• প্রচ্ছদ » শেষ পাতা » অ্যান্টিবায়োটিক মানুষের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ৩৩ শতাংশ কমিয়ে দিচ্ছে জানালেন অধ্যাপক ডা. সায়েদুর রহমান


অ্যান্টিবায়োটিক মানুষের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ৩৩ শতাংশ কমিয়ে দিচ্ছে জানালেন অধ্যাপক ডা. সায়েদুর রহমান

আমাদের নতুন সময় : 20/11/2019

শাহীন খন্দকার : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ফার্মাকোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা.সায়েদুর রহমান অ্যান্টিবায়োটিক নিয়ে তারঁ করা গবেষণার ফলাফল সর্ম্পকে জানাতে গিয়ে এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি আরও জানান, মাত্র দুই বছরের ব্যবধানে মানুষের শরীরে সালমোনেলা ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধে সিপ্রোফ্লেক্লাসিন অ্যান্টিবায়োটিক ওষধের কার্যকারিতা হারিয়েছে ৩৩ শতাংশ। আর ইকোলাই ব্যাটেরিয়ার বিরুদ্ধে সেফট্রিআক্রোন অ্যান্টিবায়োটিকের কার্যকারিতা হারিয়েছে ২৮ শতাংশ।
সারা বিশে^র মতো গতকাল সোমবার থেকে বাংলাদেশেও শুরু হয়েছে অ্যান্টিবায়োটিক সচেতন সপ্তাহ, চলবে আগামী ২২ নভেম্বর পর্যন্ত । এবারের মূল প্রতিপাদ্য হচ্ছে‘ আমাদের ওপর নির্ভর করবে অ্যান্টিবায়োটিকের ভবিষৎ’। এ উপলক্ষে অন্য একটি গবেষণার তথ্যের সুত্রধরে ডা. সায়েদুর বলেন, দেশের হাসপাতালগুলোতে ও অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যবহার বাড়ছে। এর মধ্যে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালগুলোতে শিশু বিভাগের ৯৬ শতাংশ রোগিকে অ্যান্টিবায়োটিক ঔষধ দেয়া হয়। মেডিসিন বিভাগের ৫৪ শতাংশ রোগি এবং ৮১ শতাংশ সার্জারি রোগিকে অ্যান্টিবায়োটিক দেয়া হয়। এছাড়া চিকিৎসকরা নিজস্ব চেম্বারে প্রায় ৫০ শতাংশ রোগিকে অ্যান্টিবায়োটিক সেবনের পরামর্শ দেন। এমনকি প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রগুলোতে আসা ২৫ শতাংশ রোগিকে অ্যান্টিবায়োটিক ঔষধের পরামর্শ দেয়া হয় বলে ওই গবেষণায় উলে।লখ করা হয়েছে। মানুষকে অপ্রয়োজনে বা ভুলভাবে অ্যান্টিবায়োটিক দেয়া হচ্ছে, যাদের অনেকের অ্যান্টিবায়োটিকের প্রয়োজনই নেই। ভবিষ্যতে এমন অবস্থা দাঁড়াবে যেখানে সেলফভর্তি অ্যান্টিবায়োটিক থাকবে, কিন্তু কোনো কার্যকারিতা থাকবে না। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া অ্যান্টিবায়োটিক গ্রহণের পরিমাণ অনেক বেশি। তিনি বলেন, বাংলাদেশে প্রতিদিন ১০ লাখ মানুষ অপচিকিৎসক কিংবা অপ্রশিক্ষিত ব্যক্তির পরামর্শে অ্যান্টিবায়োটিক গ্রহণ করে থাকেন। আর বছরে সাড়ে ৩৬ কোটি মানুষ দুই থেকে তিনবার বিভিন্ন দোকান থেকে অ্যান্টিবায়োটিক কিনে থাকেন। বাংলাদেশে দুই থেকে আড়াই লাখ ফার্মেসি আছে, যাদের বড় অংশই অনিবন্ধিত।
অধ্যাপক সায়েদুর রহমান বলেন, অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধী অবস্থা থেকে দেশকে ও দেশের মানুষকে নিরাপত্তা দিতে হলে অবশ্যই নিবন্ধিত চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র ছাড়া অ্যান্টিবায়োটিক বিক্রি করা বন্ধ করতে হবে। জনসচেতনতা তৈরির লক্ষ্যে সব ধরনের অ্যান্টিবায়োটিকের প্যাকেট লাল রঙের করা যেতে পারে। যাতে করে প্যাকেট দেখেই সবাই বুঝতে পারে এটা অ্যান্টিবায়োটিক। এটি ব্যবস্থাপত্র ছাড়া কেনা বা বিক্রি নিষিদ্ধ। এ ছাড়া অ্যান্টিবায়োটিকের প্যাকেটে কমপক্ষে ততগুলো ওষুধ রাখতে হবে যাতে একটি কোর্স সম্পন্ন হয়। তাহলেও অ্যান্টিবায়োটিকের অতি ব্যবহার এড়ানো সম্ভব। সম্পাদনা : খালিদ আহমেদ




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]