শ্রীলঙ্কার নতুন প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নিলেন চীনপন্থী গোটাবায়া রাজাপাকসে

আমাদের নতুন সময় : 18/11/2019

আসিফুজ্জামান পৃথিল : গোটাবায়ই শ্রীলঙ্কার ইতিহাসের প্রথম অবসরপ্রাপ্ত সামরিক কর্মকর্তা যিনি প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পেলেন। তামিল বিরোধী অভিযানের হিরো হিসেবেই তাকে চেনে সিংহলীরা। রাজনৈতিক জীবনে খানিকটা চীনঘেঁষা বলে পরিচিত গোটাবায়া সামরিক জীবনে কঠোরতার জন্য পরিচিত ছিলেন টার্মিনেটর নামে। আল জাজিরা।
গতকাল সোমবার গোটাবায়া রাজাপাকসেকে প্রেসিডেন্ট হিসাবে শপথ পাঠ করার প্রধান বিচারপতি জয়ন্ত জয়সুরিয়া। তবে প্রেসিডেন্ট ভবনে নয়, গোটাবায়া রাজাপাকসে শপথ নেন উত্তর মধ্য শ্রীলঙ্কায় অবস্থিত ১৪০ খ্রীষ্টপূর্বাব্দের একটি বৌদ্ধ মন্দিরে। এরপর জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দেন নতুন প্রেসিডেন্ট। তিনি নিজ ভাষণে জোর দিয়েছেন জাতীয় নিরাপত্তার বিষয়ে। এছাড়াও তিনি জানান, তার মেয়াদে একটি নিরপেক্ষ পররাষ্ট্রনীতি মেনে চলা হবে। ৭০ বছর বয়সী এই নেতা বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, ‘এই নির্বাচনের প্রধান বার্তা ছিলো, সিংহলীরাই এদেশের সংখ্যাগুরু। তাদের ভোটেই আমি নির্বাচিত হয়েছি। আমি আগেই জানতাম আমি সিংহলীদের ভোটেই নির্বাচিত হবো। তবে আমি তামিল আর মুসলিমদেরকেও বলেছিলোম আমার সাফল্যের অংশ হবার সুযোগ নিতে। কিন্তু তারা আমার আশামতো আচরণ করেনি। তবুও বলবো তারা যেনো আমার সঙ্গে একটি একক শ্রীলঙ্কা গড়তে কাজ করে।’
গোটাবায়া রাজাপাকসের নির্বাচিত হওয়া নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন শ্রীলঙ্কার মানবাধিকার কর্মীরা। তাদের অভিযোগ গোটাবায়া রাজাপাকসে একজন সাম্প্রদায়িক ও জাতিবিদ্বেষী মানুষ। যা পুরো নির্বাচনী প্রচারণা জুড়েই ছিলো সিংহলি শ্রেষ্ঠত্ববাদের জয়গান। এছাড়াও বৌদ্ধ শ্রেষ্ঠত্ববাদ প্রতিষ্ঠার চেষ্টার তার মধ্যে সবসময়ই দেখা গেছে। নির্বাচিত হয়েই মন্দিরে শপথ গ্রহণ করে তিনি এই মতবাদ আরও প্রতিষ্ঠিত করেছেন। সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]