক্রি হয় ১৬০-১৭০ টাকা কেজি দরে। আড়তদাররা বলেন, ভোক্তারা খাওয়া কমানো ও বিমানে করে আসায় পাইকারি বাজারে পেঁয়াজের দাম কমেছে। সম্পাদনা : রমাপ্রসাদ বাবু




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]