শিল্পঋণে ধুঁকছে ব্যাংক খাত

আমাদের নতুন সময় : 18/11/2019

বিশেষ প্রতিনিধি : শিল্প খাতে ব্যাংকগুলোর দেয়া ঋণের পরিমাণের সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে খেলাপীর পরিমাণও। অপর দিকে বড় শিল্পের মালিকদের অনেকেই উচ্চ আদালতের স্থগিতাদেশসহ নানা সুবিধা নিয়ে খেলাপি দেখানো থেকে বিরত থাকেন। ফলে কাগজে কলমে শিল্প খাতের ঋণখেলাপির যে পরিসংখ্যান দেখানো হয় তা বাস্তবে আরো বেশি।
উল্লেখ্য, বিদ্যুৎ, ওষুধ, পোশাক শিল্প ও পরিবহন খাতে বিতরণকৃত ঋণকে শিল্পঋণের মধ্যে ধরা হয়।
বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিসংখ্যানুযায়ী, (২০১৮-১৯) অর্থবছরে বিতরণ করা শিল্পঋণের খেলাপি বেড়েছে ৪৮ শতাংশ। এ সময়ে শিল্পখাতে খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৫৭ হাজার ২০০ কোটি টাকা। যা আগের অর্থবছরে এই ঋণের পরিমাণ ছিল ৩৮ হাজার ৪৯৯ কোটি টাকা।
২০১৮-১৯ অর্থবছরে পুন:তফসিল করা ঋণের বেশিরভাগই খেলাপি হয়ে গেছে। খেলাপি ঋণ পুন:তফসিলের সুবিধা নিয়েও তারা তাদের বৃত্ত থেকে বের হচ্ছেন না। অন্যদিকে, শিল্পখাতে চলতি মূলধন ও মেয়াদি ঋণ বিতরণ বেড়েছে ১৫ শতাংশ। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে মোট বিতরণ করা শিল্পঋণের পরিমাণ ছিল ৩ লাখ ৯৯ হাজার ৮৫৭ কোটি টাকা। এর আগের অর্থবছরে এর পরিমাণ ছিল ৩ লাখ ৪৬ হাজার ৩৯৭ কোটি টাকা।
বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রকাশিত সর্বশেষ প্রতিবেদন বলছে, ২২টি বাণিজ্যিক ব্যাংক ও ব্যাংক-বহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠানের মোট অনাদায়ী খেলাপি ঋণের পরিমাণ ১৫ শতাংশ। গেলো অর্থবছরে শিল্পখাতে মোট অনাদায়ী খেলাপি ঋণের পরিমাণ ৫ লাখ ২ হাজার ৭৩৩ কোটি টাকা। এক বছর আগেও যার পরিমাণ ছিল ৪ লাখ ৩ হাজার ২৬৪ কোটি টাকা।
বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, সরকারি-বেসরকারি প্রায় ২৪টি ব্যাংক থেকে ১৫ হাজার ২১৭ কোটি টাকা পুনঃতফসিলের সুবিধা নিয়েছিল বিভিন্ন শিল্প গ্রুপ। নিয়মিত ঋণ পরিশোধ না করায় ব্যাংকগুলোর পুঞ্জীভূত খেলাপি ঋণ বেড়ে যাচ্ছে। যার কারণে বেশ কিছু ব্যাংক নিরাপত্তা সঞ্চিতি (প্রভিশন) ঘাটতিতে পড়েছে।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]