• প্রচ্ছদ » সর্বশেষ » সড়ক আইন কার্যকরে বিআরটিএর ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান, ৮৮ মামলা ও জরিমানা


সড়ক আইন কার্যকরে বিআরটিএর ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান, ৮৮ মামলা ও জরিমানা

আমাদের নতুন সময় : 18/11/2019


ইসমাঈল ইমু : গত ১ নভেম্বর থেকে নতুন সড়ক পরিবহন আইন কার্যকর হওয়ার কথা থাকলেও গত রোববার থেকে তার প্রয়োগ শুরু করেছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ- বিআরটিএ। এ লক্ষ্যে গতকাল সোমবার সকাল থেকে রাজধানীর উত্তরা, বনানী, মতিঝিল, মিরপুর, যাত্রাবাড়ী ও মানিক মিয়া এভিনিউ এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ৮৮ মামলা এবং ১ লাখ ২১ হাজার হাজার ৯০০ টাকা জরিমানা আদায় করে।
মানিক মিয়া এভিনিউ এলাকায় দু’টি পৃথক ভ্রাম্যমাণ আদালতে মোট ৩০টি মামলা এবং সাড়ে ২৭ হাজার টাকা জরিমানা করে। এর মধ্যে আদালত-৮ এর অধীনে ১০টি মামলা এবং সাড়ে ১২ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। তিনটি ধারায় এক পরিবহনকে সর্বোচ্চ ৫ হাজার এবং একটি ধারায় সর্বনিম্ন ৫০০ টাকা জরিমানা করা হয়। অন্যদিকে আদালত-৭ এ ২০টি মামলা ও ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। সর্বোচ্চ জরিমানা করা হয় ৫০০ টাকা।
এ বিষয়ে বিআরটিএর আদালত-৮ এর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারাহ সাদিয়া তাজনীন বলেন, প্রথম দিন হিসেবে জরিমানার ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ প্রয়োগ না করে সচেতনতার জন্য আইনের মধ্যে থেকেই কম জরিমানা করা হয়েছে। জরিমানা ও মামলা করার ক্ষেত্রে দেখা গেছে, অধিকাংশ যানবাহনের রেজিস্ট্রেশন বা কাগজপত্র ঠিক থাকলেও ফিটনেস নেই, সংরক্ষিত সিটের নিয়ম অনুসরণ করা হয়নি। কোনো কোনো ক্ষেত্রে অনুমোদিত সিটের বাইরে অতিরিক্ত সিট বসানো হয়েছে। ভাড়ার তালিকা নির্ধারিত স্থানে নেই। চালকের ক্ষেত্রে লাইট (হালকা) লাইসেন্স নিয়ে ভারি যানবাহন চালাতে দেখা গেছে, যা নতুন আইনের ব্যত্যয়। তাই মামলা ও জরিমানা করা হয়েছে।
মানিক মিয়া এভিনিউয়ের বিপরীত লেনে ভ্রাম্যমাণ আদালত-৭ এর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদ হাসান পাটোয়ারী বলেন, অভিযানে নতুন আইনের প্রয়োগের পাশাপাশি জনসচেতনতাকে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। তবে গাড়ির ফিটনেস না থাকা, ট্যাক্স টোকেন না থাকা, হালকা ড্রাইভিং লাইসেন্স নিয়ে ভারি পরিবহন চালানোয় মামলা ও জরিমানা করা হয়েছে।
বিআরটিএর পরিচালক (এনফোর্সমেন্ট) এ কে এম মাসুদুর রহমান বলেন, গত ১৮ দিন জনসচেতনতার জন্য আমরা প্রচার-প্রচারণা চালিয়েছি। প্রথম দিন হিসেবে আমরা আইনের সর্বোচ্চ প্রয়োগ না করে সহনীয় মাত্রায় জরিমানা ও মামলা করেছি, কাউকে জেল দেয়া হয়নি। যাতে করে মানুষ সচেতন হয়। তবে ধীরে ধীরে আইনের সর্বোচ্চ ও যথাযথ প্রয়োগ করা হবে। সম্পাদনা : রমাপ্রসাদ বাবু




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]