• প্রচ্ছদ » সর্বশেষ » চীনে ভয়ংকর প্রজাতির প্লেগের প্রাদুর্ভাব, বিশ^জুড়ে আতঙ্ক, বিশ^ স্বাস্থ্য সংস্থার সতর্কতা


চীনে ভয়ংকর প্রজাতির প্লেগের প্রাদুর্ভাব, বিশ^জুড়ে আতঙ্ক, বিশ^ স্বাস্থ্য সংস্থার সতর্কতা

আমাদের নতুন সময় : 19/11/2019

আসিফুজ্জামান পৃথিল : আতঙ্ক ঠেকাতে চীন সরকার নানা ধরণের উদ্যোগ হাতে নিলেও কার্যক্ষেত্রে না প্রায়শই বিফল হচ্ছে। চীনে দুইজন ব্যক্তি সবচেয়ে খারাপ ধরণের প্লেগে আক্রান্ত হওয়ার পর জানা গেছে এখনও প্রতিবছর বিশে^ ১ থেকে ২ হাজার জন প্লেগে আক্রান্ত হন। বিশ^ স্বাস্থ্য সংস্থা-হু জানিয়েছে, যেনো প্লেগ মহামারি আকার ধারণ না করে, তারা সেজন্য বিভিন্ন ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। সিএনএন, শিনহুয়া, ফরেন পলিসি। ৩ নভেম্বর চীনে প্রথম প্লেগের রোগীর সন্ধান মেলে রাজধানী বেইজিং-এ চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, এটি কোনও সাধারণ প্লেগ নয়। এটি সে ধরণের প্লেগ যা ছিলো ব্ল্যাকডেথ মহামারির কারণ। মধ্যযুগে এই মহামারতে ইউরোপের জনসংখ্যা এক তৃতিয়াংশ হ্রাস পেয়েছিলো। চীনে নিউমোনিক প্লেগের দুজন রোগীকে সঙ্গে সঙ্গে আলাদা করে ফেলা হয়েছে। তবে আতঙ্ক ছড়িয়েছে অন্য কারণে দেশটিতে গত মাসেই বিউবোনিক প্লেগে মারা যান দুজন ব্যক্তি। চিকিৎসকরা বলছেন, প্রত্যন্ত এলাকায় এ ধরণের আরও ঘটনা ঘটে থাকতে পারে। কারণ প্রত্যন্ত এলাকার অনেক ঘটনার প্রতিবেদনও দাখিল হয়না।
প্লেগের খবর প্রকাশের পর বিশ^ স্বাস্থ্য সংস্থ্য জানিয়েছে, প্রতিবছর বিশ^জুড়ে এক থেকে দেড় হাজার মানুষ প্লেগে আক্রান্ত হয়। এমনকি যুক্তরাষ্ট্রও প্লেগমুক্ত নয়। সেদেশে প্রতিবছর কমপক্ষে ৭ জন ব্যক্তি প্লেগে আক্রান্ত হন। দেশটির সেন্টার ফর ডিজিস কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন এই তথ্য জানিয়েছে। তবে সবচেয়ে বেশি প্লেগ হয় কঙ্গো, মাদাগাস্কার ও পেরুতে। ২০১৭ সালে মাদাগাস্কারে এই রোগ প্রায় মহামারি আকার ধারণ করলে আক্রান্ত হয় ২ হাজার ৩৫০ জন। আর মারা যায় ২০০ জনের বেশি। এরপর অবশ্য বড় ধরণের প্লেগ প্রাদুর্ভাবের কথা জানা যায়নি। সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]