• প্রচ্ছদ » শেষ পাতা » যুবলীগের কংগ্রেস, নতুন নেতৃত্ব খুঁজছে আওয়ামী লীগের হাই কমান্ড


যুবলীগের কংগ্রেস, নতুন নেতৃত্ব খুঁজছে আওয়ামী লীগের হাই কমান্ড

আমাদের নতুন সময় : 21/11/2019

জয়ন্ত আচার্য : আওয়ামী লীগের সবচেয়ে শক্তিশালী সহযোগী সংগঠন যুবলীগের আগামী কংগ্রেসকে কেন্দ্র করে উৎসবে আমেজ বিরাজ করছে। আগামী কংগ্রেসের মাধ্যমে ক্যাসিনো সহ নানা বির্তকের জালে আটকে পড়া যুবলীগকে ঢেলে সাজাতে নতুন নেতৃত্ব খুঁজছে আওয়ামী লীগের হাই কমান্ড। এবারের সম্মেলনে সেই নতুন মুখ দেখার অপেক্ষায় দলীয় নেতাকর্মীরা। সূত্র জানায়, ক্লিন ইমেজের বর্তমান যুবলীগ ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতাদের প্রাধান্য দিয়েই আগামীতে দিনে যুবলীগ সাজানোর পরিকল্পনা করা হচ্ছে। যুবলীগের সাবেক চেয়ারম্যান ওমর ফারুককে দল থেকে বহিস্কৃত করার পরই ২০ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে তার সরকারী বাসভবন গণভবনে যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির প্রতিনিধি দলের বৈঠকে সপ্তম কংগ্রেসের প্রস্তুতি কমিটি গঠিত হয়। প্রেসিডিয়াম সদস্য চয়ন ইসলামকে আহ্বায়ক এবং সাধারণ সম্পাদক মো. হারুনুর রশীদকে সদস্য সচিব করা হয়। কার্যত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত শুদ্ধি অভিযানে সংগঠনটির এখন অনেকটা বেহাল অবস্থা। চলমান ক্যাসিনো বিরোধী অভিযানে গ্রেফতার হয়েছেন সংগঠনটির বেশ কয়েকজন প্রভাবশালী নেতা। কেন্দ্রীয় দফতর সম্পাদকসহ আত্মগোপনে রয়েছেন বেশ কয়েকজন নেতা । এমন পরিস্থিতিতে বর্তমান যুবলীগ ও ছাত্রলীগের সাবেক স্বচ্ছ ও ত্যাগি নেতারা কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের লড়াইয়ে নেমেছেন।
সর্বশেষ ২০১২ সালের ১৪ জুলাই বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের ষষ্ঠ জাতীয় কংগ্রেস অনুষ্ঠিত হয়। কংগ্রেসে চেয়াররম্যান পদে ওমর ফারুক চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক পদে মো. হারুনুর রশিদ নির্বাচিত হন। ১৪৯ সদস্যবিশিষ্ট এই কমিটিতে চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীর অনেকটাই একচ্ছত্র অধিপত্য ছিল।
সূত্র জানায়, আগামী ২৩ নভেম্বর ঘোষিত কংগ্রেস সফল করতে চলছে সর্বাত্মক প্রস্তুতি। যুবলীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে চলছে নেতা কর্মীদের সরব উপস্থিতি। সম্মেলন সফল করতে ১১টি উপকমিটি করা হয়েছে। এবারের কংগ্রেসে নেতৃত্বের বয়স সীমাও ৫৫ বছরের মধ্যে নির্ধারন করে দেওয়া হয়েছে। কংগ্রেসে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থাকবেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি সারা দেশ থেকে আগত যুবলীগ কাউন্সিলার ও ডেলিগেটদের প্রতি দিক নিদের্শনা মূলক ভাষণ দিবেন।
আগামী কংগ্রেসে যুবলীগের চেয়ারম্যান পদে আলোচনায় আছেন এক ডজনেরও বেশী নেতা। এদের মধ্যে যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শেখ ফজলুল হক মণির ছেলে শেখ ফজলে শামস পরশ ও তার ছোট ভাই ঢাকা-১০ আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস, বর্তমান কমিটির সদস্য ও এফবিসিসিআই এর বর্তমান সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম, প্রেসিডিয়াম সদস্য অ্যাডভোকেট বেলাল হোসেন, প্রেসিডিয়াম সদস্য মো. ফারুক হোসেন, যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মির্জা আজম, প্রেসিডিয়াম সদস্য মাহবুবুর রহমান হিরণ, আতাউর রহমান, অ্যাডভোকেট সাইদুর রহমান শহিদ ।
আর সাধারণ সম্পাদক পদে যারা আলোচনায় আছেন তারা হলেন- বর্তমান কমিটির যুবলীগের প্রথম যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সমবায় ব্যাংকের চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন আহমেদ মহি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুর আলম শাহীন, সুব্রত পাল, অর্থ সম্পাদক সুভাষ চন্দ্র হালদার, সাংগঠনিক সম্পাদক মুহাম্মদ বদিউল আলম ও ফারুক হাসান তুহিন, সহ সম্পাদক ও ছাত্রলীগ সাবেক নেতা তাজউদ্দীন আহমেদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য ও ঢাকা মহানগর উত্তর যুবলীগের সাবেক সভাপতি আবুল বাশার, ঢাকা মহানগর উত্তর শাখার বর্তমান সভাপতি মাইনুল হোসেন খান নিখিল, কেন্দ্রীয় সদস্য শেখ ফজলে নাঈম।
যুবলীগকে ঢেলে সাজানো উদ্যোগে ছাত্রলীগের সাবেক কয়েকজন নেতা আসতে পারেন গুরুত্বপূণ্য পদে। তারা হলেন ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি বাহাদুর বেপারী, সাধারণ সম্পাদক ইসহাক আলী পান্না, অজয় কর খোকন, সাবেক সভাপতি মাহমুদ হাসান রিপন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুল হায়দার চৌধুরী রোটন, সাবেক সভাপতি এইচএম বদিউজ্জামান সোহাগ।
যুবলীগের আগামী নেতৃত্বে প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, যোগ্য ও ত্যাগি নেতাদের সমন্বয় যুবলীগকে আগামী কংগ্রেসের মাধ্যমে দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা ঢেলে সাজাবেন। যুবলীগ লীগের এমন নেতৃত্ব আসবে যারা আগামী দিনে দেশের যুব সমাজকে সঠিক পথ দেখাবে।
উল্লেখ্য ১৯৭২ সালের ১১ নভেম্বর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশে শেখ ফজলুল হক মনির নেতৃত্বে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে এক যুব কনভেশনের মাধ্যমে যুবলীগ প্রতিষ্ঠা লাভ করে ।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]