• প্রচ্ছদ » সর্বশেষ » বিবিসির তদন্তে মধ্যপ্রাচ্যে ‘পরিচারিকা বাণিজ্য’ ও শিক্ষণীয়


বিবিসির তদন্তে মধ্যপ্রাচ্যে ‘পরিচারিকা বাণিজ্য’ ও শিক্ষণীয়

আমাদের নতুন সময় : 21/11/2019


মোহাম্মদ আলী বোখারী, টরন্টো থেকে : সম্প্রতি সৌদি আরবে যাওয়া বাংলাদেশি গৃহপরিচারিকা সুমীর হৃদয়বিদারক আহাজারি গণমাধ্যমের বদৌলতে জাতি জেনেছে। এমনকী ব্রিটিশ পত্রিকা ডেইলি মেইল ফরাসী বার্তা সংস্থা এএফপির বরাতে তাকে নিয়ে লিখেছে: ‘সৌদি চাকরিদাতা কর্তৃক গরম তেলে হাত ঝলসানো, যৌননির্যাতিত ও পনের দিনের গৃহবন্দি পরিচারিকা তার আর্তনাদ গোপনে ধারণ করেছে।’
সর্বশেষ, গত ১৯ নভেম্বর বিকেলে বিশ্বব্যাপি সম্প্রচারিত বিবিসি টেলিভিশন তাদের ‘আওয়ার ওয়ার্ল্ড’ অনুষ্ঠানে দেখিয়েছে যে, গুগল, অ্যাপল ও ফেসবুকের মালিকানাধীন ইন্সটাগ্রাম অনলাইনে অবৈধ অ্যাপের মাধ্যমে মধ্যপ্রাচ্যে গৃহপরিচারিকা বাণিজ্যের পথটি সুগম করেছে।

এতে বিবিসি আরবী বিভাগের অনুসন্ধানে দেখা গেছে, স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক আইনের তোয়াক্কা না করে কুয়েতে আধুনিক দাসত্ব বাণিজ্য রমরমা হয়ে ওঠেছে, এমনকী শিশু কেনা-বেচার কাজটিও চলছে অবাধে। ওই অনুসন্ধানে কুয়েতে নিখোঁজ ‘ফাতু’ নামের এক পরিচারিকাকে বহু তল্লাশি চালিয়ে শেষটায় তার নিজ দেশ পশ্চিম আফ্রিকার গিনিতে ফেরত পাঠানো সম্ভব হয়েছে। আর ওই ঘটনাটিই প্রতিবেদনটির মুখ্য বিষয়বস্তু, যাকে ‘সিলিকন ভ্যালিজ অনলাইন স্লেভ মার্কেট’ বা ‘সিলিকন ভ্যালির দাসত্ব বাণিজ্য’ বলা হয়েছে।

তাতে বাংলাদেশের জন্য প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের তথ্যানুসারে তুলনামূলক দৃশ্যপটটি হচ্ছে, ১৯৯১ সাল থেকে এ পর্যন্ত প্রায় ৩ লাখ নারী কর্মসংস্থানের আশায় গৃহপরিচারিকা হিসেবে মধ্যপ্রাচ্যে গেছেন। স্বভাবতই তারা বিপুল অংকের বৈদেশিক মুদ্রা উপার্জন করে দেশে পাঠিয়েছেন। বরং সুমীর ক্ষেত্রে তা ঘটেনি এবং সে জন্য সরকার রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত জনশক্তি রপ্তানি কর্তৃপক্ষকে তাকে ফিরিয়ে আনার নির্দেশ দেয়, যদিও এনজিও প্রতিষ্ঠান ব্র্যাক সেই দায়িত্বটি পালনে সচেষ্ট হয়।
ওই প্রেক্ষাপটে পররাষ্ট্র মন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন জানিয়েছেন, সরকার কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে সৌদি আরবে নারী শ্রমিক প্রেরণ বন্ধ করবে না। তিনি সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘কিছু মানুষের প্রতি নিষ্ঠুরতা সৌদি আরব স্বীকার করেছে। কিন্তু সেটা মুষ্টিমেয় মানুষের প্রতি ঘটেছে এবং সৌদি সরকারের তাতে কোনো হাত নেই।’
তাই বিবিসির আলোচ্য অনুসন্ধানী প্রতিবেদন থেকে বাংলাদেশের জন্য বোধ করি কিছুটা হলেও শিক্ষণীয় রয়েছে?




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]